চট্টগ্রাম শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

হেয় করতেই আমার ভয়েস সুপার এডিট করা হয়েছে: নিক্সন চৌধুরী

১৩ অক্টোবর, ২০২০ | ৮:১৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

হেয় করতেই আমার ভয়েস সুপার এডিট করা হয়েছে: নিক্সন চৌধুরী

ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী (নিক্সন) বলেছেন, এই ভয়েসটা আমারই না। প্রথমে আমি এসিল্যান্ডকে ফোন করেছিলাম। ‘আমি দেখছি’ বলে এসিল্যান্ড ফোনটা বন্ধ করে দেয়। পরে আমি আপাকে (টিএনও) ফোন করলাম যে, আপা আমার এ রকম একটা লোক ধরা পড়ছে আপনি একটু দেখেন, তার কোনো অন্যায় হয় নাই। সে মাঠে দাড়িয়ে সিগারেট খাচ্ছিল। তাকে বিজিবি ধরে নিয়েছে আপনি একটু ব্যবস্থা নেন। এই কথাটুকুই আমি তাকে বলেছি। বাকি কোনো কথা আমার না। এটা ইউএনও সাহেবকে জিজ্ঞাসা করলেই পাবেন। আজ মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

নিক্সন চৌধুরী বলেন, আপনারা জিজ্ঞেস করেন এই গালিগুলো আমি ইউএনওকে দিয়েছি কি না। তিনি বলুক এই গালিগুলো আমি তাকে দিয়েছি। সুনির্দিষ্ট প্রমাণ করেন এই ভয়েসটা আমার। এই ক্লিপগুলো এক এক জায়গা থেকে কেটে নিয়ে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য করা হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রকাশিত গালিগালাজের বিষয়ে তদন্ত হওয়া উচিত।

তিনি বলেন, আমার আর ইউএনও’র কথাই শুধু ভাইরাল হয়নি, পুলিশ প্রশাসন ও ইউএনও’র কথাও ভাইরাল হয়েছে। এটা দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার জন্য কোনো মহল কাজটা করেছে। এটা সরকারের দায়িত্ব খুঁজে বের করা।

আমার বিরুদ্ধে মামলা হলে তবে ডিসির বিরুদ্ধে মামলা হবে জানিয়ে এই সাংসদ বলেন, আমি যদি নির্বাচনী আইন ভঙ্গ করি তাহলে পরদিন সকালে ডিসি সাহেব নির্দেশ দিয়ে ইউএনওকে কেন আমার বাড়িতে পাঠালেন? ইউএনও কি নির্বাচনকালীন ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে আমার বাড়িতে আসতে পারে? তাহলে তো সেও আইনভঙ্গ করেছে। আমার কথা হল, আমি যদি আইনভঙ্গ করে থাকি তাহলে ডিসি সাহেব আইনভঙ্গ করেছে, নির্বাচনী আইন লঙ্ঘন করেছেন। তার বিরুদ্ধেও কেবিনেটে ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলে আমি মনে করি। আমি যদি কোনো আইনভঙ্গ করে থাকি তবে অবশ্যই আমার বিরুদ্ধে মামলা হবে। আমার একার বিরুদ্ধে কেন মামলা হবে? আইনভঙ্গ তো ডিসিও ভঙ্গ করেছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি ইউএনওকে ফোন করে এসিল্যান্ডকে গালাগালি করেছি এই প্রতিবেদন যে কেবিনেটে দিয়েছেন তাতে তিনিই তো আইনবিরোধী কাজ করেছেন। ধরেন আমি এ রকম যদি কোনো স্ল্যাং ইউজ করে থাকি, উনি কি এটা সোশ্যাল মিডিয়াতে দিতে পারেন? সোশ্যাল মিডিয়াতে দিলে তো উনি আইন ভঙ্গকারী হিসাবে মামলা খায়। তাহলে তারা এত আইনের বিরুদ্ধে কাজ করলেন। স্পষ্ট, ডিসি কথা বলেছি আমি।

নিক্সন চৌধুরীর দাবি জানিয়ে বলেন, উপ-নির্বাচনে যারা পক্ষপাতিত্ব করেছে তাদের বিচার হোক এবং আমাকে নিয়ে যে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনা হচ্ছে সেটা আরও বিচার হোক।

সংবাদ সম্মেলনে ভাঙ্গা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন, ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফায়জুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

পূর্বকোণ/আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 158 People

সম্পর্কিত পোস্ট