চট্টগ্রাম শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১

৮ মার্চ, ২০২১ | ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ

নওশের আলী খান 

এমন দুঃসময় যেন আর না আসে

বিশ্বকে তছনছ করে দেয়া করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এখনো দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। বিশ্বের কোন দেশ এই ভাইরাসের কবল থেকে রক্ষা পায়নি। 

চীনা কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী চীনের হুবেই প্রদেশে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে ২০১৯ সালের ৩১শে ডিসেম্বর এবং হুবেই প্রদেশে উহান শহরের একটি সামুদ্রিক খাবার ও পশুপাখির বাজারের সাথে প্রথম সংক্রমণগুলোর সম্পর্ক আছে বলে জানা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১১ মার্চ ২০২০ কোভিড-১৯ প্রার্দুভাবকে বিশ্ব মহামারী ঘোষণা করে।

বাংলাদেশে কোভিড আক্রান্ত রোগীর খোঁজ মিলে এক বছর পূর্বে আজকের এদিন ৮ মার্চ। তবে চট্টগ্রামে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাাক্ত হয় ৩ এপ্রিল।  দেশে ক্রমান্বয়ে  বাড়তে থাকে রোগীর সংখ্যা। একইসাথে বাড়তে থাকে মৃত্যুর হারও।  আতংক ছড়িয়ে পড়ে দেশজুড়ে। ২৭ মার্চ থেকে পুরো দেশ লকডাউন হয়ে যায়। মর্মান্তিক হলেও সত্যি আতংকে একান্ত আপনজনরা  পর্যন্ত মৃতদেহের পাশে যেতে চায়নি। এমনকি লাশ দাফনেও অংশগ্রহণ করেনি।  বেসরকারি বেশিরভাগ হাসপাতাল করোনা রোগী করোনা উপসর্গ রয়েছে এমন রোগী ভর্তি করতে অনীহা প্রকাশ করে।

সেসময় করোনা আত্রান্ত অনেক রোগী বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। শুরু থেকেই চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল ও ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি ছিল করোনা রোগীদের একমাত্র  ভরসা। ফলে এই দুই হাসপাতালের চিকিৎসক নার্স ও কর্মচারীদের উপর মারাত্মক চাপ পড়ে। তবে তাঁদের সাহসী ভূমিকা অবশ্যই প্রশংসনীয়। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা শুরু হয় মে মাসের শেষের দিকে এবং জুন থেকে কিছু কিছু বেসরকারি হাসপাতাল করোনা রোগী ভর্তি শুরু করে। করোনা রোগীর চিকিৎাসেবা দিতে গিয়ে চট্টগ্রামে হারিয়েছেন ১৮ জন নিবেদিত প্রাণ চিকিৎসক। করোনায় চট্টগ্রামে প্রাণ হারিয়েছেন চার শতাধিক লোক। ভঙ্গুর চিকিৎসা ব্যবস্থা সত্ত্বেও সরকারের প্রশংসনীয় উদ্যোগে প্রশাসনের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনা মোকাবেলায় মাঠে নেমে পড়ে। ফলে মারাত্মক বিপর্যয় থেকে রক্ষা পায় দেশ।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের শুরুতে দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ছিল বেসামাল। ফলে চিকিৎসা নিয়ে দেখা দেয় নানা জটিলতা।  ব্যাপক দুর্নীতির ঘটনাও ঘটে। অসাধু কিছু ব্যবসায়ী প্রয়োজনীয় ওষধ সামগ্রীর দাম বাড়িয়ে হাতিয়ে নেয় কোটি কোটি টাকা।

করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে দৈনিক পূর্বকোণ বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করে।  দৈনিক পূর্বকোণে প্রকাশিত হয়, ‘সচেতনতাই আপনাকে বাঁচাতে পারে’, রোগীর প্রশ্নের ভিত্তিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের চিকিৎসাসেবা,  চট্টগ্রামের লাইফ লাইন কোভিড -১৯ হাসপাতাল ও করোনাকালে বিত্তশালীদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে ‘শ্বাস নিতে চায় চট্টগ্রামসহ বিজ্ঞপ্তি ও বিশেষ প্রতিবেদন। যা সারা চট্টগ্রামবাসীর মনে আশার সঞ্চার ঘটিয়েছিল। তখন অনেক শিল্পপতি, ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী এগিয়ে এসেছিলেন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসাসেবায়। বিশেষ করে আল মানাহিল ও গাউছিয়া কমিটি করোনায় মৃতদের দাফনের উদ্যোগ  অবশ্যই স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

করোনাা মহামারী এখনো দাপিয়ে বেড়ালেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী সিদ্ধান্তে বাংলাদেশে এসে গেছে করোনা ভ্যাকসিন। সরকার এখন এই ভ্যাকসিন প্রত্যন্ত  অঞ্চলে ছড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনা করছে। উল্লেখ্য, ঊনিশশো তিরিশের দশকে যে বিশ্ব মহামন্দা পরিস্থিতি (যা গ্রেট ডিপ্রেশন নামে পরিচিত) তৈরি হয়েছিল, তারপর এই প্রথম করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে আবার বড় ধস নেমেছে। অনেকের ধারণা, মহামারী হয়তো নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে, কিন্তু বিশ্ব অর্থনীতির যে মারাত্মক ক্ষত সৃষ্টি  হয়েছে তা কাটিয়ে ঊঠতে অনেক বছর যাবে। তবে এই মহামারী যেন ফিরে না আসে সেটাই সবার প্রত্যাশা।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 233 People

সম্পর্কিত পোস্ট