চট্টগ্রাম শনিবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০২১

১২ জানুয়ারি, ২০২০ | ৪:৫১ পূর্বাহ্ণ

সরওয়ার কামাল, মহেশখালী

মহেশখালীতে কালের বির্বতনে হারিয়ে যাচ্ছে

বুদ্ধিমান বাবুুই পাখির দৃষ্টিনন্দন বাসা

দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর গ্রাম-অঞ্চলে আগের মতো এখন আর চোখে পড়ে না বাবুই পাখি ও তাদের তৈরি দৃষ্টিনন্দন বাসা। বাবুই পাখিরা তালগাছ, নারিকেল গাছ ও খেজুর গাছের ডালে বাসা তৈরি করতো। পাখিটি দেখতে ছোট হলেও বুদ্ধিতে সব পাখিকে হার মানায়। আগেকার সময়ে মহেশখালীর বিভিন্ন পল্লী এলাকায় চোখে পড়তো দৃষ্টিনন্দন বাবুই পাখির বাসা। কিন্তু কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে আবহমান বাংলার সেই ঐতিহ্যবাহী বাসা তৈরির কারিগর বাবুই পাখি ও তাদের বাসা। খড়ের ফালি, ধানের পাতা, তালের কচিপাতা, ঝাউ, কাঁশবনের লতাপাতা দিয়ে সুউচ্চ তালগাছ নারিকেল গাছে চমৎকার আকৃতির বাসা তৈরি করত বুদ্ধিমান বাবুই পাখিরা। বাবুই পাখির বাসা যেমন দৃষ্টিনন্দন তেমনি মজবুত। মাঝেমধ্যে খেজুর কিংবা অন্যান্য গাছের শাখাতেও দৃষ্টিনন্দন বাসাটি বাঁধে। ছোট পাখিটি বুদ্ধিমান ও মেধাবী বলেই এরা সুন্দর বাসা তৈরি করে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও প্রবল ঝড়ের বাতাসে সাথে মোকাবেলা করে টিকে থাকে তাদের বাসা। মুক্ত বুননের বাবুই পাখির বাসাটি টেনেও ছেড়া খুব কঠিন। পছন্দের সঙ্গী খুঁজতে এরা এক বাসা থেকে আরেক বাসায় যায়। সঙ্গী পছন্দ হলে স্ত্রী বাবুইকে সঙ্গী বানানোর জন্য খাল-বিল ও ডোবাই গোসল করে ফূর্তিতে নেচে বেড়ায় গাছের ডালে-ডালে। পরে এরা উঁচু তালগাছ, নারিকেল গাছ বা সুপারি গাছের ঢালে বাসা তৈরির কাজ শুরু করে। স্ত্রী বাবুই পাখি প্রেরণা পেয়ে পুরুষ বাবুই খুবই শিল্পসম্মতভাবে নিপুণ বাসা তৈরি করে। মানব সমাজের এক শ্রেণির লোভী শিকারী বাবুই পাখিসহ তাদের পছন্দনীয় বৃক্ষাদি নিধন করার কারণে, হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখি ও তাদের বাসা। বাবুই খাবারের জন্য ঝাঁক বেঁধে নামে ধান ক্ষেত ও বিভিন্ন অনাবাদি জমিতে, এ সময় সুযোগটাই নেই লোভী শিকারীরা। তারা জাল পেতে রাখে জালে আটকা পড়ে শত শত বাবুই। প্রতিটি পাখি থেকে একশ থেকে দেড়শ গ্রাম মাংস পাওয়া যায়। সামান্য লোভের জন্য এভাবেই বাবুই পাখি নিধন চলছে অহরহ। বাবুই শিকার অব্যাহত থাকলে উপজেলা থেকে একদিনের বুদ্ধিমান পাখির বিলুপ্তি ঘটবে বলে মনে করেন সচেতনমহল। পুরুষ বাবুই পাখি কেবল বাসা তৈরি করে। স্ত্রী বাবুই ডিম দেয়ার সঙ্গে পুরুষ বাবুই খুঁজতে থাকে আরেক সঙ্গীকে। পুরুষ বাবুই এক মৌসুমে একাধিক বাসা তৈরি করতে পারে। অর্থাৎ এরা ঘর-সংসার করতে পারে একাধিক সঙ্গীর সঙ্গে, তাতেই স্ত্রী বাবুই’র বাধা নেই। প্রজনন প্রক্রিয়ায় স্ত্রী বাবুই ডিমের তাপ দেয়ার দু’সপ্তাহের মধ্যে বাচ্চা দেয় এবং ৩ থেকে ৪ সপ্তাহ পর বাবুই বাচ্চা ছেড়ে উড়ে যায়। স্ত্রী বাবুই দুধ, ধান সংগ্রহ করে এনে বাচ্চাদের খাওয়ায়। হারিয়ে যাওয়া বাবুই পাখি গত কয়েক বছর আগেও মহেশখালীতে চোখে পড়ার মতো ছিল বিভিন্ন এলাকায়। কিন্তু ছোট বুদ্ধিমান এ পাখি আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে। বাসা বুননের কারিগর বাবুই পাখিদের বিলুপ্তির পথ থেকে রক্ষার একমাত্র উপায় মানব সমাজের সচেতন মানুষেরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে লোভী শিকারীদের প্রতিহত করার মধ্য দিয়ে বিলুপ্তি ঠেকানো সম্ভব বলে মনে করেন সচেতন মহল।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 485 People

সম্পর্কিত পোস্ট