চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০

সর্বশেষ:

পর্ব-১২ঃ ফিলিপাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস

২১ জুন, ২০২০ | ১২:৪১ অপরাহ্ণ

মো. ফারুক ইসলাম

পর্ব-১২ঃ ফিলিপাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস

ফিলিপাইন বিশ্বদ্যিালয় সম্পর্কে আমার তেমন ধারণা নেই বললেই চলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইটে ঢুকে যেটুকু ইতিহাস পেয়েছি তা সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরার চেষ্টা করছি। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস অনেক পুরোনো। বর্তমান আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর হওয়ার পেছনে রয়েছে সুর্দীঘ ইতিহাস। জানা যায়, ১৯০৮ সালে ফিলিপাইনের আইনসভায় ১৮নং আইন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ফিলিপাইন বিশ্ববিদ্যালয় (ইউপি)। সাহিত্য, দর্শন, বিজ্ঞান এবং কলা বিষয়ে উন্নত নির্দেশনা এবং প্রতিটি যোগ্য শিক্ষার্থীকে বয়স নির্বিশেষে পেশাদার এবং প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষণ দেয়ার জন্য ফিলিপাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের(ইউপি) জন্ম। ইউপি প্রথমে তিনটি কলেজ নিয়ে গঠিত হয়েছিল। সেগুলো হলো- কলেজ অফ ফাইন আর্টস, কলেজ অফ লিবারেল আর্টস এবং কলেজ অফ মেডিসিন এন্ড সার্জারি। এটি ম্যানিলা শহরে অবস্থিত। ফিলিপাইনের জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকলে শিক্ষার্থীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পেতে থাকে। তখন ইউপি’র আরও একাডেমিক ইউনিট এবং ভবন তৈরির প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। ১৯৩৯ সালে রিজেন্টস বোর্ড কুইজন সিটির ডিলিমানে ৪৯৩ হেক্টর জমি অধিগ্রহণ করে এবং একই বছর নির্মাণ কাজ শুরু করে। এই অঞ্চলের উন্নয়ন অবশ্য দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগমনে আটকে ছিল। ১৯৪৫ সালে যুদ্ধ শেষ হলে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ক্ষতিগ্রস্ত সুযোগ-সুবিধাগুলো পুনরুদ্ধার করতে এবং ম্যানিলা থেকে ডিলিমানে বিশ্ববিদ্যালয় স্থানান্তর করতে নতুন করে তৈরির জন্য ইউএস-ফিলিপাইন যুদ্ধ ক্ষয়ক্ষতি কমিশনের কাছে অনুদান চেয়েছিল। ১৯৪৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে একটি মোটরকেড ম্যানিলা থেকে ডিলিমানে স্থানান্তর করার উদ্দেশ্যে যাত্রা করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল স্থান থেকে নতুন ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থান চিহ্নিত করে। এরপর, ডিলিমান লেন্ডস্কেপটি নতুন বিল্ডিংগুলোর সাথে যুক্ত হয়। পরের দশকে নতুন ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠাও হয়েছিল।

পর্ব-১২ঃ ফিলিপাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস

তবে আরও বিশেষায়িত ক্ষেত্রের গবেষণার দাবি উঠেছিল। ১৯৫৮ সালে স্নাতক স্তরের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য নির্ধারিত মূল কোর্সের একটি সিরিজ হিসাবে চালু হয়েছিল সাধারণ শিক্ষা (জিই) প্রোগ্রাম। ১৯৬৮ সালে ইউপি প্রেসিডেন্ট কার্লোস পি রোমুলোর মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে, ইউপি কেবল শিক্ষার একটি প্রতিষ্ঠানই হয়ে উঠেনি, বরং এটি গবেষণার একটি কেন্দ্র, একটি সত্যবাদী থিংক ট্যাঙ্কে পরিণত হয়েছিল। ১৯৭০ এর দশকে মতবিরোধ এবং সক্রিয়তার কেন্দ্রস্থল হয়ে ওঠেন ইউপি। ১৯৭১ সালের ১ থেকে ৯ ফেব্রুয়ারি ছাত্র এবং শিক্ষকরা ডিলিমান কমিউনের সময় পুরো ক্যাম্পাসকে সরকারি নিয়ন্ত্রণমুক্ত ঘোষণা করায় রাস্তাগুলো চেয়ার এবং টেবিল দিয়ে বেরিকেড দিয়েছিল। অস্থিরতার সময়কালের পরে, ইউপি’র প্রশাসকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাগত অগ্রাধিকার এবং প্রাতিষ্ঠানিক স্বায়ত্তশাসন বজায় রাখার চেষ্টা করেছিলেন। ১৯২২ সালের ২১ নভেম্বর ফিলিপিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্ম। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক-ক্যাম্পাস বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নয়নের চিহ্ন হিসাবে চিহ্নিত। যা কেবল একমাত্র নয়, শ্রেষ্ঠত্বের জন্য নিবেদিত একাধিক কেন্দ্রের বিকাশের অনুমতি দেয়।

ইউপি’র প্রথম চ্যান্সেলর ছিলেন এডগার্ডো জে আঙ্গারা, যিনি ইউপি প্রেসিডেন্টও ছিলেন। ১৯৮৫ সালের ২৩ এপ্রিল ইউপি ডিলিমানকে আনুষ্ঠানিকভাবে একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে ঘোষণা করা হয়। ১৯৯০ সালে যখন ইউপি প্রেসিডেন্ট জোসে আউয়েভা ইউপিডি চ্যান্সেলর ছিলেন, তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিলিপিনো ভাষার নীতিটি প্রাতিষ্ঠানিকভাবে তৈরি হয়েছিল। ১৯৯০ সালের মাঝামাঝি সময় চ্যান্সেলর রজার ডি পোসাদাসের সময়কালে তথ্য-প্রযুক্তির দিকে অনেক বেশি অগ্রসর হয়েছিল এবং ক্যাম্পাসের বিভিন্ন কলেজগুলো বা ডিলিমান নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত একটি ফাইবার-অপটিক নেটওয়ার্কের স্থাপনা চ্যান্সেলর ক্লারো টি লাগুনোর কার্যকালীন সময় পর্যন্ত ছিল । বর্তমানে ইউপি বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বে ৬৫ তম অবস্থানে আছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলিপাইনের শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা অধ্যয়ন করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরম পরিবেশ আর ঐতিহ্যবাহী স্থাপনাগুলো যেকোন দর্শনার্থীকে মুগ্ধ করবে। এখানে আছে সুপ্রসিদ্ধ লাইব্রেরি, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, দক্ষ শিক্ষকমণ্ডলী, শিক্ষার্থীদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা, ওয়াই-ফাই জোন প্রভৃতি। আমাদেরও সৌভাগ্য যে, আমরা এমন একটি ঐতিহ্যবাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে প্রশিক্ষণ নিতে পেরেছি।

পূর্বকোণ/এএ

The Post Viewed By: 181 People

সম্পর্কিত পোস্ট