চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৫ জুন, ২০২০

সর্বশেষ:

অবশেষে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি লিটনের

২ মার্চ, ২০২০ | ১:৪১ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

অবশেষে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি লিটনের

ওপেনারের লিটন দাসের ব্যাটিং নৈপুণ্যে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দলগত স্কোরে রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। গতকালের স্কোরটি দলীয় অষ্টম সর্বোচ্চ সংগ্রহ বাংলাদেশের। বাংলাদেশ এ পর্যন্ত ওয়ানডে ক্রিকেটে ১৭বার তিনশ’ রানের ঘরে ঢুকেছে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এটি বাংলাদেশের তৃতীয়বারের মতো তিনশ’ রানের ঘরে ঢোকা। এর আগে ২০০৯ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩১৩ এবং ৩২০ রান তোলে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ এর আগে পাকিস্তান, শ্রীলংকা এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দু’বার করে তিনশ’ রানের ঘরে রান তুলেছে। এছাড়া ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড ও ভারতের বিপক্ষেও ওয়ানডেতে দলীয় তিনশ’ রানের ইনিংস আছে বাংলাদেশের। প্রথম বাংলাদেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে ২০০৮ সালে লাহোরে এশিয়া কাপে তিনশ’ রান তোলে।

গতকাল জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে বড় সংগ্রহে বড় অবদান লিটন দাসের অপরাজিত সেঞ্চুরির। ৯৯ রানে অপরাজিত থেকে ডোনাল্ড তিরিপানোর লেগস্ট্যাম্পে পিচ করা ডেলিভারিটি বাঁ-পায়ের ওপর ভর দিয়ে খেললেন লিটন দাস। দারুণ টাইমিং হলো বলে মুহূর্তে স্কয়ার লেগের ওপর দিয়ে বল মাটি কামড়ে সীমানার ওপারে, সেঞ্চুরি। ড্রেসিংরুমে সতীর্থদের উদ্দেশ্যে ব্যাট উচিয়ে ধরলেন, ব্যাট উঁচিয়ে গ্যালারির অভিবাদনের জবাব দিলেন লিটন। সাদামাটা সেঞ্চুরি উদযাপন যাকে বলে আর কী! ডানহাতি ক্রিকেটার চাইলে কিন্তু উল্লাসে ফেটেও পড়তে পারতেন। এই সেঞ্চুরির জন্য যে অপেক্ষা করতে হলো অনেকদিন। ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরিটা পেয়েছিলেন ২০১৮ সালের সেপ্টম্বরে। ভারতের বিপক্ষে এশিয়া কাপের ফাইনালে। অর্থাৎ আরেকটা সেঞ্চুরি পেতে অপেক্ষা করতে হলো প্রায় দেড় বছর। গত বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন অঙ্কে পৌঁছানোর সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন। কিন্তু ৬৯ বলে ৯৪ রানে অপরাজিত থাকার সময় দলের জয় নিশ্চিত হয়ে যায় বলে তা আর পারেননি। গতকাল আর সুযোগ হাতছাড়া হয়নি।

সৌম্য সরকারের অনুপস্থিতিতে অনেকদিন পর বাংলাদেশের ইনিংসের সূচনা করতে নেমেছিলেন লিটন। শুরু থেকেই ছন্দে ছিলেন বলে তাকে পুরোপুরিভাবে মেলে ধরার সুযোগ করে দিতে নিজে ইনিংস মেরামতের দিকে মনযোগ দেন তামিম। সেই তামিম একটা সময় ফিরে গেছেন, তিনে নেমে নাজমুল হোসেন শান্তও ফিরে যান। তবে অপর প্রান্তে ঠিকই অবিচল ছিলেন লিটন। পুরো ইনিংসে একশ’র বেশি স্ট্রাইকরেটে ব্যাটিং করা লিটন ফিফটি পূর্ণ করেন ৪৫ বলে। পরের ৫০ করতে বল খেলেছেন ঠিক ৫০টি। ইনিংসের সমাপ্তিটা অবশ্য ভালো হয়নি। বাংলাদেশের ব্যাটিং ইনিংসের ৩৭ তম ওভারের কথা। মাধেভারের দ্বিতীয় ডেলিভারিটি স্লগ সুইপ করে মিড উইকেট দিয়ে ছক্কা মেরেই হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পান সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাস। ক্রিজে থাকাই দায় হয়ে উঠেছিল। অগত্যা মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন ওপেনিংয়ে নামা এই টাইগার ব্যাটসম্যান। দারুণ ইনিংসটি ১৩ চার ২ ছয়ে সাজিয়েছেন ২৫ বছর বয়সী ক্রিকেটার।

The Post Viewed By: 56 People

সম্পর্কিত পোস্ট