চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৭ মে, ২০১৯ | ১:১২ পূর্বাহ্ণ

কাজী আবু মোহাম্মদ খালেদ নিজাম

সত্যের গুণ বিকশিত হোক

মিথ্যার ছড়াছড়ি সব খানে। এমন অনেক মানুষ আছেন যারা কথা বললেই মিথ্যা বলেন। মিথ্যাকে সংগী করেই চলেন। মিথ্যা মানুষকে সাময়িক সুবিধা দিলেও তার দীর্ঘমেয়াদী ক্ষত থেকে যায়। জীবনের শেষভাগে যা খুব প্রভাব ফেলে। মিথ্যাবাদী মানুষকে সকলে ঘৃণা করে। সবার কাছে তার মুখোশের আড়ালে লুকিয়ে থাকা চরিত্রটা ফুটে উঠে। তবে আজো সমাজে কিছু মানুষ আছে যারা সত্যকে আঁকড়ে ধরে আছেন। যে কারণে টিকে আছে দেশ তথা সমগ্র পৃথিবী। আমাদের উচিত সত্যকে আঁকড়ে ধরে সারাজীবন পার করা। একজন প্রকৃত সৎ মানুষ কখনো অসত্যের কাছ শির নত করে না। চলেন সাহস আর সত্যেরপথে।
অসত্যকে প্রশ্রয় দিলে সমাজে নানা বিশৃংখলা ও অপরাধ সংঘটিত হয়। যা থেকে সমাজের কেউ রেহাই পায় না। ইসলামসহ বিভিন্ন ধর্মে মিথ্যাকে পরিহারের কথা বলা হয়েছে। কেননা মিথ্যা মানুষকে বিপথে নিয়ে যায় এবং বিপদের সম্মুখীন করে। চলার পথে মিথ্যাকে পরিহার করতে পারলে জীবন ধন্য ঞয়। মিথ্যার সাথে আপোষ করা কোন মানুষের উচিত নয়। অসত্য তথা মিথ্যার কাছে মাথা নত না করলে সমাজে কখনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটা সম্ভব নয়। মানুষের মাঝে সত্যের গুণ বিকশিত করতে চেষ্টা চালানো উচিত।
নৈতিকতা অর্জন করতে সমর্থ হলে মিথ্যাকে দূরে ঠেলা অসম্ভব কিছু নয়। তাছাড়া, আমাদের পাঠ্যবই সমূহে যদি সত্য গল্প কিংবা নৈতিক শিক্ষা অর্জনের জন্য দিক নির্দেশনামূলক বিষয় সংযুক্ত থাকে তাহলে ছোটকাল থেকেই মিথ্যা থেকে দূরে থাকার অভ্যাস গড়ে উঠবে। পাশাপাশি মানুষের আচার-ব্যবহার, কথা-বার্তা ইত্যাদির ক্ষেত্রে যদি মিথ্যাকে পরিহার করা যায় তাহলে সমাজ সুন্দর হবে। মা-বাবা, অভিভঅবক যদি তাদের সন্তানদের মিথ্যা থেকে দূরে থাকতে, অসত্যকে পরিহার করতে নৈতিক শিক্ষা অর্জনে সচেষ্ট হন কিংবা সার্বিক জীবনে মিথ্যাকে দূরীভূত করতে পারেন তাহলে তারা (সন্তানরা) অসত্যকে ঘৃণা করতে শিখবে।
মিথ্যার উপর দাঁড়িয়ে কোন মানুষ সার্থক হতে পারে না। পারে না তার স্বাতন্ত্র্যবোধ ধরে রাখতে। কোন না কোনভাবে তাকে ঠকতে হয়। যারা সদা মিথ্যা বলেন কিংবা মিথ্যাকে প্রশ্রয় দেন অথবা মিথ্যার কাছে হেরে যান তাদের কাছে আর সত্যটা সত্য থাকে না সেটাও মিথ্যা বলে পরিগণিত হয়।
আর মিথ্যাটাই সত্য বলে প্রতীয়মান হয়। এমন মানুষ আমাদের সমাজে, আমাদের কাছাকাছিই থাকেন। তাদের পরিচয়টা আমাদের সবার জানা। সমাজের এইসব মানুষকে সত্যের দিকে, সত্যকে লালন করার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করা উচিত। কেননা, মিথ্যার পরিণাম কী তা তাদের অনেকের হয়তো জানা থাকে না। যে কারণে অসত্যের সাথে তাদের নিবিড়তা ও সখ্য। আমাদের মাঝে যারা সচেতন তাদের অবশ্যই সমাজের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে মানুষকে সত্যবাদী হওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করতে হবে। সত্যের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখতে হবে।
একটি সমাজ, একটি দেশকে এগিয়ে নিতে হলে উন্নয়ন, গণতন্ত্রের পাশাপাশি মানুষকে সত্যবাদী হতে হবে। মিথ্যা পরিহার করতে হবে। যাবতীয় মিথ্যাকে সমূলে নির্মূল করতে হবে। মিথ্যা থেকে দূরে থাকতে পারলে জীবন যেমন সুন্দর হয় তেমনি সমাজ হয় উন্নত। উন্নত সমাজের একজন নাগরিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা যায় নিজেকে। সফল ও সার্থক হয় জীবনের প্রতিটি ক্ষণ। ‘অসত্যের কাছে আমাদের শির কখনো নত হবে না’- এমন শপথ নেওয়া উচিত।

লেখক : শিক্ষক ও প্রাবন্ধিক।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 543 People

সম্পর্কিত পোস্ট