চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২১

২৬ ডিসেম্বর, ২০২০ | ৩:৩১ অপরাহ্ণ

সৌমিত্র চক্রবর্তী, সীতাকুণ্ড

সীতাকুণ্ড পৌরসভা: শেষ মুহূর্তে জোর প্রচারণা

আর মাত্র একদিন পরেই সীতাকুণ্ড পৌরসভা নির্বাচন। তাই শেষ মুহূর্তে এসে দিনরাত প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ৭৮ জন মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থী। অন্যদিকে প্রচারণাকালে প্রতিপক্ষ বা ভোটারদের উপর কোনধরনের চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে সরেজমিনে এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন মোবাইল কোর্ট। আর সহকারী রিটার্নিং অফিসার বলছেন যেকোন উপায়ে শতভাগ অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করা হবে। ফলে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে আশাবাদী সাধারণ মানুষ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৮ ডিসেম্বর সীতাকু- পৌরসভার ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। সে হিসেবে হাতে মাত্র একদিন সময়। নিয়ম অনুযায়ী নির্বাচনের ২৪ ঘণ্টা আগে প্রচারণা বন্ধ করে দিতে হয়। সে হিসেবে প্রচারণার সময় নেই বললেই চলে। তাই শেষ মুহূর্তে এসে দিনরাত প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ৭৮ জন মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থী। প্রার্থীরা কখনো মাইকিং, কখনো বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের সাথে মত বিনিময়, ভোট প্রার্থনার মধ্য দিয়ে নিজের প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে এবারের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের কাউন্সিলর প্রার্থী সংখ্যা অনেক বেশি হওয়ায় নিজেরাই নিজেদের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠেছেন। ফলে এক প্রার্থী অন্য প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণ বিধি লঙ্ঘন কিংবা ভয়ভীতি প্রদর্শনের হুমকির অভিযোগ তুলছেন। প্রতিদিনই ভ্রাম্যমাণ আদালত বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে এসব অভিযোগের সত্যতা খুঁজে বেড়াচ্ছেন। গতকাল (শুক্রবার) বিকালেও পৌর এলাকায় আচরণ বিধি লঙ্ঘনের ঘটনা তদন্তে নামেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাশেদুল ইসলাম। তিনি পৌরসভার ৩নম্বর ওয়ার্ড থেকে শুরু করে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলেন। নির্বাচন নিয়ে তাদের মধ্যে কোন ভীতি আছে কিনা তা খোঁজ নেন। বিভিন্ন দেওয়াল পর্যবেক্ষণ করেন। প্রার্থীদের প্রচার গাড়ি লক্ষ্য করেন তাতে কোন সাঁটানো পোস্টার আছে কিনা, এছাড়া ইভিএমে ভোটের ব্যাপারেও ভোটারদের প্রতিক্রিয়া জানতে চেয়ে সবাইকে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যাপারে আশ্বস্ত করেন তিনি।

প্রশাসনের দৃঢ় অবস্থানের কারণে এলাকায় সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। তবে কোন কোন প্রার্থী চোর-ডাকাতদের নিয়ে এসেছে নির্বাচনে প্রভাব খাটানোর জন্য। এ বিষয়গুলোর দিকে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন একটু নজর দিলে এবারের নির্বাচনটি সবার কাছে উদাহরণ হয়ে থাকবে।

সীতাকুণ্ড পৌরসভা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ বলেন, আমরা নির্বাচনের একেবারে চূড়ান্ত পর্যায়ে চলে এসেছি। আমাদের প্রস্তুতিও সম্পন্ন। তিনি বলেন, সরকার ও নির্বাচন কমিশন উভয়েই চান যে একেবারেই সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক। আমরাও সে লক্ষ্যে কাজ করে চলেছি। কোন প্রার্থীরই আচরণ বিধি লঙ্ঘন মেনে নেওয়া হবে না। তাই আমাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত প্রতিদিন সরেজমিনে গিয়ে এলাকায় এ বিষয়ে কাজ করছে।

প্রসঙ্গত, পৌরসভায় মোট ৯টি ওয়ার্ডে ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৭টি। এতে ৯৮টি কক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। পৌর এলাকার পুরুষ ভোটার ১৭৮২৭ জন ও মহিলা ভোটার ১৬৯৮৬ জন। সব মিলিয়ে মোট ভোটার ৩৪৮১৩ জন।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 242 People

সম্পর্কিত পোস্ট