চট্টগ্রাম রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

৫ মে, ২০১৯ | ২:২৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১ শতাংশের কম মানুষ আয়কর দেন

দেশের ১ শতাংশেরও কম মানুষ আয়কর দেন। আর, জিডিপি’র (দেশের মোট দেশজ উৎপাদন) তুলনায় কর আদায় হয় মাত্র ১১ দশমিক ৪৭ শতাংশ। কর ফাঁকি ও মওকুফ বন্ধ হলে কর-জিডিপি অনুপাত ৫ শতাংশ বাড়বে, যা টাকার অঙ্কে ১ লাখ ১১ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে চিঠি দিয়ে একথা জানিয়েছে ।
চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, কর ফাঁকি ও কর মওকুফ সুবিধা বন্ধ করতে পারলে রাজস্ব আদায় ১ লাখ ১২ হাজার কোটি টাকা বাড়বে। এছাড়া বিদ্যমান আয়কর অধ্যাদেশে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগ ও অপ্রদর্শিত অর্থের মালিকদের যে সুবিধা দেওয়া হয়েছে, তা অবৈধ বা অপ্রদর্শিত অর্থ অর্জনের প্রবণতাকে উৎসাহিত করতে পারে বলেও মনে করে সংস্থাটি।
চিঠিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সঙ্গে সম্পর্কিত আয়কর, মূল্য সংযোজন কর (মূসক) এবং শুল্ক—এই তিন অংশের নানা দিক তুলে ধরা হয়েছে।
চিঠি দেওয়ার আগে দুদক দুটি প্রাতিষ্ঠানিক দল গঠনের মাধ্যমে এনবিআরের কার্যক্রম সম্পর্কে অনুসন্ধান করে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনার পাশাপাশি বিভিন্ন নথি পর্যালোচনা, সরেজমিনে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন, গণমাধ্যম থেকে নেওয়া তথ্য এবং গোয়েন্দা উৎস থেকে নেওয়া তথ্য পর্যালোচনা করেছে দুদক। চিঠিতেও এ কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
চিঠি পেয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে চিঠি দিয়ে সুপারিশগুলো কার্যকর করার অনুরোধ করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 265 People

সম্পর্কিত পোস্ট