চট্টগ্রাম বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

সর্বশেষ:

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নিরাপদ ফসল উৎপাদনে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ

ধান বাংলাদেশের প্রধান ফসল। সবজি অন্যতম ফসল। দেশে ৮৯ প্রকারের শাক-সবজি চাষ হয়ে থাকে। দিন দিন ফসলি জমি কমে আসলেও বাড়ছে ধান ও সবজির চাষাবাদ। কিন্তু ধান ও সবজি উৎপাদননে খরচও দিন দিন বেড়েই চলছে। এর প্রধান কারণ হচ্ছে, বিভিন্ন কৃষি উপকরণের মূল্যবৃদ্ধি, নতুন নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন, রাসায়নিক সারের মূল্যবৃদ্ধিই প্রধান কারণ। ধান ও সবজি উৎপাদনে যেমন ব্যয় বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে বিষের ব্যবহারও। এতে অনিরাপদ হয়ে পড়ছে উৎপাদনক্ষেত্র। তাই নিরাপদ ফসল উৎপাদনে আবিষ্কার করা হয়েছে ‘ফেরোমন ফাঁদ’। যাকে যাদুর বাক্সও বলা হয়।
কৃষি বিভাগ জানায়, কৃষকরা বেগুন, মিষ্টিকুমড়া, শিম, লাউ, বাঁধাকপি, ফুলকপি, মূলা, টমেটোর ক্ষেত্রে রাসায়নিক সার বেশি প্রয়োগ করে থাকেন। পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষায় কীটনাশকের ব্যবহার করা হয়। পোকা দমনের জন্য কৃষক বিষ প্রয়োগ করে থাকেন। এই অধিক কীটনাশক প্রয়োগ থেকে বাঁচার একটা উপায় হলো ‘সেক্স ফেরোমন ফাঁদ’। এতে কৃষকের কীটনাশক ক্রয়ের খরচ সাশ্রয় হবে এবং বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন হবে। বিষের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে মুক্তি পাবে ভোক্তারা।
চলতি মৌসুমে এক লাখ ১০ হাজার সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহারের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে বলে জানান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. গিয়াস উদ্দিন।
কৃষি-সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, সেক্স ফেরোমন ফাঁদ হলো একটা জৈব রাসায়নিক উপাদান। এই ফাঁদ ব্যবহারের উপকার হলো তা প্রাকৃতিকভাবে তৈরিকৃত রাসায়নিক থেকে নেওয়া। পরিবেশের জন্য নিরাপদ।
কীভাবে ফাঁদ তৈরি করা হয় :
একটি ফেরোমন লিউর ধারণকারী প্লাস্টিক টিউব ও স্থানীয়ভাবে তৈরি একটি ২২ সেন্টিমিটার উচ্চতার প্লাস্টিক বয়াম থাকে। যাতে সাবান মিশ্রিত পানি ব্যবহার করা হয়। ৩-৪ সেন্টিমিটার উচ্চতার সাবান মিশ্রিত পানি বয়ামের তলদেশে পুরুতে রাখতে হয়। ফসল রোপণের ৩-৪ সপ্তাহ পর ফসলের ঠিক ১০-১২ সেন্টিমিটার ওপরে সেট করতে হয়। ফসল না তোলা পর্যন্ত জমিতে রাখতে হয়। এই ফাঁদে পুরুষ পোকা স্ত্রীপোকার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে ফাঁদে পা দেয়। পরে মাথা ঘুরিয়ে সাবান পানিতে পড়ে মারা যায়। এর ফলে পোকার বংশবৃদ্ধির লক্ষ্যে স্ত্রীপোকার সঙ্গে মিলন ঘটানোর জন্য প্রকৃতিতে পুরুষপোকার সংখ্যা কমে যায়। ফলে ক্ষতিকর পোকার বংশবৃদ্ধি করতে পারে না।
কৃষি বিভাগ জানায়, এক একর জমিতে সর্বোচ্চ ৪০টি ফাঁদের প্রয়োজন হয়। বেগুন, বাঁধাকপি, ফুলকপি, মিষ্টিকুমড়া, লাউ, ঝিঙ্গা, চিচিঙ্গা, চালকুমড়া, শসা, শিম, তুলা, বরবটি, টমেটো ইত্যাদি ফসলে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ বেশি ব্যবহার করা যায়। তবে ফসলের ধারণ অনুসারে টিউব ব্যবহার করতে হয়। পরিবেশবান্ধব পোকা দমন পদ্ধতি বলে মনে করেন কৃষক ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।
খাদ্য-শস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন স্বয়ংসম্পূর্ণ। বিশ্বে সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ তৃতীয় স্থানে রয়েছে। ‘সেক্স ফেরোমন ফাঁদ’ বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনের এক যুগান্তকারী পদ্ধতি। গুণগতমানের ফসল উৎপাদনে এই ফাঁদ যুগোপযোগী ও কার্যকরী পদক্ষেপ। কৃষকে এই ফাঁদ ব্যবহার করলে অনেকটা বিষমুক্ত ফসল পাবে ভোক্তারা।

লেখক ঁ নিজস্ব প্রতিবেদক

The Post Viewed By: 10 People

সম্পর্কিত পোস্ট