চট্টগ্রাম শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৫ মে, ২০১৯ | ১:২৮ পূর্বাহ্ণ

এম. ইউছুপ রেজা

ধর্মীয় শিক্ষা বিস্তারে অনন্য

শফিউল জোহরা হেফজখানা

একসময় সকাল বেলা মানুষ মসজিদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় মসজিদ এবং ফোরকানিয়া মাদরাসা থেকে ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের মুখে পবিত্র কোরআন তেলওয়াতের আওয়াজ শোনা যেত। সময়ের ব্যবধানে ফোরকানিয়া মাদরাসা অনেকটা বিলুপ্ত প্রায়।
মসজিদেও আগের মতো সকাল বেলা পবিত্র কোরআন তেলওয়াতের শিক্ষা দেয়া চোখে পড়ে না।
কোরআন শেখার এ প্রবণতা ধরে রাখতে ও হাফেজে কোরআন সৃষ্টি করতে বোয়ালখালী উপজেলার পৌর এলাকার পশ্চিম কধুরখীল ঐতিহ্যবাহী মাওয়া বাগান বাড়িতে ধর্মপ্রিয় আলহাজ মোহাম্মদ আলম (ববি) ও তার ভাইয়েরা মিলে তাদের বাবা-মায়ের নামে গড়ে তুলেন ‘শাহ্ মজিদিয়া শফিউল জোহরা হেফজ ও এতিমখানা’। দ্বীনি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলতে আলহাজ মোহাম্মদ আলম (ববি) কে সার্বিক সহযোগিতা করেন, তার ভাই সামশুল আলম, মনছুর আলম, জাহাঙ্গীর আলম ও ফরিদুল আলম। ২০১৮ সালের ১২ জানুয়ারি শুক্রবার এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। বর্তমানে মাদরাসাটিতে ১ জন শিক্ষক ও অর্ধশত শিক্ষার্থী রয়েছে। তৎমধ্যে এতিম ছাত্র রয়েছে অনেকেই। যাদের থাকা-খাওয়াসহ সব খরচ বহন করছেন কর্তৃপক্ষ। এতিম শিক্ষার্থী ছাড়াও অন্য ছাত্রদের কাছ থেকে কোন ধরনের টাকা পয়সা নেয়া হয় না। এ দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে হেফজ শেষ করে একাধিক শিক্ষার্থী বের হওয়ার পথে।
দ্বীনি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অন্যতম উদ্যোক্তা মোহাম্মদ আলম (ববি) বলেন, ধর্মীয় তথা পবিত্র কোরআন শিক্ষার প্রচার-প্রসারের লক্ষে এ প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠা করেছি ও নিজেদের অর্থায়ানে সওয়াবের উদ্দেশ্যে এ প্রতিষ্ঠান চালায়। এই প্রতিষ্ঠানে কারো কাছ থেকে কোন ধরনের অনুদান গ্রহণ করা হয় না। যেকোন জায়গার অসহায়, গরীব ছেলেমেয়ে কোরআন শিখতে চাইলে বা কোরআনে হাফেজ হতে চাইলে বিনা খরচে ভর্তি, থাকা খাওয়ার সুব্যবস্থা রয়েছে ও ভর্তি করা হবে বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 264 People

সম্পর্কিত পোস্ট