চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

২৯ জানুয়ারী, ২০২০ | ৪:৫০ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা, রাউজান

রাউজানে যাত্রীবাহী বাস উল্টে খাদে, নিহত ২

পাহাড়তলীতে দুর্ঘটনা চুয়েটের দুই শিক্ষকসহ আহত ৩০ তিনঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ, ভোগান্তি

চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের রাউজান পাহাড়তলীতে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে দুইজন নিহত এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষকসহ ২৫-৩০ জন আহত হয়েছে। দুর্ঘটনার পর বাসটি উদ্ধারকালে জনজটের কারণে সড়কের দুই পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। এতে তিনঘণ্টাব্যাপী যান চলাচল বন্ধ থাকে। ফলে হাজার হাজার যাত্রীকে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়।

গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে পাহাড়তলী চৌমুহনী বাজারের পশ্চিম পাশে পিংক সিটি-২’র পূর্বে কালাব্রিজ এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন বাসের হেলপার মো. ইমাম হোসেন ও যাত্রী জাহান আরা বেগম (৫৫)। বাসের হেলপার ইমাম হোসেন চন্দ্রঘোনার লিচুবাগান এলাকার চৌধুরী গোট্টা এলাকার মৃত আবুল কাশেমের পুত্র। তিনি কদমতলী ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বনগ্রাম এলাকায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে ভাড়া বাসায় থাকতেন। নিহত জাহান আরা বেগম রাঙ্গুনিয়া উপজেলার শিলক ইউনিয়নের ৯নম্বর ওয়ার্ডের বদিউর রহমান তালুকদার বাড়ির বিজিবির অবসরপ্রাপ্ত জওয়ান আব্দুল মালেকের স্ত্রী। তার বাবার বাড়ি রাঙ্গুনিয়ার ১০নম্বর পদুয়া ইউনিয়নের সুখ বিলাস এলাকায়। আহতদের মধ্যে দুই জনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন, চুয়েটের মেকানিক্যাল বিভাগের শিক্ষক মোহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক ও পিএমই বিভাগের শিক্ষক নাদিয়া। তারাসহ অপরাপর অজ্ঞাত আহত নারী-পুরুষকে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ, স্থানীয় জনতা এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার সকাল ১০টার পর চট্টগ্রাম শহরের বহদ্দারহাট বাস টার্মিনাল থেকে ‘আল্লার দান’ পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (চট্টগ্রাম-জ-৬০) চন্দ্রঘোনার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। বেলা ১১টার দিকে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের রাউজান পাহাড়তলী ইউনিয়নের পাহাড়তলী চৌমুহনী বাজারের পশ্চিম পাশে পিংক সিটি-২’র পূর্বে কালাব্রিজ এলাকায় পৌঁছলে বাসটির সামনের চাকা (পাংচার) হয়ে যায়। একারণে দ্রুত গতিতে থাকা বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের উত্তর পাশে খাদে পড়ে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই নারীসহ দুইজন নিহত হন। আহত হয় চুয়েটের দুই শিক্ষকসহ অনেক যাত্রী (স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশের ধারণা প্রায় ২৫-৩০ জন)। দুর্ঘটনাস্থল থেকে চুয়েটের কয়েকটি এবং রাউজান তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের এম্বুলেন্স আহত যাত্রীদের নিয়ে তাৎক্ষণিক উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে যায়। বাসটি ভেঙেচুড়ে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেছে।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে উদ্ধারকাজে নেমে পড়ে থানা পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। দুপুর দেড়টার দিকে ক্রেনের সাহায্যে খাদ থেকে বাসটি উদ্ধার করা হলে প্রায় তিন ঘণ্টা পর যানজটমুক্ত হয় সড়ক। রাউজান থানা ওসি কেপায়েত উল্লাহ, উপ পরিদর্শক আমজান হোসেন ও নোয়াপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ মো. আরমান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে নোয়াপাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে আসেন। এ প্রসঙ্গে ওসি কেপায়েত উল্লাহ বলেন ‘নিহতদের পরিবারের সদস্যদের কোনো অভিযোগ না থাকায় তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ ময়না তদন্ত ছাড়াই তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাসটিকে আটক রাখা হয়েছে।’

The Post Viewed By: 115 People

সম্পর্কিত পোস্ট