চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

২৬ নভেম্বর, ২০২০ | ১:৩৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম এখন শ্রীহীন নগর

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন চট্টগ্রাম নগরীকে নান্দনিক ও পরিবেশবান্ধব করে গড়ে তুলতে সকল সেবা সংস্থাকে সমন্বিত উদ্যোগে উন্নয়ন কাজ পরিচালনার আহ্বান জানিয়েছেন। দখল, দূষণ, জলাবদ্ধতা, যানজট, অবৈধভাবে পাহাড় কাটার কারণে পরিণত হয়েছে। কর্পোরেশনের টাইগার পাস বাটালি হিলের অস্থায়ী অফিসের কনফারেন্স রুমে নগরীর সকল সেবাসংস্থার সাথে চসিকের সমন্বয় সভায় সভাপতির বক্তব্যে গতকাল সকালে তিনি একথা বলেন।

তিনি চট্টগ্রাম থেকে ঘুনধুম হয়ে মিয়ানমার দিয়ে চীনের কুনমিং পর্যন্ত রেল লাইনের সম্প্রসারণ কাজ সম্পন্ন ও ভারতের সেভেন সিস্টার, নেপাল, ভুটান, তিব্বত ও আরো কিছু দেশ সংযুক্ত হয়ে মহেশখালীর মাতারবাড়িতে গভীর সমুদ্র বন্দর স্থাপিত ও বে-টার্মিনালের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে আগামী ১০ বছরের মধ্যে সম্পন্ন হলে চট্টগ্রাম শহর রিজিওন্যাল কানেকটিভিটির কেন্দ্রে পরিণত হবে। কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হকের সঞ্চালনায় সভায় চউক চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ, চট্টগ্রাম ওয়াসার এমডি প্রকৌশলী এ কে এম ফলুল্লাহ, স্থানীয় সরকার কমিশনের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন, কর্পোরেশনের সচিব মুহাম্মদ আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মো. মুফিদুল আলম, কেজিডিসিএল’র মহা-ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মো. সরওয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল সোহেল আহমেদ, আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা আফিয়া আকতার, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. ইমাম হোসেন, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (ট্রাফিক) এর উপ-পরিচালক জয়নুল আবেদীন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ডা. মো. শফিকুল ইসলাম, সড়ক ও জনপথের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. হাফিজুর রহমান, পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক মোহাম্মদ নুরুল্লাহ নুরী, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শিবেন্দু খাস্তগীর, গণপূর্তের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ওম প্রকাশ নন্দী, বিআরটি এর চট্টগ্রাম ডিভিশনের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনায় নগরীর যানজট, বিদ্যুৎ, পানি, জলাবদ্ধতা, স্যুয়ারেজ, অবৈধ পাহাড় কাটা, কর্ণফুলীর দূষণ, বিমানবন্দর সড়কে যত্রতত্র কন্টেইনার ইয়ার্ড গড়ে উঠা, নগরে বাস-ট্রাক টার্মিনাল না থাকার কথা উঠে আসে। অনেক আলোচক তাদের আলোচনায় এসব সমস্যা থেকে কিভাবে উত্তরণ সম্ভব তা নিয়ে বক্তব্য রাখেন।

চউক চেয়ারম্যান এম জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, আমরা অতীতের সব দূরত্ব ঘুচিয়ে সব শ্রেণি পেশার মানুষের মতামতের ভিত্তিতে আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছি। জলাবদ্ধতার মেগা প্রকল্পের পাশাপাশি আউটার রিং রোডের কাজ সম্পন্ন করা হলো। কবি নজরুল ইসলাম রোড থেকে সদরঘাট পর্যন্ত সড়ক ৬০ ফুট প্রশস্ত করা হয়েছে। কোথাও ৬০ ফুট না থাকলে প্ল্যানও দেয়া হচ্ছে না।

ওয়াসার এমডি প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল্লাহ বলেন, নগরীবাসী আমাদের ভুল বুঝে সড়ক কাটার কারণে। পানি সরবরাহ বৃদ্ধির জন্য আমরা সড়ক কাটছি। ২০০৯ সালে নগরে পানি সরবরাহ হতো ১২ কোটি লিটার। রাঙ্গুনিয়ার পোমরায় শেখ হাসিনা পানি শোধনাগর প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে সুপেয় পানির সংকট থাকবেনা জানিয়ে বলেন, বর্তমানে এই প্রকল্প থেকে ৩৬ কোটি লিটার পানি উৎপাদিত হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপ-পরিচালক ডা. মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের ফলে এখন সংক্রমণ বেড়েছে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাড়া হাইফ্লো অক্সিজেন সাপ্লায়ের ব্যবস্থা ব্যবস্থা কোথাও নেই। লক্ষণ দেখা গেলে দ্রুত পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে করোনা কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার পরামর্শ দেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শিবেন্দু খাস্তগীর বলেন, আমরা জলাবদ্ধতা নিরসনে ২৯টি খালের সীমানা প্রাচীরের কাজ সম্পন্ন করেছি।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. ইমাম হোসেন বলেন, ধারাবাহিকভাবে সব বৈদ্যুতিক মিটার প্রিপেইড করা হবে। গ্রাহক চাইলে নিজ খরছে প্রিপেইড মিটার লাগাতে পারবেন। এতে ভোগান্তি ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ও হবে।

কেজিডিসিএল এর মহা-ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মো. সরওয়ার হোসেন বলেন, নগরীতে ১ লক্ষ  ৪০ হাজার প্রিপেইড মিটার লাগানো হবে বলে জানান।-বিজ্ঞপ্তি

পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 125 People

সম্পর্কিত পোস্ট