চট্টগ্রাম বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১

সর্বশেষ:

৮ মার্চ, ২০২১ | ৩:৪৩ অপরাহ্ণ

ডা. সেখ ফজলে রাব্বি 

দেশে করোনার এক বছর: দিন রাত্রি সবই ছিল এক

৩ এপ্রিল। সন্ধ্যায় যখন অফিসে অবস্থান করেছিলাম। ঠিক তখনই ফোন এলো, চট্টগ্রামে প্রথম করোনা রোগীর শনাক্তের খবর। আক্রান্ত ব্যক্তিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা, বাসা-বাড়ি লকডাউন করা। সব কিছুই ছিল নতুন এক অভিজ্ঞতা। কোথায় দিন আর কোথায় রাত। গেল এক বছর আগের সেই দিনগুলো কথা মনে পড়লো এখনও মনে হয় ‘দিন রাত্রি সবাই ছিল এক’। দিন যতই যাচ্ছে কোন না কোন আক্রান্ত রোগীর খবর আসছে। একা যেন হাফিয়ে উঠছি। সহকর্মীরাই ছিল তখন ভরসাস্থল।

আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা উর্ধ্বগতি যেন কোনভাবেই নিয়ন্ত্রণের আনা সম্ভব হচ্ছে না। সবসময় ভাবতাম, এই অবস্থার শেষ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে। প্রথম দিকে দুটো হাসপাতালে রোগীর পূর্ণতায় আরও বড় ধাক্কা খেতে হয়েছিল। লকডাউনের পর সাধারণ মানুষদের বাসায় বন্ধি রাখাও দুষ্কর ছিল। তারমধ্যে মৃত্যুর খবর যেন আরও ভারি করে তুলছিল। চিকিৎসকরাও চিকিৎসা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। সংবাদকর্মী থেকে শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা, প্রশাসনের কর্মকর্তাদেরও আক্রান্তের খবর আসছে। তবুও চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালসহ উপজেলা পর্যায়ের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে যেন চিকিৎসা পায়, সে বিষয়টি নিশ্চিতে প্রতিনিয়তই নির্দেশনা দেয়া হয়।

তবে সুখবর ছিল, ধীরে ধীরে সেই অবস্থা থেকে আমরা এখন অনেকটাই স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছি। মানুষের মধ্যে সচেতনা বৃদ্ধির ফলে আক্রান্তের খবর যেন কম পাওয়া যাচ্ছে, তেমনি মৃত্যুর সংখ্যাও হ্রাস করা সম্ভব হচ্ছে। সুস্থতার সংখ্যা এখন দিনে দিনেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে শেষ কথায় আমাদের সচেতনতায় পারে এমন মহামারী থেকে রক্ষা করতে।

বিশেষ করে চট্টগ্রামের বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মন্ত্রী মহোদয়গণ, এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যানগণ সর্বস্তরের জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বিএমএসহ বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠন, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, মিডিয়া, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা যেভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন তা এককথায় অভূতপূর্ব, অবিস্মরণীয়। চিকিৎসা সেবায় চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল, চমেক হাসপাতাল, বিআইটিআইডি হাসপাতাল, হলিক্রিসেন্ট, রেলওয়ে, ইউএসটিসি ছাড়াও বেসরকারি চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালসহ প্রাইভেট হাসপাতালগুলোর অবদান ছিল অনস্বীকার্য।

লেখক : সিভিল সার্জন, চট্টগ্রাম

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 306 People

সম্পর্কিত পোস্ট