চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১

৯ এপ্রিল, ২০২১ | ১১:০৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

পূর্বকোণ অনলাইনে সংবাদ প্রকাশের জের: সেই বৃদ্ধের দায়িত্ব নিল পুলিশ

দৈনিক পূর্বকোণ অনলাইনে সংবাদ প্রকাশের পর ১১৫ বছর বয়সী বৃদ্ধ গোলাম রহমানের দায়িত্ব নিল পুলিশ। পরিবারের অবহেলা সইতে না পেরে এই বৃদ্ধ অগত্যা ভিক্ষায় নামেন। কিন্তু চলৎশক্তিহীন হয়ে বৃহস্পতিবার রাস্তায় পড়ে থাকার খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেন।
বৃহস্পতিবার রাতেই পূর্বকোণ অনলাইন ভার্সনে প্রকাশিত সংবাদটি সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের নজরে এলে তিনি বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল আমীনকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। এরপর আজ (শুক্রবার) ওসি বৃদ্ধের মেয়ে রাবেয়া বেগমের বাসায় যান। বাসায় গিয়ে বৃদ্ধ গোলাম রহমানের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন। বৃদ্ধ বাবার প্রতি এমন আচরণ না করার জন্য মেয়েকে অনুরোধ করেন। একই সঙ্গে প্রয়োজনে ওই বৃদ্ধের যাবতীয় ব্যয়ভার বহনের প্রতিশ্রুতিও দেয়া হয়।
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানায়, বৃদ্ধ গোলাম রহমান থাকতেন চট্টগ্রাম নগরীর চাক্তাই নয়া মসজিদ এলাকার মেয়ের বাসায়। পরিবারের অবহেলা সইতে না পেরে বৃহস্পতিবার খুব সকালে বেরিয়ে পড়েন ভিক্ষা করতে। মানুষের কাছ থেকে ভিক্ষা করে এক পর্যায়ে ক্লান্ত হয়ে বায়েজিদ থানাধীন আরেফিন নগর এলাকায় এসে সড়কের পাশে ঘুমিয়ে পড়েন বৃদ্ধ। কিন্তু প্রায় অচেতন হয়ে পড়া এই বৃদ্ধের অবস্থা দেখে এলাকার লোকজন তাকে পাশের একটি মসজিদে এনে শুশ্রূষা করেন এবং জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল দেন। পুলিশ গিয়ে সেখান থেকে বৃদ্ধকে উদ্ধার করে স্থানীয়দের সহযোগিতায় বৃদ্ধের মেয়ে রাবেয়া বেগমের হাতে তুলে দেয়।
এ নিয়ে পূর্বকোণ অনলাইনে ৮ এপ্রিল রাতে ‘রাস্তায় পড়েছিল ১১৫ বছরের বৃদ্ধ, ৯৯৯-এ ফোন পেয়ে পুলিশ পৌঁছে দিল বাসায়’ একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।
সেদিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে উদ্ধারকারী পুলিশ কর্মকর্তা বায়েজিদ থানার এসআই রিদওয়ানুল হক বলেন, বৃহস্পতিবার ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে বায়েজিদ থানার আরেফিন নগর এলাকা থেকে ওই বৃদ্ধকে উদ্ধার করি। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় বাকলিয়ার নয়া মসজিদ এলাকায় তার মেয়ের বাসা খুঁজে বের করি। তারপর বাবার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার না করার অনুরোধ জানিয়ে মেয়ে রাবেয়া বেগমের হাতে তাকে হস্তান্তর করি।
এদিকে, বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল আমীন আজ জানান, পূর্বকোণ অনলাইনে বৃদ্ধের রাস্তায় পড়ে থাকার সংবাদটি দেখে সিএমপি কমিশনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আমাকে নির্দেশ দেন। আমি মেয়ের বাসায় গিয়ে বৃদ্ধের সাথে দেখা করি। তার খোঁজ- খবর নেই এবং কিছু উপহার সামগ্রী দিয়ে আসি। বৃদ্ধ বাবাকে সযত্নে রাখার অনুরোধ করলে রাবেয়া বেগম সেই অনুরোধে সম্মতি জানান।
ওসি জানান, ‘বৃদ্ধের জন্য সিএমপি কমিশনার স্যার সর্বাত্মক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।’

 

পূর্বকোণ/মামুন/পারভেজ

 

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 309 People

সম্পর্কিত পোস্ট