চট্টগ্রাম রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

করোনার মধ্যেই হানা দিতে পারে ঘূর্ণিঝড়!

১৪ এপ্রিল, ২০২০ | ৯:০২ অপরাহ্ণ

আবহাওয়া ডেস্ক

করোনার মধ্যেই হানা দিতে পারে ঘূর্ণিঝড়!

নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে নিস্তেজ পুরো বিশ্ব। মারণঘাতী এই ভাইরাসের প্রভাব পড়েছে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশেও। এরই মধ্যে দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে দাঁড়িয়েছে ১০১২ জনে। আর মারা গেছে ৪৬ জন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সারাদেশে বন্ধ রয়েছে অফিস-আদালত, পরিবহন, দোকানপাট। বলা যায়, অঘোষিত লকডাউন চলছে দেশব্যাপী। এমন অবস্থায় দেশে এবার তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কাও।

আবহাওয়া অফিস বলছে, ঘূর্ণিঝড় হতে পারে চলতি মাসের শেষে। সেই সঙ্গে হয়ে যেতে পারে বেশ কয়েকটি কালবৈশাখী ঝড়। তাপপ্রবাহের কারণে আকাশে মেঘমালা তৈরি হচ্ছে। আর এই মেঘমালা থেকেই নিম্নচাপের সৃষ্টি হয়। নিম্নচাপ শক্তিশালী হলেই হবে ঘূর্ণিঝড়।  চলতি মাসে এমন ঝড়েরই আশঙ্কা করছেন আবহাওয়াবিদরা।

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাস শঙ্কা তৈরি করেছে উপকূলের মানুষের জীবনে। দেশে দুই কোটির বেশি মানুষ উপকূলীয় এলাকায় বসবাস করে। এদের বেশিরভাগ ঘূর্ণিঝড়ের সময় স্থানীয় সাইক্লোন শেল্টারে অবস্থান নেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনা মহামারির এই সময়ে ঘূর্ণিঝড় হলে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়বে উপকূলের সাধারণ মানুষ। অথচ করোনা প্রতিরোধের অন্যতম শর্ত হচ্ছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। এই সময়ে যদি ঘূর্ণিঝড় হয় তাহলে আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে উপকূলবাসীর জন্য স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি সরকারের পক্ষ থেকে নিতে হবে ব্যাপক উদ্যোগ।

বিশ্বব্যাপী করোনা মোকাবিলার প্রধান শর্ত হচ্ছে- সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। কিন্তু ঘূর্ণিঝড় হলে সাইক্লোন শেল্টারে সেই দূরত্ব মেনে চলা কঠিন হবে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে আগে যেভাবে লোক রাখা হতো এখন তা সম্ভব হবে না। স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি মাথায় রেখে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে আশ্রয়কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়ানো উচিত বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

এমনিতে আগের চেয়ে দেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বেশ ভালো। সবশেষ দুটি ঘূর্ণিঝড়ে উপকূল থেকে প্রায় সব মানুষ নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া গেছে। কিন্তু এখন ঘূর্ণিঝড় হলে আগের ব্যবস্থাপনার সঙ্গে করোনার বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে।

ঘূর্ণিঝড়ের বিষয়ে আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, চলতি মাসে স্বাভাবিক ঝড়বৃষ্টির পাশাপাশি একটি ঘূর্ণিঝড় হতে পারে। এ সময় সাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ নিম্নচাপে পরিণত হয়। সেটি বেশি শক্তিশালী হলে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়। তবে অনেক সময় আবার ঝড়ে রূপ নেওয়ার আগেই দুর্বল হয়ে যায়।

আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাসে বলা হয়, স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে চলতি মাসে। এ মাসেই এক থেকে দুটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে বঙ্গোপসাগরে। এরমধ্যে যেকোনো একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে বলেও জানানো হয় আবহাওয়ার পূর্বাভাসে।

 

 

 

 

পূর্বকোণ/আরপি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
The Post Viewed By: 1192 People

সম্পর্কিত পোস্ট