চট্টগ্রাম সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ | ১১:১৮ পূর্বাহ্ন

রাউজান সংবাদদাতা

র‌্যাগিংয়ের সময় ৬ জুনিয়ার ছাত্রকে হাতেনাতে আটক

চুয়েটে ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েটে) র‌্যাগিংয়ের সময় ৬ জুনিয়র ছাত্রকে হাতেনাতে আটককে কেন্দ্র করে আন্দোলনে নেমেছে শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত আড়াইটা থেকে ক্যাম্পাসে শত শত ছাত্র বিক্ষোভ সমাবেশ, অবস্থান নেয়ার পর গতকাল ভোর ৫টা থেকে চুয়েটের মূল ক্যাম্পাসহ বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে তালাবদ্ধ করে অবরুদ্ধ করেছে।

ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের পদত্যাগের দাবিতে প্রায় চারঘন্টা পর তালা খুলে দিলেও এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা চুয়েটের গোল চত্বরসহ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল অব্যাহত রেখেছে। এদিকে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন শাখা অফিসে তালাবদ্ধ করে সুপার গ্লু লাগিয়ে দিয়েছে, বেশকিছু শিক্ষকের নেইম প্লেইড ভেঙ্গে ফেলেছে।

এ প্রসঙ্গে ছাত্রকল্যাণ পরিচালক প্রফেসর ড. মশিউল হক বলেন ‘বুধবার রাতে নবাগত (জুনিয়র) ১৯ ব্যাচের ১২-১৩ জন ছাত্র চুয়েটের ক্যাম্পাসের অদূরে কাটা পাহাড় এলাকায় র‌্যাগিং করছিল। এসময় ডেপুটি ডিএসডাব্লউ দুইজন, একজন হলের প্রভোষ্টসহ চারজন এবং চুয়েট পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশের অভিযানে ৬জন ছাত্রকে আটক করা হয়। বাকীদের ধরা সম্ভব হয়নি। আটক ছাত্রদের উদ্ধার করে নিয়ে এসে ধমক দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। তারপরও তারা রাত (বুধবার দিবাগত রাত) আড়াইটা থেকে জুনিয়র-সিনিয়র ছাত্ররা স্লোগাণ, মিছিল, শিক্ষকদের গালমন্দ অব্যাহত রাখে। আজ (গতকাল বৃহস্পতিবার) ভোর ৫টা থেকে ছাত্ররা চুয়েটের মূল গেইট এবং একাডেমিক হলগুলোতে তালা লাগিয়ে দেয়। আমার মনে হয় তারা র‌্যাগিংয়ের অপরাধে শাস্তি পাবে-এটাকে প্রভাবিত করার জন্য এইসব বিক্ষোভ ও তালা লাগিয়ে দেয়ার মতো তাণ্ডব রচনা করছে।’

তিনি আরো বলেন ‘র‌্যাগিংয়ের বিরুদ্ধে জাতীয়ভাবে কড়াকড়ি অবস্থান আছে এবং সুপ্রিম কোর্টের রায় আছে। এসব নিয়ে বুধবার দুপুরে এক সভাও হয়েছিল। ছাত্ররা সেখানে উপস্থিতও ছিল। তারপরও তারা র‌্যাগিংয়ে জড়িত হয়।’

চুয়েটের বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায়, ছাত্রকল্যাণ পরিচালক প্রফেসর ড. মশিউল হকের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ভোর সকাল থেকে জুনিয়র ও সিনিয়র শত শত শিক্ষার্থী চুয়েটের মুল ফটকে এবং ক্যাম্পাসের বিভিন্ন বিভাগে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে বিভিন্ন বিভাগের দরজায় সুপার গ্লু এবং শিক্ষকদের নেইম প্লেইড ভেঙ্গে ফেলে। সকাল সোয়া ৯টার দিকে চুয়েটের মূল ফটক এবং বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টের তালা খুলে দেয়া হলে শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেন। এর আগে তারা ক্যাম্পাসে ঢুকতে পারেনি। তবে তালা খুলে দেয়া হলেও সকাল দশটায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিক্ষুব্দ ছাত্ররা ক্যাম্পাসের ভিতর রাস্তায় অবস্থান করে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে।

 

 

পূর্বকোণ/পিআর

The Post Viewed By: 69 People

সম্পর্কিত পোস্ট