চট্টগ্রাম বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

১ নভেম্বর, ২০২০ | ৯:৫০ অপরাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

করোনায় আর্থিক সংকটে লেখাপড়া ছেড়েছে ২৮ শতাংশ তরুণ

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে মধ্যবিত্ত ও নিম্মবিত্ত আয়ের মানুষের আয় কমে গেছে ৮০ শতাংশ পরিবারের। এর রেশ দাপাচ্ছে তরুণ-তরুণী শিক্ষার্থীদের উপরও।  করোনায় আর্থিক সংকটে পরিবারকে সহায়তা করতে নিজের পড়ালেখা ছেড়েছেন ২৮ শতাংশ তরুণ। অন্যদিকে পরিবারকে সহায়তা করার জন্য পড়ালেখা ছেড়েছে ১৩ শতাংশ নারী। এছাড়া বিয়ের কারণে পড়ালেখা ছাড়া নারী সংখ্যা ৮ শতাংশ।  তবে আয়ের ক্ষেত্রে উল্টো চিত্রও রয়েছে। এই সংকটেও ১২ শতাংশের আয় বেড়েছে।

আজ রবিবার (১ নভেম্বর) সকালে ‘কোভিড-১৯ ও বাংলাদেশ আর্থসামাজিক পুনরুজ্জীবনে যুব এজেন্ডা’ শীর্ষক অনলাইন সংলাপে এ তথ্য তুলে ধরে বাংলাদেশ বেসরকারি সংগঠন এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম। সংগঠনটি ১৮ থেকে ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত ১ হাজার ১৬৩ জনের ওপর অনলাইনে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে এই জরিপ পরিচালনা করে। ১৮-৩০ বছর বয়সী অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৮৬৩ জন পুরুষ, ২৯৯ জন নারী এবং ১ জন তৃতীয় লিঙ্গের।

কোভিডে তরুণ-যুবাদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে। এদিকে দুই-তৃতীয়াংশ ভবিষ্যৎ কর্মজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে। ৯৬ শতাংশ তারা নানা ধরনের মানসিক অবসাদে ভুগছে। এর মধ্যে ৫৯ শতাংশের অবসাদ বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। অনলাইনে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণে যুক্ত নেই ৫৮ দশমিক ৩ শতাংশ। অনুষ্ঠানের সহ-আয়োজক ছিল জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) বাংলাদেশ, একশনএইড বাংলাদেশ, ফ্রেডরিক ইবার্ট স্টিফটুং বাংলাদেশ, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, ওয়াটার এইড বাংলাদেশ এবং সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)। জরিপ প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন সিপিডির কর্মসূচি সহযোগী তামারা ই তাবাসসুম।

সাংসদ শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, ধারণা করা যাচ্ছে, করোনাকালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ১০/১৫ শতাংশের পড়াশোনা ছেড়ে দেওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তার মতে, দক্ষ কর্মশক্তি তৈরির জন্য কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারে নিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, সংকটকালে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ দিতে শর্ত সাপেক্ষে আগামী ছয় মাসের বেকার ভাতা দেয়া যেতে পারে তরুণ-যুবকদের।

পূর্বকোণ / আরআর

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 109 People

সম্পর্কিত পোস্ট