চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ৫:১৯ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ১৫ কেন্দ্রের ১৭০ কর্মী

করোনা ভ্যাকসিন: হাসপাতালে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

জেনারেল হাসপাতালেও শুরু ৭ ফেব্রুয়ারি

চমেক হাসপাতালের চতুর্থ তলার আইসিইউ শয্যার সামনে গেলেই চোখ পড়বে নতুন কিছু তৈরি করতে কাজ করছেন মিস্ত্রিরা। সাথে বিভিন্ন নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন হাসপাতাল সংশ্লিষ্ট কর্মী ও কর্মকর্তারা। ওয়ার্ডের সামনে নতুন প্রস্তুতিই যেন জানিয়ে দিচ্ছে এখানেই হবে করোনার ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম।

আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিন গ্রহণ করবেন স্বাস্থ্যকর্মী থেকে শুরু করে সকল সম্মুখসারির যোদ্ধা। তাই চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। প্রস্তুত করা হচ্ছে টিকাগ্রহণের অপেক্ষাকক্ষ, টিকা দেয়ার বুথ এবং টিকাদান শেষের বিশ্রামাগার তথা অবজারভেশন কক্ষ। মোটকথা এ প্রক্রিয়ায় কোনো ধরণের ঘাটতি যেন না হয়, সেই চেষ্টাই করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, চমেক হাসপাতালের চতুর্থ তলায় কোভিড টিকাদানের বুথ স্থাপনের কাজ চলছে। চারটি বুথ স্থাপনের কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। পাশাপাশি স্থাপন করা হবে অবজারভেশন কক্ষও। যাতে টিকাগ্রহীতাকে নির্দেশনা অনুযায়ী পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। ইতোমধ্যে টিকাদানের কক্ষে কমপিউটার ও ইন্টারনেটের সংযোগ স্থাপন শেষ হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা যায়, চার বুথের মধ্যে নারী পুরুষদের জন্য পৃথক কক্ষের ব্যবস্থা করা হবে। পর্যবেক্ষণ কক্ষও হবে পৃথক। এছাড়া টিকাগ্রহণকারীদের পর্যবেক্ষণে ১২ জনের একটি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক টিমও থাকবে তাতে। যারা টিকা দিতে আসবেন, তাদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো দেখেই টিকাদানের বিষয় নিশ্চিত করবেন তারা।

অন্যদিকে আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালেও উদ্বোধন হবে করোনা ভ্যাকসিন কার্যক্রম। শিক্ষা উপ-মন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল তাও উদ্বোধন করবেন। উদ্বোধনী দিনে চিকিৎসক-নার্সসহ সম্মুখসারির ২৫ জনকে টিকা দেয়া হবে।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ও জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, একই দিনে চমেক ও জেনারেল হাসপাতালে শুরু হবে টিকা কার্যক্রম। ইতোমধ্যে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগলো প্রস্তুতি গ্রহণ করছে।

অন্যদিকে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ১৫টি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান তথা টিকাদানের সাথে সংশ্লিষ্ট ১৭০ জন নার্স, মিডওয়াইফসহ অন্য কর্মীদের দুইদিনের প্রশিক্ষণ শেষ হচ্ছে আজ। যারা আগামী ৭ তারিখ থেকে টিকাদানে নির্ধারিত কেন্দ্রগুলোতে সরাসরি টিকা প্রদানে সংযুক্ত থাকবেন।

এছাড়া আগামী শনিবার এসব কেন্দ্রের জন্য ভলানটিয়ারদের প্রশিক্ষণ শুরু করা হবে বলে পূর্বকোণকে জানিয়েছেন চসিকের করোনা ভ্যাকসিন প্রদান কমিটির সদস্য সচিব ও চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী।

তিনি বলেন, নগরের টিকাদানের বিষয়ে প্রশিক্ষণ থেকে শুরু করে সব বিষয়ে ইতোমধ্যে প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারিই এ কার্যক্রম শুরু করা হবে।

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 180 People

সম্পর্কিত পোস্ট