চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২১

সর্বশেষ:

২৭ নভেম্বর, ২০২০ | ৭:২৯ অপরাহ্ণ

ইমরান বিন ছবুর

মাধ্যমিকে থাকছে না বিভাগ

পূর্ণাঙ্গ শিক্ষার সুযোগ বাড়বে

২০২২ সাল থেকে চালু হওয়া মাধ্যমিকের নতুন শিক্ষাক্রমে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিকের মতো আলাদা বিভাগ থাকছে না। অর্থাৎ নবম-দশম শ্রেণিতেও শিক্ষার্থীরা একটি বিভাগের আওতায় পড়াশোনা করবে। সম্প্রতি সংসদের অধিবেশনে বিষয়টি জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এই শিক্ষাক্রমের ফলে সব শিক্ষার্থীই কোন বিভাগ ছাড়া ১০ বছর পড়বে। এরপর উচ্চ মাধ্যমিকে শিক্ষার্থীরা পছন্দের বিভাগে অধ্যয়ন করতে পারবে।

চট্টগ্রামের শিক্ষাবিদদের বেশিরভাগই সরকারের এই সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন। তারা মনে করেন, পরিবর্তিত এই ব্যবস্থায় শিক্ষার্থীরা সুষম ও পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পাবে। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের কারিকুলামের পুরো পর্যালোচনা হচ্ছে। খুব শীঘ্রই চূড়ান্ত রূপটি প্রকাশ করা হবে। সেখানে কিন্তু আমাদের সব ধরনের শিক্ষাতে বিজ্ঞান, মানবিক, ব্যবসায় এই বিভাগগুলো নবম-দশম শ্রেণিতে আর রাখছি না। শিক্ষার্থীরা সব ধরনের শিক্ষা নিয়ে স্কুলের ১০টি বছর শেষ করবে। নতুন কারিকুলামটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতেই তৈরি করা হচ্ছে।

নতুন শিক্ষাক্রম অনুযায়ী কেউ বিজ্ঞান পছন্দ না করলেও তাকে গণিত পড়তে হবে কিংবা কেউ বিজ্ঞান নিয়ে পড়তে চাইলেও তাকে ব্যবসায় শিক্ষা বা মানবিকের বিষয় পড়তে হবে। আবার বিজ্ঞানে আগ্রহী একজন শিক্ষার্থীকে অন্য বিষয় পড়তে হলে তো বিজ্ঞানের কোনো একটি বিষয় ছাড় দিতে হবে। সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে চট্টগ্রামের শিক্ষাবিদ ও শিক্ষাসংশ্লিষ্টরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তাদের মতে, প্রস্তাবিত এই শিক্ষা ব্যবস্থার ফলে একজন শিক্ষার্থীর বিজ্ঞান বিষয়ে যেমন ধারণা থাকবে, ইতিহাস ও অন্যান্য বিষয়েও তার সমান জ্ঞান থাকবে। আবার কারো কারো সংশয়, আমাদের দেশে শিক্ষা ব্যবস্থায় অনেক পরিবর্তন হয় কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর কার্যকর হয় না।

জানা যায়, মাধ্যমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে দেশের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদদের নিয়ে ২০১৬ সালে একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সদস্যদের নিয়ে ওই বছরের নভেম্বর মাসে কক্সবাজারে দু’দিনের আবাসিক কর্মশালা হয়। এতে শিক্ষাবিদরা বেশকিছু সুপারিশ করেন।

সেই সুপারিশমালা বাস্তবায়নে কয়েকটি সাব-কমিটিও গঠন করা হয়। শিক্ষাক্রম পর্যালোচনা সাব-কমিটি ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে ৮ দফা প্রস্তাব করেছিল। প্রস্তাবে ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষাক্রম বিষয়বস্তুর গুরুত্ব অনুসারে তিন গুচ্ছে ভাগ করার জন্য সরকারকে পরামর্শ দেওয়া হয়।

 

 

 

 

 

পূর্বকোণ/পি-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 167 People

সম্পর্কিত পোস্ট