চট্টগ্রাম সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ১:০৮ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

এমসি কলেজে গণধর্ষণ: আসামি সাইফুর ও অর্জুন রিমান্ডে

সিলেটে এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমান ও অর্জুন লস্করের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহপরান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক সপ্তাহ করে রিমান্ড আবেদন জানান। শুনানি শেষে সিলেট মহানগর দ্বিতীয় হাকিম সাইফুর রহমান পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গতকাল রবিবার সকাল ৮টা দিকে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা নোয়ারাই খেয়াঘাট থেকে সাইফুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

আর অর্জুনকে গ্রেপ্তার করা হয় হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মনতলা সীমান্ত এলাকা থেকে।

সাইফুর অস্ত্র মামলারও আসামি। ঘটনার দিন রাত ৩টার দিকে এমসি কলেজের হোস্টেলে অভিযান চালিয়ে সাইফুর রহমানের কক্ষ থেকে একটি পাইপগান, চারটি রামদা ও একটি চাকু, দুটি লোহার পাইপ, প্লাসসহ বিভিন্ন জিনিস জব্দ করে।

ছাত্রলীগের এই নেতার বিরুদ্ধে হোস্টেল সুপারের বাংলো দখলের অভিযোগও রয়েছে।

গত শুক্রবার এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হন এক গৃহবধূ। রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বামীর কাছ থেকে ওই গৃহবধূকে জোর করে তুলে নিয়ে ছাত্রাবাসে ধর্ষণ করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় কলেজের সামনে তার স্বামীকে আটকে রাখে দুজন।

এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে নগরীর শাহপরাণ থানায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। তবে এজাহারে ছয় আসামির নাম রয়েছে, তিনজন অজ্ঞাতপরিচয় আসামি। নাম থাকা আসামিদের ছয়জনই ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে পরিচিত। তারা হলেন- সাইফুর রহমান, মাহবুবুর রহমান রনি, তারেক, অর্জুন লঙ্কর, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান।

৯ আসামির মধ্যে সাইফুর ও অর্জুনসহ এ পর্যন্ত মোট পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ, যাদের মধ্যে এজাহারভুক্ত আসামি চারজন। গ্রেপ্তার অপর তিনজন হলেন- রবিউল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান রনি ও রাজন। এদের মধ্যে রাজনকে মামলার অজ্ঞাত পরিচয় তিন আসামির একজন হিসেবে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পূর্বকোণ/পিআর

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 112 People

সম্পর্কিত পোস্ট