চট্টগ্রাম রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১

সর্বশেষ:

২ মার্চ, ২০২১ | ১০:৪১ অপরাহ্ণ

রাঙ্গুনিয়া সংবাদদাতা

‘সহজ শর্তে লাইসেন্স প্রদানপূর্বক ইটভাটা চালু রাখার দাবি’

সহজ শর্তে লাইসেন্স প্রদানের মাধ্যমে ইটভাটাগুলো চালু রাখার দাবি জানিয়েছেন চট্টগ্রামের ইটভাটা মালিক ও শ্রমিকরা। 

 

মঙ্গলবার (২ মার্চ) সকালে রাঙ্গুনিয়ার গাবতল এলাকায় মানববন্ধন ও সমাবেশে এমন দাবি জানান রাঙ্গুনিয়া ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি ও ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন চৌধুরী মিল্টন। রাঙ্গুনিয়া ইটভাটা মালিক ও শ্রমিকদের ব্যানারে গাবতল এলাকায় সড়কের দুইপাশে দীর্ঘ ৩ কিলোমিটার মানববন্ধনে অংশ নিয়েছেন অন্তত ৫ সহস্রাধিক ইটভাটা শ্রমিক।

 

চট্টগ্রামের ইটভাটার মালিক ও শ্রমিকদের বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে বক্তারা বলেন, ‘প্রতিটি ইটভাটায় হাজারখানেক শ্রমিক কাজ করেন। ইটভাটায় কর্মরত হাজারখানেক শ্রমিক ও তাদের পরিবারকেও কাজ হারিয়ে অনাহারে দিন কাটাতে হবে। ইটভাটা বন্ধ হয়ে গেলে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডও বাধাগ্রস্ত হবে।

 

হাইকোর্টের আদেশে ইটভাটা বন্ধের খবরে ক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অধিকাংশ চট্টগ্রাম অঞ্চলের। তাই ষড়যন্ত্রকারীরা এইসব প্রকল্পের কাজ বন্ধ করতে প্রকল্পে গুরুত্বপূর্ণ ও সবচেয়ে প্রয়োজনীয় উপাদান ইট সংকট তৈরি করতে ইটভাটাকে টার্গেট করেছেন। সরকারি সিদ্ধান্ত মেনে চলতে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ। আমরা এই শিল্প রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

 

এ সময় তাদের হাতে ছিল ইটভাটা চালু রাখার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে নানা স্লোগান সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশটি চলে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। এসময় চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

 

মানববন্ধনশেষে আয়োজিত সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন রাঙ্গুনিয়া ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন চৌধুরী, ইটভাটা মালিক সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী, জামাল উদ্দিন মোস্তফা জাহাঙ্গীর, সাদেক নুর চৌধুরী টিপু, ইউসুফ চৌধুরী, ইউসুফ মাতব্বর, সেকান্দর হোসেন চৌধুরী, মঞ্জুর মিয়া, মো. ইউনুছ কোম্পানী, মো. ইলিয়াছ কোম্পানী, আয়াতুল ইসলাম, আজাদ কোম্পানী,সাহাব মিয়া, আজিজুল হক কোম্পানী,হাছান তালুকদার, ইটভাটা শ্রমিক মো. আজাদ, মো. সিরাজ প্রমুখ।

 

উল্লেখ্য, পরিবেশ দূষণের অজুহাতে চট্টগ্রামে ইটভাটা বন্ধ করার জন্য হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন দেশের একজন আইনজীবী। এরপর থেকে জেলা ও উপজেলায় বিপুল পরিমাণ ইটভাটা উচ্ছেদ, কাঁচা ইট ধ্বংস ও জরিমানা করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে রাঙ্গুনিয়াসহ চট্টগ্রামের সকল ইটভাটায় ইটবিক্রি বন্ধ রেখেছেন ইটভাটা মালিকরা। এতে মাঠ পর্যায়ে স্থাপনা নির্মাণে চরম সংকট সৃষ্টি হয়েছে।

 

পূর্বকোণ/মামুন/পারভেজ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 419 People

সম্পর্কিত পোস্ট