চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

১৯ ডিসেম্বর, ২০২০ | ১:৩১ অপরাহ্ণ

মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন 

আ. লীগে প্রার্থী নিয়ে গলদঘর্ম

আসন্ন পৌর নির্বাচনে দক্ষিণের চার পৌরসভায় দলীয় প্রার্থিতা নিয়ে গলদঘর্ম আওয়ামী লীগের। সম্ভাব্য ২৩ প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রে প্রেরণ করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সুপারিশের আলোকে তালিকা পাঠানো হয়েছে বলে জানান জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক। 

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মফিজুর রহমান পূর্বকোণকে বলেন, তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করে তালিকা প্রস্তুত করেছে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ। সেই তালিকার আলোকে যাচাই-বাছাই করে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নাম কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড দলীয় প্রার্থিতা নির্ধারণ করবে।  দলীয় সূত্রে প্রকাশ, কেন্দ্রীয় কমিটিতে তালিকা জমা দেয়ার পর সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ এখন ঢাকামুখী। ধর্ণা দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের দ্বারে দ্বারে। ঢাকায় অবস্থান করে জোর লবিং শুরু করেছেন।  দলীয় সূত্রে প্রকাশ, পটিয়া পৌরসভায় চারজন, সাতকানিয়ায় তিনজন, চন্দনাইশে ৭ জন ও বাঁশখালী নয় জনের নাম কেন্দ্রীয় কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।  পটিয়া পৌরসভা থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় চার জনের নাম পাঠানো হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুনুর রশীদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আইয়ুব বাবুল, দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সভাপতি আ ম ম টিপু সুলতান চৌধুরী ও পৌর আ. লীগ যুগ্ম সম্পাদক সরওয়ার হায়দার। সাতকানিয়া পৌরসভায় তিন জনের নাম পাঠানো হয়। তারমধ্যে রয়েছে বর্তমান মেয়র ও দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মো. জোবায়ের, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক গোলাম ফারুক ডলার, সাতকানিয়া উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদ সভাপতি শফিকুল ইসলাম। চন্দনাইশ ও বাঁশখালী পৌরসভায় প্রার্থিতা নিয়ে বেগ পেতে হচ্ছে আওয়ামী লীগকে। দলীয় কোন্দলের কারণে প্রার্থী-জট লেগে রয়েছে। বাঁশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ চার ভাগে বিভক্ত। এরমধ্যে রয়েছে আবার উপদলীয় কোন্দল। অভ্যন্তরীণ কোন্দল তীব্র আকার ধারণ করেছে। এতে সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকাও দীর্ঘ হয়েছে। এই দুই উপজেলার প্রার্থিতা নিয়ে লুকোচুরি খেলছে জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ।

বিজ্ঞাপন

চন্দনাইশ পৌরসভায় সম্ভাব্য প্রার্থিতার তালিকায় রয়েছে ৭ জন। এরমধ্যে রয়েছে উপজেলা আ. লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান চৌধুরী, মক্কা আওয়ামী ফাউন্ডেশনের সভাপতি এম মোজাম্মেল হক, বর্তমান মেয়র মাহাবুবুল আলম খোকা, মদিনা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম রহমানী, গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি শেখ টিপু চৌধুরী ও উপজেলা আ. লীগের সদস্য শাহাদাত নবী খোকা।

চার পৌরসভার মধ্যে বাঁশখালীর তালিকা দীর্ঘ। এরমধ্যে বেশির ভাগই নতুন মুখ। তালিকা থেকে বর্তমান মেয়র সেলিমুল হক চৌধুরী নাম ছিটকে পড়েছে। তালিকায় রয়েছেন পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও বাঁশখালী আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এসএম তোফায়েল বিন হোছাইন, শ্যামল দাশ, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মৌলভী নুর হোসেন, সাবেক মেয়র শেখ ফখরু উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রেহানা আক্তার কাজেমী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মোহামুদুল ইসলাম। আওয়ামী লীগ নেতা আক্তার হোসেন, উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক এম মনসুর আলী, পৌরসভা যুবলীগের আহ্বায়ক হামিদ উল্লাহ হামিদ। তবে আওয়ামী লীগের তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন বর্তমান মেয়র ও বাঁশখালী পৌরসভার আ. লীগের আহ্বায়ক শেখ সেলিমুল হক চৌধুরী। মুক্তিযোদ্ধাদের সমাবেশে হামলা চালানোর অভিযোগ থাকায় বর্তমান মেয়র সেলিমুল হকের নাম বাদ দেওয়া হয়েছে বলে জানান জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 169 People

মন্তব্য দিন :

সম্পর্কিত পোস্ট