চট্টগ্রাম সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ | ১০:২৬ অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক

কমপক্ষে ১৪ দিন সাগরে থাকতে হবে চীন থেকে আসা জাহাজকে

চীন ছেড়ে আসা জাহাজকে কমপক্ষে ১৪ থেকে ২১ দিন চট্টগ্রাম বন্দরের বহিঃনোঙরে অপেক্ষায় থাকতে হবে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসরণ করার প্রেক্ষিতে নির্দ্দিষ্ট সময় পর্যন্ত জাহাজকে অপেক্ষায় রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। এরপরই খালাস করা হবে আনীত পণ্য।  আজ বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত বার্থিং সভায় বন্দর কর্তৃপক্ষ এ ঘোষণা দেন।

চট্টগ্রাম বন্দর ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় জানানো হয়, চীনের কোন বন্দর থেকে ছেড়ে আসা জাহাজ যতদিনে জাহাজ পৌঁছুক না কেন, ছেড়ে আসার পর ২১ দিন পার হলে জেটিতে পণ্য খালাস করতে হবে। বার্থিং সভায় শিপিং এজেন্ট প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ব্যবস্থা গ্রহণেরও কথা জানানো হয়। তবে এ ব্যাপারে বন্দর প্রশাসন কোন সার্কুলার দেয়নি। শিপিং এজেন্ট প্রতিনিধিরা বন্দরকে এ সংক্রান্তে সুস্পষ্ট সার্কুলার জারি করার জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে আহ্বান জানান।

বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব ওমর ফারুক জানান, মৌখিকভাবে বার্থিং সভায় তা জানানো হয়েছে। তবে তা চীনের বন্দর থেকে যাত্রা শুরুর ১৪ দিন অতিক্রান্ত হওয়ার পর পণ্য খালাসের কথা জানানো হয়েছে। তবে সে রকম কোনো সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি বলেও উল্লেখ করেন তিনি। বন্দর কর্তৃপক্ষ এরমধ্যেই সতকর্তামূলক ব্যবস্থা হিসেবে বেশকিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

স্থানীয় এজেন্টকে সব বাণিজ্যিক জাহাজ বহির্নোঙরে পর এর ‘মাস্টার ও সব নাবিক করোনাভাইরাসমুক্ত’ থাকার বিষয়টি ডিক্লারেশনের সাথে সংযোজন করতে হয়। আর চীন থেকে আসা সব জাহাজের নাবিকদের স্বাস্থ্য বহির্নোঙরে পরীক্ষা করা হয়।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, প্রতি মাসে চট্টগ্রাম বন্দর এবং বন্দরের বহিঃনোঙ্গরে কয়েকশ বিদেশি জাহাজ অবস্থান করে। প্রতিটি জাহাজে ৩০ থেকে ৪০ জনের বেশি নাবিক এবং ক্রু থাকে। যে কারণে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস ছড়ানোর ক্ষেত্রে বন্দরও ঝুঁকির মধ্যে পড়তে পারে। আর তাই বিশেষ ব্যবস্থা বলে জানান বন্দর কর্মকর্তারা।

 

 

পূর্বকোণ/এস-আরপি

The Post Viewed By: 248 People

সম্পর্কিত পোস্ট