চট্টগ্রাম সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

২৯ এপ্রিল, ২০১৯ | ২:১৭ পূর্বাহ্ণ

সাইবার হামলার ঝুঁকিতে দেশের অর্ধেক ব্যাংক

বাংলাদেশের ৫০ শতাংশ ব্যাংকে ‘নেক্সট জেনারেশন ফায়ারওয়াল’ না থাকায় সেগুলো প্রতিনিয়ত সাইবার হামলার ঝুঁকিতে রয়েছে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছে বিআইবিএম। তাই যত দ্রুত সম্ভব এই ব্যাংকগুলোর নিরাপত্তার জন্য নেক্সট জেনারেশন ফায়ারওয়াল বা এনজিএফডব্লিউ স্থাপনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার ঢাকার মিরপুরে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টে (বিআইবিএম) এক কর্মশালায় উত্থাপিত গবেষণা প্রতিবেদনে ব্যাংকগুলোতে সাইবার ঝুঁকির কথা বলা হয়। ‘আইটি অপারেশনস অব ব্যাংকস’ শীর্ষক এ প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন বিআইবিএমের সহযোগী অধ্যাপক মো. শিহাব উদ্দিন খান। তিনি বলেন, “দেশের ৫০ শতাংশ ব্যাংকে নেক্সট জেনারেশন ফায়ারওয়াল আছে। বাকি যে ৫০ শতাংশ ব্যাংকের নেই তার মধ্যে ৩৫ শতাংশ ব্যাংকের আংশিক নেক্সট জেনারেশন ফায়ারওয়াল রয়েছে। আর বাকি ১৫ শতাংশ ব্যাংক অনুমোদন প্রক্রিয়ায় রয়েছে।” শিহাব উদ্দিন বলেন, “ব্যাংকিং খাতে নিরাপদ লেনদেন নিশ্চিত করতে হলে সর্বাধুনিক এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে একটি সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের যে কোনো লেনদেন বা ই-মেইল আদান প্রদানের জন্য একটি প্রবেশ পথ তৈরি করতে হবে। ওই নির্ধারিত প্রবেশ পথ দিয়ে লেনদেন করলে ঝুঁকিমুক্ত উপায়ে লেনদেন সম্ভব। “একইসঙ্গে ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগে দক্ষ জনবলের মাধ্যমে ওই

প্রবেশ পথে সার্বক্ষণিক সাইবার হুমকি পর্যবেক্ষণ করতে হবে। তখনই সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।” কর্মশালার প্রধান অতিথি ডেপুটি গভর্নর এস এম মনিরুজ্জামান বলেন, “আমাদের ব্যাংকিং খাত কোনো ধরনের বিপর্যয়ের মূখে পড়লে তা থেকে সহজে পুনরুদ্ধারের সুযোগ নেই।” তাই এখনই সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে পদক্ষেপ নেওয়ার উপর জোর দেন তিনি। অনুষ্ঠানে ডাচ বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কাশেম মোহা. শিরিন বলেন, “আমি ব্যক্তিগতভাবে ক্যাশলেস লেনদেন গড়ার পক্ষে। এ প্রক্রিয়ায় বেশি রাজস্বও আহরণ হবে। কিন্তু এই ব্যবস্থাপনায় র‌্যানসামওয়ার এবং ম্যালওয়্যার খুবই বিপজ্জনক। “দেশে এখনও ৫০ শতাংশ ব্যাংক অনিরাপদ রয়েছে। এসব ব্যাংকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।” ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আরফান আলী ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার কাজ এথনই শুরু করতে তাগিদ দেন।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 332 People

সম্পর্কিত পোস্ট