চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

১৩ জানুয়ারি, ২০২১ | ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

৪ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ আদায়

চট্টগ্রামে গ্রাম আদালত: ৪২ মাসে ৬৯১৭ মামলা নিষ্পত্তি

১৯১টি গ্রাম আদালত চলমান

চট্টগ্রামের ৪৬টি ইউনিয়নের গ্রাম আদালতে ৪২ মাসে ৬৯১৭টি মামলা নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এসব মামলায় ৩ কোটি ৮১ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ আদায় করে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষকে দেয়া হয়েছে। ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০২০ সালের ডিসেম্বর-সাড়ে তিন বছরে এ সকল সমস্যার সমাধান করেন চট্টগ্রাম জেলার গ্রাম আদালত।

সরকার নিজেদের অর্থায়ন এবং ইউএনডিপি, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আর্থিক ও কারিগরী সহযোগিতায় স্থানীয় সরকার বিভাগের মাধ্যমে ৫ বছর মেয়াদি ২০১৬-২০২০ বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পটি দেশের ৮টি বিভাগের ২৭টি জেলার ১২৮টি উপজেলার ১ হাজার ৮০টি ইউনিয়নে বাস্তবায়ন করেছে।

স্থানীয় সরকার চট্টগ্রাম অফিস সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম জেলার ৫টি উপজেলার (সীতাকুণ্ড, সন্দ্বীপ, ফটিকছড়ি, সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া) ৪৬টি ইউনিয়নে বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পটি চলমান রয়েছে। চট্টগ্রাম জেলায় প্রকল্পের আওতায় গত সাড়ে তিন বছরে প্রকল্পে ৪৬টি ইউনিয়নে সর্বমোট ৭ হাজার ১৯৯ (মাসিক গড় প্রতি ইউনিয়নে ৩.৭৩টি) মামলা আসে। এরমধ্যে ৬ হাজার ৯১৭টি বিরোধ নিষ্পত্তি করা হয়েছে।

নিষ্পত্তিকৃত মামলাসমূহের মধ্যে ৪ হাজার ৭৫১টি মামলা গ্রাম আদালতের মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধান করা সম্ভব হয়েছে এবং অবশিষ্ট ২ হাজার ১৬৬টি মামলা বাতিল, খারিজ, আবেদন ফেরত প্রদান ও উচ্চ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। গ্রাম আদালতের ৪ হাজার ৭৫১ সিদ্ধান্তের মধ্যে ৩ হাজার ৭শ ২৯টি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়েছে। সাড়ে তিন বছরে ৫৭৩টি মামলা জেলা আদালত থেকে গ্রাম আদালতে বিচারের জন্য প্রেরণ করা হয়েছিল।

এছাড়াও গ্রাম আদালতে ২ হাজার ৫৫৩ জন নারী বিচার প্রার্থী হয়েছেন এবং ৯৭৬ জন নারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় বিচারিক প্যানেলে সদস্য ছিলেন। গত সাড়ে তিন বছরে ১৮৫ জন দলিত ও ২৮ জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তি গ্রাম আদালতের সেবা গ্রহণ করেছেন।

এছাড়াও এসব বিচারের মাধ্যমে এ পর্যন্ত ৭৫৬.৮৪ শতাংশ জমি উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে বলে জানায় গ্রাম আদালত সূত্র। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ১ কোটি ৩৯ লক্ষ ৩৮ হাজার পাঁচশত টাকা। এ সময়ে ইউনিয়ন পরিষদসমূহ ৮৮ হাজার ৬৪০ টাকা ফি আদায় করেছে।

স্থানীয় সরকার চট্টগ্রাম অফিস আরো জানায়, চট্টগ্রাম জেলার সকল ইউনিয়নে ১৯১টি গ্রাম আদালত সক্রিয়ভাবে চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যে সকল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সচিবদের গ্রাম আদালত বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহ করা হয়েছে। গ্রাম আদালতের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যন্ত বিচারিক সেবা পৌঁছে দিতে স্থানীয় পর্যায়ে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় ইউনিয়ন পরিষদগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদসমূহ নিয়মিত গ্রাম আদালত পরিচালনা করলে ছোট-খাট অভিযোগগুলো থানায় বা জেলা আদালতে দায়ের করার প্রয়োজন হবে না। এতে করে দেশের মূলধারার বিচারিক আদালতগুলোর মামলার জট অনেকাংশে হ্রাস পাবে।

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 104 People

মন্তব্য দিন :

সম্পর্কিত পোস্ট