চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০

সর্বশেষ:

১৫ অক্টোবর, ২০২০ | ২:৫৮ অপরাহ্ণ

ফারজানা আজিম

মনুষ্যত্বের মরণ

বাগান করাটা আমার নেশা। একদিন বাগানে হাঁটতে হাঁটতে গাছগুলো দেখছিলাম। হঠাৎ চোখ পড়লো মানিপ্ল্যান্টের উপর। মনে হল দেখি সে ঠেস ছাড়া দাঁড়াতে পারে কিনা? যে লাঠিটা তাকে আকঁড়ে ধরে ছিল তাকে নিয়ে নিলাম তারপর গাছটাকে সোজা করে দাঁড় করানোর চেষ্টা করলাম। একবার দুইবার বহুবার চেষ্টা করার পরও তাকে সোজা করে দাঁড় করানো গেলো না। তারপর গেলাম হাস্নাহেনা গাছটার দিকে, যে কিনা সুগন্ধ ছড়ায় চাঁদনি রাতে। চেষ্টা করলাম তাকে মাটিতে লুটিয়ে দিতে। কয়েকবার চেষ্টা করলাম কিন্ত না সে কিছুতেই পরাজয় মানছে না। সে মেরুদন্ড নিয়ে সোজা হয়ে দাঁড়াবেই।

তারপর একটু থমকে গেলাম। ভাবলাম কি অদ্ভূত মিল আমার বাগানে। আমরা যেমন স্বভাব-সুলভভাবে অনেকেই সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারি না, পার্থক্য শুধু আমরা মানুষ ওরা গাছ। ওরা নিজের ভালো করতে পারুক বা না পারুক অন্যের ক্ষতি করে না। কিন্তু আমরা ঠিক সেই দৃষ্টিনন্দন কচু পাতার মত। উপর থেকে দেখে যতই দৃষ্টি শক্তি বাড়ুক না কেন, ভেতরে ভেতরে এর্লাজি, মানে চুলকানি। মানুষের ভালো দেখলে যেমন আমাদের চুলকায়।

প্রাসঙ্গিক বিষয় এলেই আমাদের দাঁতের কথা মনে পড়ে। আমার মনে হয়, দাঁত মানুষের চেয়েও বেশী অপরাধ-প্রবণ। সে সারা জীবন অনেক পাপ কাজ করে। গরু, ছাগল, মুরগীর ঠ্যাং ভাঙে, মাছের জীবননাশ করে। দাঁতের সব কাজই হল নাশকতামূলক। একটাও গঠনমূলক কাজের দৃষ্টান্ত নেই। সারাজীবন খিঁচেয়ে গেল, চিবিয়ে গেল, কামড়ে গেল কিন্তু দাতের বেতন কি? মৃত্যু, তাই মানুষের আগে দাঁত যায়।

দাঁতের মত আমাদের সমাজে এমন কিছু মানুষ আছে, যারা মানুষের আগে মনুষ্যত্বকে মারে। হাজার হাজার মানুষের আড়ালে কাঁদে মনুষ্যত্ব।

অভিশাপ না দিলে ‘‘রূহের হায়’’ বলে একটা কথা আছে, যাকে “Revenge of nature” বলে। কোরআনের ভাষায় যেটাকে ‘‘ফি কারাহ’’ বলে। এ সম্পর্কে বেশ কয়েকবার পবিত্র কোরআনে বলা আছে,  এটা আমাদের বিশ্বাস করতেই হবে।

প্রত্যেকটি মানুষ তার খারাপ কাজের জন্য শাস্তি পায়। কেউ আগে পায় আর কেউ হয়তোবা কয়েকদিন পরে পায়। কিন্তু শাস্তি সে পাবেই। সময়মতো হয়তো আমরা বুঝে উঠতে পারিনা কোন কাজের শাস্তি আমরা পাচ্ছি।

কাউকে কষ্ট দিয়ে, কাউকে কাঁদিয়ে কেউ কোনদিন সুখী হতে পারে না। তাই মানুষের মৃত্যু আমাকে আর এখন বেশী আঘাত করে না। যতখানি আঘাত করে মনুষ্যত্বের মরণ দেখলে। দিন দিন যেভাবে মনুষ্যত্বের মরণ ঘটছে এখন ভাবি পৃথিবীটা কি একদিন মনুষ্যত্বহীন মানুষে ভরে যাবে?

তবুও আমরা আশায় আছি, একদিন এই মানুষের হাতেই হবে মনুষ্যত্বের জয়, হাসবে মানুষ, মুক্তি পাবে মানুষ।

লেখকঃ সাবেক ব্যাংকার

 

পূর্বকোণ/এস-এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 55 People

সম্পর্কিত পোস্ট