চট্টগ্রাম বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সর্বশেষ:

৩০ মে, ২০১৯ | ২:০৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, রামগড়

পৌর কাউন্সিলরের বাড়ি তল্লাশি

রামগড়ে ভারতীয় শাড়ি ও আতশবাজি আটক

খাগড়াছড়ির রামগড়ে সীমান্তবর্তী এলাকায় একটি গোপন গোডাউন থেকে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় শাড়ি ও আতশবাজি আটক করেছে বর্ডার গার্ড বিজিবি। গত মঙ্গলবার ভোররাতে ৪৩ ব্যাটালিয়নের বিজিবি বিশেষ অভিযান চালিয়ে এসব মালামাল আটক করে। এদিকে আটক ভারতীয় মালামালের সাথে সম্পৃক্ততার সন্দেহে বিজিবি ও পুলিশ মঙ্গলবার সকালে রামগড় পৌরসভার এক কাউন্সিলরের বাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালিয়েছে। এ সময় ওই বাড়ি থেকে ভারতীয় মদ ও ইয়াবা সেবনের সরঞ্জাম উদ্ধার করে যৌথবাহিনী। রামগড়স্থ ৪৩ বিজিবি’র উপ অধিনায়ক মেজর হুমায়ুন কবির এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে রামগড় পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের সীমান্তবর্তী মন্দিরঘাট নামক এলাকায় একটি গোপন গোডাউনে তল্লাশি চালায় বিজিবি। গোপনসূত্রে খবর পেয়ে বিজিবি হানা দেয় ওই গোডাউনে। অভিযানে ৪৩ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. তারিকুল হাকিম পিএসসি নেতৃত্ব দেন। তালাবদ্ধ ওই গোডাউন খুলে পাওয়া যায় ভারতীয় শাড়ির ১৩টি গাউট ও ১০ কার্টুন আতশবাজি। গোডাউনের মালিক তোতা মিয়া জানান, ঘরটি স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মো. দেলোযার হোসেনের ভাই আনোয়ার হোসেন ভাড়া নিয়েছেন। আটক মালামালগুলো ওই ভাড়াটিয়ার বলে জানান তিনি। বিজিবি জানায়, সীমান্তের ওপারের ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরার সাব্রুম থেকে এসব মালামাল পাচার করে এনে ওই গোডাউনে রাখা হয়। সময় সুযোগ বুঝে এগুলো সমতল জেলায় পাচার করা হত। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গত ১০-১২ আগেও এখান থেকে এক ট্রাক ভারতীয় শাড়ি সমতল জেলায় পাচার করা হয়। তারা জানান, ভারতীয় শাড়ি, বিভিন্ন মাদকদ্রব্য ও গরু পাচারের ট্রানজিট পয়েন্ট এখন মন্দিরঘাট, বল্টুমরাম টিলা, কাশিবাড়ি ও লাচারিপাড়া সীমান্ত এলাকা।
এদিকে, গোপন গোডাউন থেকে আটক ভারতীয় শাড়ি ও আতশবাজির সাথে সম্পৃক্ততার সন্দেহে বিজিবি ও পুলিশ মঙ্গলবার সকালে পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. দেলোয়ার হোসেনের বল্টুরামটিলাস্থ বাড়িতে যৌথ অভিযান চালায়। বাড়িঘর তল্লাশি করে ভারতীয় মদ, ইয়াবা সেবনের সরঞ্জাম ও একটি খেলনা রাইফেল জব্দ করে যৌথবাহিনী। মন্দিরঘাটের গাপন গোডাউন থেকে মালামাল আটকের পরই বিজিবি ওই কাউন্সিলরের বাড়ি ঘেরাও করে রাখে। পরে সকালে যৌথ তল্লাশি চালানো হয়। এ সময় কাউন্সিলর দেলোয়ার হোসেন বাড়িতেই ছিলেন। এ ব্যাপারে তিনি দাবি করেন, আটক ভারতীয় শাড়ি ও আতশবাজির সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা নেই। তিনি বলেন, তার বাড়ি তল্লাশি ‘ষড়যন্ত্রমূলক’।
বিজিবির ৪৩ ব্যাটালিয়নের উপ অধিনায়ক মেজর হুমায়ুন কবির বলেন, গোপন সূত্রে খবর পেয়েই তারা এ অভিযান চালিয়েছেন। আটককৃত শাড়ি ও আতশবাজির সংখ্যা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জব্দ তালিকা তৈরির কাজ শেষ হলে পরে তা জানানো হবে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 279 People

সম্পর্কিত পোস্ট