চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১

১৬ এপ্রিল, ২০২১ | ১০:০৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাস্থ্যবিধি অমান্য: ৩৭ জনকে ১২ হাজার চারশ টাকা জরিমানা

নগরীর বিভিন্ন স্থানে স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করায় ৩৭ মামলায় ১২ হাজার চারশ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুক্রবার ( ১৬ এপ্রিল) চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের দশজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নগরীর বিভিন্ন স্থানে দিনব্যাপী মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এই জরিমানা করেন।

এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রায়হান মেহেবুব নগরীর পাঁচলাইশ বাকলিয়া ও চকবাজার এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে জনসাধারণকে সচেতন করেন এবং সচেতনতার পাশাপাশি মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট  নাজমা বিনতে আমিন নগরীর খুলশী বায়েজিদ ও চান্দগাও এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার সময় ২ টি মামলায় ১ হাজার টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। এ সময় অধিকাংশ মানুষকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে দেখেন এবং সচেতনতার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষে মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আশরাফুল হাসান পতেঙ্গা ইপিজেড ও বন্দর এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে ৩টি মামলা দায়ের করে ১ হাজার ৮শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। এছাড়াও সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামনুন আহমেদ অনিক খুলশী, বায়েজিদ ও চান্দগাও এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার সময় ৪টি মামলায় ৭শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। এছাড়াও সর্বাত্মক লকডাউন মেনে চলার ব্যাপারে জনসাধারণকে সচেতন করেন এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষে মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আতিকুর রহমান নগরীর পাঁচলাইশ বাকলিয়া ও চকবাজার এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার সময় ৪টি মামলায় ১ হাজার ২ শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন এবং লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে জনসাধারণকে সচেতন করেন। এছাড়াও সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমান নগরীর কোতোয়ালি সদরঘাট ও ডবলমুরিং এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার সময় ৩টি মামলা দায়ের করে ১ হাজার ৫ শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। এছাড়াও সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান শহরের কোতোয়ালি সদরঘাট ও ডবলমুরিং এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার সময় ৬টি মামলা দায়ের করে ২৬০০ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন এবং জেলা প্রশাসন, চট্টগ্রামের পক্ষ হইতে মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আশরাফুল আলম নগরীর বন্দর ও ইপিজেড এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার সময় ১টি মামলায় ৫ শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন এবং সচেতনতার পাশাপাশি মাস্ক বিতরণ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিল্লুর রহমান নগরীর পাহাড়তলী হালিশহর ও আকবরশাহ এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৮টি মামলায় ১ হাজার ২ শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। এ সময় অধিকাংশ সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে দেখা যায় এবং মাস্ক বিতরণ করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্লাবন কুমার বিশ্বাস নগরীর আকবরশাহ পাহাড়তলী হালিশহর এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৩টি মামলায় ১ হাজার ২ শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন।

এছাড়াও লকডাউন সফল করার লক্ষ্যে সন্ধ্যার পর থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক জিইসি মোড়, আগ্রাবাদ ও হালিশহর এলাকায় ৩টি মামলায় ৭শ টাকা অর্থদণ্ড করেন ও  নূরজাহান আক্তার সাথী চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করেন।

পূর্বকোণ / আরআর/পারভেজ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 186 People

সম্পর্কিত পোস্ট