চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১

৮ মার্চ, ২০২১ | ১২:২৫ অপরাহ্ণ

মোহাম্মদ আলী 

দেশে করোনার এক বছর: দাফনে অনন্য গাউসিয়া কমিটি

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত ব্যক্তিদের দাফনে অনন্য নজির সৃষ্টি করেছে গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ। ধর্মীয় এ সংগঠনটি গত ১১ মাসে শুধু চট্টগ্রামেই ১৬৬৭ জনকে দাফন করেছে। এরমধ্যে অন্য ধর্মাবলম্বী রয়েছেন ২৮ জন। এছাড়াও একই সময়ে সাড়ে ১২ হাজার মানুষকে দিয়েছে অক্সিজেন সহায়তা। চারটি এম্বুলেন্সের মাধ্যমে ২১০০ রোগীকে সেবা দিয়েছে। ৯৪৬ জনকে ভ্রাম্যমান গাড়িতে করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহে সহায়তা দিয়েছে।

২০২০ সালের ১৩ এপ্রিল পটিয়া হাইদগাঁও গ্রামের ৭ বছরের শিশু সন্তানের দাফনের মধ্যদিয়ে গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ এ কাজের কার্যক্রম শুরু করে। এরপর থেকে একে একে গতকাল ৭ মার্চ পর্যন্ত শুধু চট্টগ্রামেই সংগঠনটির নেতাকর্মীরা ১৬৬৭ জনকে দাফন করেছেন। এমন কি কোনো কোনো দিন ১০ থেকে ১২ জনের মরদেহও দাফন কাজ সম্পন্ন করে। একই সময়ে সারাদেশে করেছেন ২০৬৪ জন। এরমধ্যে ২৫ জন হিন্দু, ৩ জন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী এবং ৩২ জন মুক্তিযোদ্ধাও রয়েছেন। তাছাড়া সংগঠনের পক্ষ থেকে ১২ জন অজ্ঞাত মরদেহও দাফন করা হয়।

মরদেহ দাফন প্রসঙ্গে গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় পরিষদের যুগ্ম মহাসচিব এবং করোনায় মৃতের দাফন ও রোগী সেবা কার্যক্রমের প্রধান সমন্বয়ক মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার দৈনিক পূর্বকোণকে বলেন, ‘গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ, চট্টগ্রামে করোনা রোগী শনাক্ত হবার আগে থেকেই করোনায় মৃতের দাফন-সৎকারসহ অন্যান্য সেবা কার্যক্রমের প্রস্তুতি নিয়েছিল। গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশই চট্টগ্রামে সর্বপ্রথম করোনায় মৃতের দাফন কাফনের সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণকারী সংগঠন। ৭০০ স্বেচ্ছাসেবকের মাধ্যমে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ থেকে মানবিক এ কর্মকা- চালানো শুরু হয়। যা এখনো অব্যাহত রয়েছে।’

মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার বলেন, ‘পহেলা মে আমি নিজেই মোহরায় মৃত করোনা রোগীর জানাজায় ইমামতি করি। কারণ ওই সময়ে মসজিদের ইমাম- মুয়াজ্জিনরা কেউ এ দায়িত্ব পালনে এগিয়ে আসেনি। গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আলহাজ পেয়ার মোহাম্মদ কমিশনারসহ আমি দাফন কাজে সরাসরি অংশগ্রহণ শুরু করলে সাধারণ কর্মীদের সাহস বৃদ্ধি পায় এবং আমাদের দাফন কাজে গতি আসে। পরপর কয়েকটি এম্বুলেন্স সহায়তা পাওয়ার পর জুন মাস থেকে আমাদের এ কাজের গতি আরো বহুগুণ বেড়ে যায়।

তাছাড়া এই মহামারী পরিস্থিতিতে করোনায় মৃত ছাড়াও অন্যদের গোসল-দাফন কাজে মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে আগের মত এগিয়ে আসতো না। এ অবস্থায় যারা আমাদের সহায়তা চেয়েছেন তাদেরও দাফন কাজে সহায়তা দিয়েছি।  দাফন-কাফন, অক্সিজেন, এম্বুলেন্স সহায়তা বা অন্য কোন সেবা দিয়ে গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ এ পর্যন্ত কারো কাছ থেকে কোন পারিশ্রমিক, এমনকি তেল-গ্যাস খরচও গ্রহণ করেনি, যা একটি বড় মানবিক দৃষ্টান্ত। এছাড়া আমাদের সংগঠনের উপজেলা ও থানা কমিটিগুলো একই সময়ে নিয়মিত চিকিৎসা ক্যাম্প আয়োজন করে করোনা পরিস্থিতিতে ১১ হাজার মানুষের চিকিৎসার ব্যবস্থাসহ বিনামূল্যে ওষুধ সরবরাহ করেছে। লকডাউন শুরুর সাথে সাথে দেশব্যাপী এক লাখ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা এবং শত শত পরিবারকে বিকাশ ও হাতে হাতে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে।’

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 537 People

সম্পর্কিত পোস্ট