চট্টগ্রাম সোমবার, ০৮ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ | ১২:৪১ অপরাহ্ণ

ইমরান বিন ছবুর

অনন্যা’র দ্বিতীয় প্রকল্প: তিন বছর গেল ভাবনাতেই

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) ‘অনন্যা আবাসিক প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায়’ প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে এখনো সংশয় কাটছে না। ব্যাংক ঋণ গ্রহণের ব্যাপারে সিডিএ থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠালেও এখনো চূড়ান্ত অনুমোদন আসেনি। অন্যদিকে, ব্যাংক ঋণ নিয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন আদৌ সম্ভব কিনা সেই সন্দেহমুক্ত হতে পারছেন না সিডিএর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এদিকে, গত মঙ্গলবার সিডিএ’র কনফারেন্স রুমে প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে একটি বৈঠক হয়। এর আগে গত সোমবার প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য গঠিত ১১ সদস্যের কমিটি প্রকল্প এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন করে এসেছে। তবে ‘অনন্যা আবাসিক প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায়’ বাস্তবায়ন নিয়ে এখনো কোন চূড়ান্ত হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন সিডিএ’র ঊর্ধ্বতন একাধিক কর্মকর্তা।

সম্প্রতি অনন্যা আবাসিক প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায় বাস্তবায়নের জন্য সিডিএ’র সচিবকে আহবায়ক এবং প্রকল্প পরিচালককে সদস্য সচিব করে ১১ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে প্রকল্প এলাকার বর্তমান অবস্থা, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র, জমির ক্ষতিপূরণ বাবদ জমির মূল্যের ১.৫০ হতে ৩ গুণে বৃদ্ধি, প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ব্যাংক ঋণ গ্রহণ এবং সুদ বাবদ অর্থ পরিশোধ, হালদা নদীর উপর প্রকল্পের প্রভাব ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা ও পর্যালোচনাপূর্বক একটি প্রতিবেদন প্রণয়নের জন্য বলা হয়েছে। এ সম্পর্কে জানতে চাইলে সিডিএ’র প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস্ধসঢ়; জানান, প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা গত সোমবার প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছি। কমিটিকে বিশেষ কিছু বিষয় পরিষ্কার করার জন্য বলা হয়েছে। আমরা এসব বিষয় ক্লিয়ারের জন্য পরিদর্শন করেছি। পরিদর্শন শেষে আমরা একটি মিটিংও করেছি। মিটিংয়ে আমাদের পর্যবেক্ষণগুলো পিডিকে বলেছি। তিনি আরো বলেন, এর প্রকল্পটি ঘিরে আমরা অনেক কিছু বিশ্লেষণ করছি। যেহেতু ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে এ প্রকল্প করতে হচ্ছে। এই লোনটি সিডিএ’র উপর এফেক্ট করে কিনা বা সিডিএ দেউলিয়া হচ্ছে কিনা- এসব বিষয় নিয়ে আমরা এখন ভাবছি। কমিটির পক্ষ থেকে নতুন কোন সিদ্ধান্তও আসতে পারে।

সিডিএ চেয়ারম্যান এম জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে একটি ১১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটিকে প্রকল্পের সার্বিক বিষয়ে আলোচনা ও পর্যালোচনাপূর্বক একটি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এরপর প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে সিডিএ একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছাবে।

সিডিএ’র সূত্র থেকে জানা যায়, চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানায় অনন্যা আবাসিক-২ প্রকল্পে মোট প্লট রয়েছে ১ হাজার ৯৮৬টি। এরমধ্যে ১৯টি কমার্শিয়াল এবং বাকিগুলো আবাসিক প্লট। হাটহাজারী থানার বাথুয়া, কুয়াইশ ও শিকারপুর এলাকায় ২৭৬ একর ভূমির উপর এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। কাটা প্রতি আবাসিক প্রকল্পের মূল্য ধরা হয়েছে ১২ থেকে ১৫ লাখ টাকা এবং কমার্শিয়াল প্লটের মূল্য ধরা হয়েছে কাটা প্রতি ৩০ লাখ টাকা। এই আবাসিক প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে এক হাজার ৫১১ কোটি টাকা। এরমধ্যে ৮৫০ কোটি টাকা ব্যাংক লোন, সিডিএ’র তহবিল থেকে ২০০ কোটি টাকা এবং বাকি ৪৬১ কোটি প্লট বিক্রির আয় থেকে ব্যয় করা হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি একনেক সভায় ২ হাজার ৮৩২ কোটি ৯৭ লাখ টাকা ব্যয়ে অনন্যার দ্বিতীয় প্রকল্পটি অনুমোদন লাভ করে। ওই সময় নগরীর পাঁচলাইশ, কুয়াইশ ও বাথুয়া মৌজার ৪১৮ দশমিক ৭৩ একর জমির উপর এ আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। দুই হাজার কোটি টাকা ব্যাংক ঋণ নেওয়ারও সিদ্ধান্ত হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায়, এসবের প্লটের দাম কাঠা প্রতি ৩০ লাখ টাকা ছাড়িয়ে যাবে। এই দামে সিডিএ’র প্লট বিক্রি হবে না, এই ভেবে প্রকল্পটি আর বাস্তবায়ন হয়নি।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 591 People

সম্পর্কিত পোস্ট