চট্টগ্রাম বুধবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২১

২৫ নভেম্বর, ২০২০ | ৬:২২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১১ কোটি ভোটারকে স্মার্টকার্ড ২০২২ সালের মধ্যে

২০২২ সালের মধ্যে দেশের প্রায় ১১ কোটি নাগরিককে উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র ‘স্মার্ট কার্ড’ দেয়া হবে। মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) অনুমোদন পাওয়া ‘আইডেন্টিফিকেশন সিস্টেম ফর এনহ্যান্সিং একসেস টু সার্ভিসেস’ দ্বিতীয় পর্যায়ের প্রকল্পের আওতায় এই কার্যক্রম বাস্তবায়িত হবে।

ইসি’র এনআইডি উইংয়ের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম জানান, একইসাথে আগামী বছরের শুরুতে ১০ বছর বয়সীদেরও নিবন্ধন তথ্য সংগ্রহের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

বর্তমানে প্রায় ১১ কোটি নিবন্ধিত নাগরিকের তথ্য সংরক্ষণ করা হচ্ছে এবং এখন পর্যন্ত ১৩৭টি প্রতিষ্ঠানকে নিরবচ্ছিন্ন পরিচিতি যাচাই সেবা দেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে ৭.৭৩ কোটি স্মার্ট কার্ড পারসোনালাইজেশন করে বিতরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এছাড়াও ১৫-১৬ বছর বয়সীদের নিবন্ধন তথ্য নেওয়া হয়েছে। তাদের বয়স ১৮ বছর বা ভোটার হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা তালিকাভুক্ত হয়ে যাচ্ছে।

গত বছর ইসি জানায়, আগামীতে পর্যায়ক্রমে সব নাগরিকের হাতে জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দিতে চায় নির্বাচন কমিশন। পর্যায়্ক্রমে প্রথমে ১০ বছর বয়সী ও পরে পাঁচ বছর বয়সীদেরও এনআইডি দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এজন্য বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা কঠিন বিধায় থানা বা উপজেলা পর্যায়ে স্থায়ীভাবে নিবন্ধন কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, নতুন প্রকল্পে দেশের সব ভোটারের হাতে ২০২২ সালের মধ্যে স্মার্টকার্ড দেয়া হবে। সেই সঙ্গে ভোটার নন এমন ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের পেপার লেমেনিটিং কার্ড দেয়া হবে। এছাড়া জন্মের পরপরই প্রত্যেক শিশুকে জন্মনিবন্ধন নম্বরের সঙ্গে সমন্বয় রেখে ইউনিক আইডি নম্বর দেয়ার পরিকল্পনা নেয়া হবে।

সাইদুল ইসলাম বলেন, নতুন ভোটার নিবন্ধন, স্থানান্তর, কর্তন, তথ্যের ভুল সংশোধন সংক্রান্ত কার্যক্রম বাস্তবায়ন এবং অধিকতর দক্ষতা ও স্বচ্ছতার সঙ্গে নাগরিকদের সেবা দেয়া হবে। অনূর্ধ্ব ১৮ এবং ১০ বছরের বেশি বয়সের নাগরিকদের নিবন্ধনের জন্য গাইডলাইন প্রস্তুতকরণের লক্ষ্যে ১০টি অঞ্চলে পাইলট প্রজেক্ট নেয়া হবে। আইডি কার্ডে ১০ ডিজিট বিশিষ্ট ইউনিক পরিচিতি নম্বর প্রদান করাসহ ইউনিক আইডি নম্বর বিভিন্ন সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংযুক্ত করার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

মহাপরিচালক জানান, একটি শিশুর জন্মের পরপরই জন্ম নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক তাকে এই ১০ ডিজিটের ইউনিক আইডি নম্বর দেয়া হবে। প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের দ্রুততম সময়ে নিবন্ধন, পরিচয়পত্র দেয়া এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিবন্ধন করে এনআইডি সরবরাহের প্রক্রিয়া নেয়া হচ্ছে।

 

 

 

 

 

পূর্বকোণ/আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 101 People

সম্পর্কিত পোস্ট