চট্টগ্রাম রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১

১ মার্চ, ২০২১ | ১২:৪২ অপরাহ্ণ

সারোয়ার আহমদ 

লালদিয়ার চরে চাপা কান্না

লালদিয়ার চরের বাসিন্দা ফারজানা আক্তার। বয়স ২৫ বছর। নয় মাসের কোলের শিশুকে নিয়ে পৈত্রিক ভিটার উঠোনে বসে আছে। বাড়ির ভেতরে বসার মত অবস্থা নেই। কারণ ইতিমধ্যেই পৈত্রিক এই বাড়ির টিনের চালাটি খুলে ফেলা হয়েছে। এর আগে সকল আসবাবপত্রও অন্যত্র সরিয়ে এক ভাড়া বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখন অপেক্ষা শুধু বাড়ির ইট ও দরজাগুলো করো কাছে বিক্রি করে চলে যাওয়ার।

এক সময়কার প্রভাবশালী মেম্বারের একমাত্র নাতনি হয়েও আজ ফারজানার নিজের কোন বাড়ি নেই। কেমন আছেন জিজ্ঞাসা করতেই কোলের শিশুকে নিয়ে অশ্রুশিক্ত কাঁদো কাঁদো কণ্ঠে বলে উঠলেন ‘কেমন যে আছি নিজেও জানি না। কিভাবে বাঁচবো তাও জানি না।’

বাস্তবতার নির্মম পরিহাস মেনে নিয়েই নিজের জন্মস্থান ও পৈত্রিক বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে হচ্ছে ফারজানাকে। তার মনের নিরব কান্না শোনার মত কেউ নেই। কারণ উচ্চ আদালতের নির্দেশ মানতে আজ সোমবার লালদিয়ার চরের সব স্থাপনা উচ্ছেদ করবে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। সান্ত¡না দিয়ে ফারজানার কাছে জানতে চাওয়া হয় লালদিয়ার চরে তাদের পৈত্রিক বসবাস প্রসঙ্গে। তিনি জানান, হোসাইন আহমেদ মেম্বার তার দাদা। আজকের জহুরুল হক বিমান ঘাঁটিতে ছিল হোসাইন আহমেদ মেম্বারের বাড়ি। মেম্বার হিসেবে এলাকায় সুপরিচিত ছিলেন তিনি।

কিন্তু ১৯৭২ সালে তৎকালীন মুজিব সরকারের আমলে বিমান ঘাঁটি সম্প্রসারণের সময় স্থায়ী বন্দোবস্তি পাওয়ার আশ্বাসের ভিত্তিতে নিজেদের ভিটামাটি ছেড়ে লালদিয়ার চরে বসতি শুরু করে স্থানীয় হোসাইন আহমেদ মেম্বারসহ কয়েকশ পরিবার। এই লালদিয়ার চড়ে ১৯৯৬ সালে হোসাইন আহমেদের ছেলে মো. রফিকের ঘরে জন্ম হয় একমাত্র মেয়ে ফারজানার। লালদিয়ার চরের তার বাপ-দাদার বাড়িটি ফারজানার নামেই লিখে দিয়েছেন। এখন নয় মাসের শিশুপূত্রকে নিয়ে ফারজানা তার পৈত্রিক বাড়ি ছেড়ে পতেঙ্গার কাটগড়ে একটি ভাড়া বাসায় উঠছেন। কিন্তু ভাড়া বাসা কতদিন চালাতে পারবেন তা জানেন না ফারজানা। তার স্বামী ক্যাবল নেটওয়ার্কের (ডিস) কাজ করেন। যা আয় হয় তা দিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে সংসার চালানো অসম্ভব প্রায়।

এই চিত্র শুধু ফারজানা একার নয়। লালদিয়ার চরে বসবাসকারী প্রায় ২৩শ পরিবারের ১৪ হাজার মানুষের প্রত্যেকেই এখন ফারজানার মত করুণ অবস্থা।

গতকাল রবিবার দুপুরে পতেঙ্গার এয়ারপোর্ট রোড সংলগ্ন লালদিয়ার চড়ের ১২ নম্বর ঘাটের পাশে গিয়ে দেখা যায় প্রায় সব বসতঘর ও দোকানের সব মালামাল বের করে নিয়েছে বাসিন্দারা। ভ্যান ও শত শত পিকআপ সারিবদ্ধ করে দাঁড় করানো। সেগুলোতে মালামাল ভর্তি করা হচ্ছে। কেউ ঘরের চালার টিন নিচ্ছে, কেউ কেউ ইট দরজা জানালা খুলে নিয়ে যাচ্ছে। এমনকি কেউ তাদের রোপণ করা গাছটিও কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। পৈত্রিক ভিটা ছেড়ে যাওয়ার মাঝে যে হৃদয় ক্ষরণ তা তাদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে। পুনর্বাসন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অনেকেই জানান, তাদের কবে থাকার জায়গা দেবে সরকার তারা তা জানেন না। এমনকি কেউ তাদের খোঁজও নিতে আসেন নি।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 1180 People

সম্পর্কিত পোস্ট