চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০৪ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

২৬ জানুয়ারি, ২০২১ | ১২:৫৫ অপরাহ্ণ

ইফতেখারুল ইসলাম 

ভোটে প্রতিযোগিতা করুন প্রতিহিংসা নয় : রেজাউল

আগামীকাল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। প্রার্থীদের প্রচারণা গতকাল সোমবার শেষ হয়েছে। দৈনিক পূর্বকোণ এর সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, প্রচারণায় ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন। জয়ের ব্যাপারে তিনি আশাবাদী। প্রতিহিংসা নয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

পূর্বকোণ : আজ (গতকাল সোমবার) প্রচারণার শেষ দিন। গণসংযোগে কী রকম সাড়া পেয়েছেন ?

রেজাউল করিম : গত ৮ জানুয়ারি থেকে প্রকাশ্যে প্রচারণা শুরু করি। যেখানে গিয়েছি সেখানে প্রচুর সাড়া পেয়েছি। নিজেও অভিভূত হয়েছি। মানুষ স্বেচ্ছায় স্বতঃস্ফূর্তভাবে স্বউৎসাহে আমার প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেছেন।

পূর্বকোণ : এর পেছনের কারণ কী বলে মনে করেন ?

রেজাউল করিম : পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত রাজনৈতিক আন্দোলন ছাড়াও একইসাথে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক সমস্যা নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। বাসা-বাড়িতে গ্যাস সংযোগের জন্য আন্দোলন করেছি, পানির জন্য আন্দোলন করেছি। জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির আন্দোলন করেছি। সর্বশেষ করোনা মহামারীতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। এমনকি রাতে বিভিন্ন এলাকায় রান্না করা খাবার বিতরণ করেছি। যার ফল নির্বাচনী প্রচারণায় পেয়েছি। অনেক অলি-গলিতে যাওয়ার সময় অনেকেই ভবনের উপর থেকে ফুলের পাপড়ি ছিটাচ্ছেন। বিজয় চিহ্ন দেখাচ্ছেন। এতে বোঝা যায় তারা আমাকে বরণ করে নিয়েছে। এসব লক্ষণ দেখে আমি মনে করছি চট্টগ্রামবাসী নৌকায় ভোট দিয়ে আমাকে বিজয়ী করবে।

পূর্বকোণ : বহিরাগত নিয়ে আতঙ্কের কথা বলা হচ্ছে। আপনি কি আতঙ্কিত ?

রেজাউল করিম : আশঙ্কা অবশ্যই আছে। কারণ জামায়াত-বিএনপি সবসময় দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে চেয়েছে। আন্দোলনের নামে অগ্নিসংযোগ করেছে। আমার পাশের বাড়ির মুসাকে পুড়িয়ে মেরেছে। তারা তাকে টেম্পো থেকে নামতেও দেয়নি। তাই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন সেই আশঙ্কা করেছেন। এটা অমূলক নয়। আমরা কখনোই তাদের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙতে যায়নি। তারা কিন্তু আমাদের নির্বাচনী ক্যাম্প ভেঙেছে। তারা এখনো অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইছে। আমাদের কর্মীদের মারধর করছে। কিন্তু আমরা চাই অবাধ সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে ভোট হোক। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে বলে আমি আশা করি।

পূর্বকোণ : ভোটকেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কী রকম হতে পারে বলে আপনার ধারণা ?

রেজাউল করিম : ভোটাররা ভোট দেয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে। বড় ধরনের কোন গ-গোল না হলে ভোটাররা কেন্দ্রে এসে ভোট দেবেন। কারণ নির্বাচিত মেয়র না থাকায় তারা নানা ধরনের সমস্যায় পতিত হয়েছেন। জন্ম-মৃত্যু সনদ, নাগরিক সনদ ইত্যাদির জন্য নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে। নির্বাচন হলে নির্বাচিত প্রতিনিধির কাছ থেকে এসব সেবা সহজেই পাবেন।

পূর্বকোণ : প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রতি আপনার কী আহ্বান?

রেজাউল করিম : নির্বাচনে প্রতিযোগিতা থাকবে। প্রতিযোগিতা করুন। প্রতিহিংসা নয়। ইতিবাচক চিন্তা-ভাবনা নিয়ে এগিয়ে এলে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট হওয়ার কোন সুযোগ থাকবে না। সকল প্রার্থীকে আহ্বান জানাব, নগরবাসী চায় একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন। তাদের চাওয়া পূরণ করে শান্তি বজায় রাখুন।

পূর্বকোণ : আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের কর্মীদের বিবাদ নির্বাচনে কোন প্রভাব ফেলবে ?

রেজাউল করিম : আওয়ামী লীগের মধ্যে কোন বিরোধ বা বিবাদ নেই। তবে বড় গেদারিংয়ে অনেক সময় টুকটাক নেতিবাচক ঘটনা ঘটে। কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে কেউ কেউ সাংগঠনিক রূপ দিতে চায়। অনেক ব্যক্তিগত বা ব্যবসায়িক সমস্যাকে সংগঠনের মধ্যে আনার চেষ্টা করে কেউ কেউ। তাই বিষয়টি নিয়ে ভাবছিই না।

পূর্বকোণ : ভোটারদের উদ্দেশে কী বলবেন ?

রেজাউল করিম : আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে, স্বাধীনতার আগে থেকে আজ করোনাকাল পর্যন্ত মানুষের পাশেই আছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য, চট্টগ্রামকে একটি সমৃদ্ধ নগর হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আমাকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিয়েছেন। নগরবাসীর প্রতি বিনীত আবেদন, এই নৌকায় ভোট দিয়ে স্বাধীনতা পেয়েছি, স্বৈরাচার তাড়িয়েছি, দেশ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। এই নৌকায় চড়েই চট্টগ্রাম উন্নয়নের শিখরে উঠবে।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 220 People

সম্পর্কিত পোস্ট