চট্টগ্রাম শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২০

১০ জুলাই, ২০২০ | ৪:১৭ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

‘শ্রম বাজারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের আশঙ্কা সত্যি হতে চলেছে’

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকার শুরু থেকেই যে ধরনের ঢিলেঢালা মনোভাব প্রদর্শন করছিলো তার সমূহ বিপদ আঁচ করতে পেরে সরকারকে আগেই সতর্ক করা হয়েছিল বলে মন্তব্য করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ইতালিতে পৌঁছার পর ১৫২ জন বাংলাদেশিকে দেশটিতে ঢুকতে না দিয়ে এয়ারপোর্ট থেকে ফেরত পাঠানোর ঘটনার প্রেক্ষিতে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

আজ শুক্রবার (১০ জুলাই) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, বৈশ্বিক করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে বর্তমান সরকার ক্রমাগত ব্যর্থতা প্রদর্শন করে আসছে। একের পর এক এমন হৃদয় বিদারক ঘটনার মধ্যে এখন আবার করোনা টেস্ট নিয়ে ভূয়া সার্টিফিকেট ও জালিয়াতির জন্য বিদেশের গণমাধ্যমে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

এদিকে, দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমের খবরে আরও জানা গেছে, ইতালি, চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, কাতার, আরব আমিরাতসহ অনেকগুলো দেশ বাংলাদেশের সঙ্গে বিমান চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বাংলাদেশিদের ইতালিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এটা একটা বিব্রতকর পরিস্থিতি। ইতালিতে বাংলাদেশিদের বাঁকা চোখে দেখা হচ্ছে। বাংলাদেশিদের বহনকারী বিমানকে বলা হচ্ছে “করোনা বোমা”। এমনকি শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি যারা গত বুধবার ইতালির রোমের বিমানবন্দরে গিয়ে পৌঁছেছিলেন, সেখানে তাদের অনেকের করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ায় প্রায় সবাইকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। ইতালির মূলধারার গণমাধ্যমগুলোতে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ভুয়া সার্টিফিকেট কেনা-বেচা নিয়ে নেতিবাচক খবর প্রকাশিত হয়েছে। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ বড় ধরনের বিপদের মুখে পড়তে যাচ্ছে বলে তিনি জানান।

তিনি আরও বলেন, বছরের পর বছর ধরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার, বিরোধী দল ও মতের মানুষকে গুম-খুন-অপহরণ আর নির্মম নির্যাতন নিপীড়নের মাধ্যমে নিজেদের অপশাসনকে দীর্ঘায়িত করাকেই নিজেদের সাফল্য হিসেবে প্রচার করছিলো। কিন্তু চলমান করোনা সংকট প্রমাণ করেছে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে গুম-খুন-অপহরণ করানো ছাড়া এই সরকারের পক্ষে ভালো কিছু করার দৃষ্টান্ত নেই।

অন্যদিকে, গত ২২মে করোনা টেস্টের গুরুত্ব সম্পর্কে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান স্পষ্ট করেই বলেছিলেন, নাগরিকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে দেশে যেমন ভয়ংকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, অদূর ভবিষ্যতে আমাদের নাগরিকদের বিদেশের শ্রম বাজারে থাকা না থাকার বিষয়টিও বেশ ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। আজকের বাস্তবতায় দেখতে পাচ্ছি, বিএনপির এই আশঙ্কাটি এখন দুঃখজনকভাবেই সত্যি হতে চলেছে।

তাছাড়া রিজভী করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য সরকার কি ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে তা জনগণকে জানানো দরকার বলে মনে করেন। তিনি বলেন, আমরা বারবার বলে আসছি, করোনাভাইরাস ‘ট্রেস-টেস্ট এবং ট্রিটমেন্ট’ নিয়ে সরকার কি করছে, কি ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে এগুলো জনগণকে জানাতে হবে। এমনকি করোনা মোকাবিলায় পদক্ষেপ নেয়ার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর পক্ষ থেকে প্রয়োজনে একটি জাতীয় কমিটি গঠন করার জন্যও সরকারের প্রতি আহবান জানানো হয়েছিল। সরকার সেই দাবি কানে নেয়নি।

কিছু অনুমোদিত ভূয়া প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতিবাজরা টাকার বিনিময়ে হাজার হাজার মানুষকে রক্ত পরীক্ষা না করেই ‘করোনামুক্ত সার্টিফিকেট’ ইস্যু করার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর তা নিয়ে এখন সরকারের টনক নড়েছে বলেও জানান দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব।
পূর্বকোণ/এএ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 158 People

সম্পর্কিত পোস্ট