চট্টগ্রাম শনিবার, ০৬ মার্চ, ২০২১

সর্বশেষ:

২৫ জানুয়ারি, ২০২১ | ৪:৩০ অপরাহ্ণ

নাজিম মুহাম্মদ 

নগরজুড়ে নজরদারি

স্বাভাবিক পরিবেশে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন সম্পন্ন করতে ব্যাপক পরিকল্পনা হাতে  নিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ভোটের দুইদিন আগে আজ (২৫ জানুয়ারি) থেকে ভোটের পরদিন (২৮ জানুয়ারি) পর্যন্ত টানা চারদিন নগরজুড়ে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি। গত ১৯ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত পরিপত্র পাঠায় নির্বাচনে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে।

নগর পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর জানান, চসিক নির্বাচনে ৯ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হবে। ‘নির্বাচন কমিশন থেকে আমরা একটা গাইডলাইন পাব। পুলিশের কিছু ফোর্স কেন্দ্রভিত্তিক থাকবে। পাশাপাশি আমরা ওয়ার্ড ও থানাভিত্তিক মোবাইল টিম রাখব।

ভোট কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা : গুরুত্বপূর্ণ ভোট কেন্দ্রে ১৮ জন ও সাধারণ ভোট  কেন্দ্রে ১৬ জন পুলিশ ও আনসার থাকবে।  সাধারণ ভোট কেন্দ্রে অস্ত্রসহ একজন এসআই অথবা এএসাইসহ তিনজন কনস্টেবল থাকবে। পুলিশ ছাড়া অস্ত্রসহ  আনসারের একজন প্লাটুন কমান্ডারের (পিসি) নেতৃত্বে  একজন এপিসি ও লাঠি হাতে দশজন আনসার সদস্য থাকবে। এদের মধ্যে চারজন মহিলা ও ছয়জন পুরুষ। গুরুত্বপূর্ণ ভোট কেন্দ্রে অস্ত্রসহ একজন এসআই অথবা এ এস আই’র নেতৃত্ব ৬ জন পুলিশ সদস্য থাকবে। সাধারণ কেন্দ্রের মতো আনসার সদস্য থাকবে।

মোবাইল টিম ও স্ট্রাইকিং ফোর্স : নগরীর ষোল থানার ৪১টি ওয়ার্ডে ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৭৩৫টি। এরমধ্যে পুলিশ, এপিবিএন ও আনসার ভিডিপির সমন্বয়ে ৪১ ওয়ার্ড  ৪১টি টিম থাকবে। প্রতি তিন ওয়ার্ড মিলে একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স থাকবে। এর বাইরে প্রতি থানায় একটি করে রিজার্ভ স্ট্রাইকিং ফোর্স, প্রতি ওয়ার্ডে র‌্যাবের একটি টিম ও প্রতি ওয়ার্ডে দুটি ওয়ার্ড মিলে এক  প্লাটুনে দশ জন করে ২৫ প্লাটুন অর্থাৎ ২৫০ জন বিজিবি সদস্য মোতায়েন থাকবে। প্রতি প্লাটুনে একজন ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। ভোটের আগের দুইদিন, ভোটের দিন, ভোটের পরের দিনসহ মোট চারদিন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে থাকবে।

পুলিশ : নির্বাচনী এলাকা ও ভোট কেন্দ্রে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখা পুলিশের প্রধান কাজ। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকল সরঞ্জাম ও দলিল দস্তাবেজ আনা নেয়ার সময় নিরাপত্তা, নির্বাচন কর্মকর্তা কর্মচারীদের নিরাপত্তার বিষয়টি পুলিশ দেখভাল করবে। ইভিএম ও ইভিএম এর কারিগরি সহায়তায় দায়িত্বপ্রাপ্ত  অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। আনসার ভিডিপি পুলিশের নির্ধারিত পরিকল্পনা অনুযায়ী  দায়িত্ব পালন করবে।

বিজিবি আর্ম ব্যাটালিয়ন : বিজিবি-আর্মড ব্যাটালিয়ন- বিজিবি /আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন মোবাইল  ও  স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসাবে কাজ করবে।

নির্বাচনী এলাকার নিকটবর্তী নদী পথে নৌ-পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে। আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখার ক্ষেত্রে রিটার্নিং অফিসার সহায়তা চাইলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সহায়তা করবে।

র‌্যাব : র‌্যাব ও বিজিবির কার্যক্রম অনেকটা একই রকম। র‌্যাব  মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসাবে কাজ করবে। রিটার্নিং অফিসার সহায়তা কামনা করলে আইন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সহায়তা করবে। আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনে হেলিকপ্টার  ব্যবহার করতে পারবে। এর বাইরে র‌্যাবের দুটি রিজার্ভ টিম নিয়োজিত রাখা হবে।  তবে স্থানীয় চাহিদা, ভোটকেন্দ্রের অবস্থান, ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা, ওয়ার্ড বিন্যাস ইত্যাদি বিবেচনায় এবং বাস্তবতার নিরিখে রিটার্নিং অফিসার, সংশ্লিষ্ট জেলা ম্যাজিস্ট্রেট  ও পুলিশ কমিশনারের সাথে  আলোচনা করে মোবাইল স্ট্রাইকিং ফোর্সের সংখ্যা হ্রাস-বৃদ্ধি করতে পারবে।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
  • 117
    Shares
The Post Viewed By: 290 People

সম্পর্কিত পোস্ট