চট্টগ্রাম বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সর্বশেষ:

রাউজানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ধ্বংস করা পণ্য

২৯ মে, ২০১৯ | ১১:১২ অপরাহ্ণ

রাউজান সংবাদদাতা

রাউজানে ভ্রাম্যমান আদালতের তিন অভিযান

কসাই- গরুর মালিককে কারাদণ্ড, মিষ্টির দোকানদারকে জরিমানা

রাউজানের নোয়াপাড়া পথেরহাটে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে নকল ব্র্যান্ডের বিপুল পরিমাণ ধ্বংস করা হয়েছে। আজ বুধবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে নোয়াপাড়া পথেরহাটের পূর্ব পাশে এস.এম শপিং সেন্টারের কুকনি ঘি’র গোডাউনে এ অভিযান চালানো হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও রাউজান উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) এহসান মুরাদ।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পরিচালিত এ অভিযানে কোম্পানির সেলস্ কর্মকর্তা পরিচয়ধারী দীপন দাশ ও সঞ্জীব দাশ নামের দুইজনকে আটক করা হয়। এ সময় বিপুল পরিমাণ নকল ঘি ধ্বংস করা হয়।

এদিকে, একই অভিযান পরিচালনাকালে পথেরহাটে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি তৈরি ও বিক্রির দায়ে প্রদীপ মিষ্টি ভান্ডারের প্রদীপ ঘোষের স্ত্রী পম্পি ঘোষকে ৩০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। এছাড়া পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার আগে দোকান না খোলার পরামর্শ দেয়া হয়।

অন্যদিকে, রাউজানে গর্ভবতী রোগাক্রান্ত গরু জবাই করার দায়ে দুইজন ও হালদা নদী থেকে বালু তোলায় একজনকে অর্থদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে রোগাক্রান্ত গরুর মাংস প্রস্তুতকালে গরুর মালিক ও কসাইকে আটক করে উভয়কে একমাস করে কারাদণ্ড দেয়া হয়। দণ্ডাদেশ প্রাপ্তরা হলেন গরুর মালিক রাউজান সদর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম রাউজানের পালপাড়া গ্রামের মৃত কৃষপদ পালের পুত্র বিশ্বজিৎ পাল ও কসাই ডাবুয়া ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের মৃত বোচক আহমদের পুত্র মোহাম্মদ দুলাল। গতকাল বুধবার দুপুর ১২টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জোনায়েদ কবির সোহাগের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত এই দন্ডাদেশ প্রদান করেন।
এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জোনায়েদ কবির সোহাগ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাউজানের পালপাড়া গ্রাম সংলগ্ন বিলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে অভিযান পরিচালনা করি। অভিযানে একটি রোগাক্রান্ত গাভীকে জবাই করা অবস্থায় জব্দ করা হয়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় জবাইকৃত গাভীটিকে মাটিতে গর্ত করে পুঁতে ফেলা হয়। এ সময় গরুটির মালিক ও কসাইকে আটক করে একমাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।
এই বিষয়ে গরুর মালিক বিশ্বজিৎ পাল বলেন, ‘দেড়মাসের গাভীটি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃতপ্রায় হয়ে যায়। আমি প্রতিবেশী কয়েকজনের পরামর্শে কসাই ডেকে ৮০ হাজার টাকার গরু ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিই। পরে প্রশাসনের লোক এসে আমাকে আটক করে উপজেলায় নিয়ে আসে।’
এদিকে, হালদা নদী হতে নৌকা দিয়ে বালু উত্তোলনের দায়ে পৌরসভা ২ নম্বর ওয়ার্ডের বালক শাহার বাড়ির মোহাম্মদ কবিরের পুত্র মোহাম্মদ ইলিয়াছকেও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডাদেশ প্রদান করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জোনায়েদ কবির সোহাগ।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 435 People

সম্পর্কিত পোস্ট