চট্টগ্রাম সোমবার, ০১ মার্চ, ২০২১

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১:৫৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চসিকের বিদ্যুৎ বিভাগের নিয়োগ প্রক্রিয়া যথাযথ হয়নি

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে বিদ্যুত বিভাগে নিয়োগ পাওয়া ২৭ জন বৈদ্যুতিক মিস্ত্রি ও হেলপারের নিয়োগ প্রক্রিয়া যথাযথ হয়নি বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। চসিকের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম এই তদন্ত প্রতিবেদন প্রদান করেন। ২০২০ সালের ২৬ জুলাই মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে তাদের নিয়োগ দেয়া হয়।

তদন্ত কর্মকর্তা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম তার পর্যবেক্ষণে বলেছেন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ঝুলন কুমার দাশ স্বাক্ষরিত নথির বিভিন্ন পদের জন্য আবেদনকারির তালিকা যার মধ্যে ৮ জন বৈদ্যুতিক মিস্ত্রি ও ১৮ জন হেলপার এর শূন্যপদে নিয়োগের অনুমোদনের সময় বৈদ্যুতিক উপবিভাগ থেকে উপস্থাপন করা হয়েছিল। নিয়োগের বিষয়ে পত্রিকায় কোন বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়নি। নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোন ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যু করা হয়নি।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিবিহীন বিভিন্ন সময়ে প্রাপ্ত আবেদনের ভিত্তিতে শুধুমাত্র আবেদনকারির মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বিধায় অধিকতর প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে যাচাই-বাছাইয়ের পদ্ধতি অনুসৃত হয়নি। শূন্যপদে লোক নিয়োগ কিংবা পদোন্নতি প্রদান সংক্রান্ত গঠিত পদোন্নতি বোর্ডেও সভা আহবানে সচিবালয় বিভাগের কার্যকর উদ্যোগ পরিলক্ষিত হয়নি। তিনি সুপারিশ করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের যেকোন ধরনের শূন্যপদে নিয়োগের ক্ষেত্রে যথাযথভাবে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা যেতে পারে।

চসিকের যেকোন পদোন্নতি প্রদানে পদোন্নতি বোর্ডের মাধ্যমে হওয়া বাঞ্ছণীয়। স্ববেতনে উপরের পদে কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য যেকোন ধরনের অতিরিক্ত কিংবা চলতি দায়িত্ব প্রদান নিরুৎসাহিত করা হয় প্রতিবেদনে। শূন্যপদে লোক নিয়োগ কিংবা পদোন্নতি প্রদানের সংক্রান্ত গঠিত পদোন্নতি বোর্ডেও সভা প্রতি বছর অন্তত একবার আহ্বান করা যেতে পারে। তাছাড়া সরকারি নিয়োগের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে পদ শূন্য হলেই নিয়োগ দেয়া যেতে পারে। তবে নিয়োগে অনিয়ম হলেও তারা যেহেতু সন্তোষজনকভাবে কাজ করছে তাই তারা চাকুরি চালিয়ে যেতে পারে বলে তদন্ত কর্মকর্তা সুপারিশ করেন।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
  • 38
    Shares
The Post Viewed By: 272 People

সম্পর্কিত পোস্ট