চট্টগ্রাম রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০

২৬ জুন, ২০২০ | ১:৩৮ পূর্বাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

নিবন্ধন পেল না গণস্বাস্থ্যের কিট

করোনাভাইরাস পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্যের কিট ব্যবহারের অনুমোদন দেয়নি ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডকে লেখা চিঠিতে অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে বলা হয়,  ‘অনুমোদনের জন্য নির্ধারিত মানের না হওয়ায় গণস্বাস্থ্যের কিট অনুমোদন পায়নি। এর সেনসিটিভিটির নির্ধারিত মান শতকরা ৯০। কিন্তু তাদের কিটের সেনসিটিভিটি ৬৯ দশমিক ৭। নির্ধারিত মানের নিচে থাকায় তা গ্রহণযোগ্য নয়। কারিগরি কমিটি এ কারণে তাদের অনুমোদন না দেওয়ার সুপারিশ করেছে।”

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ‘জিআর কোভিড-১৯ র‌্যাপিড ডট ব্লট প্রকল্পের সমন্বয়কারী ডা. মুহিব উল্লাহ খোন্দকার কিটের অনুমোদন না দেওয়াকে এককথায় ‘দুঃখজনক’ বলে মন্তব্য করেছেন।

ওষুধ প্রশাসনের পক্ষ থেকে গণস্বাস্থ্যকে দেওয়া চিঠিতে বলা হয়, “২৪ জুন ২০২০ তারিখে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের আবেদনটি ডিসিসি (ড্রাগস কন্ট্রোল কমিটি) মেডিকেল ডিভাইস সংক্রান্ত ট্কেনিক্যাল কমিটির সভায় মূল্যায়নের জন্য উপস্থাপন করা হয়। কমিটির সদস্যগণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত কমিটির সার্স-কোভ-২ এন্টিবডি (আইজিজি+আইজিএম) এর জন্য ন্যূনতম সেনসিটিভিটি ৯০ শতাংশ এবং স্পেসিফিসিটি ৯৫ শতাংশ নির্ধারণ করে গণস্বাস্থ্যের টেস্ট কিটের মূল্যায়ন করেছে। সেনসিটিভিটি ন্যূনতম লেভেল না হওয়ায় এর রেজিস্ট্রেশন না দেওয়ার জন্য সুপারিশ করেছে।

এদিকে, গত ১৭ জুন দেওয়া মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বিএসএমএমইউ বলেছিল, ‘জিআর কোভিড-১৯ ডট ব্লট কিট’ এন্টিবডি চিনতে পারলেও সংক্রমণের প্রথমভাগে করোনাভাইরাস শনাক্তে ‘কার্যকর নয়’। তবে এই কিট কোভিড-১৯ এর বিস্তার বোঝার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছিলেন বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া।

প্রসঙ্গতঃ বহু আলোচনা- সমালোচনার পর ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর গত ৩০ এপ্রিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে তাদের উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য বিএসএমএমইউ অথবা আইসিডিডিআরবিতে নমুনা জমা দেওয়ার অনুমতি দেয়। এরপর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র ২ মে কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য ৬ সদস্যের কমিটি করে এবং ১৩ মে তাদের উদ্ভাবিত কিট বিএসএমএমইউতে জমা দেয়। ৩৪ দিন পর বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ তাদের সিদ্ধান্ত জানাল।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য বিশ্বে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পদ্ধতির নাম রিভার্স ট্রান্সক্রিপশন পলিমারেজ চেইন রিয়েকশন (আরটিপিসিআর)। বাংলাদেশে এখন কেবল এ পদ্ধতিতেই করোনাভাইরাস পরীক্ষার অনুমতি রয়েছে।

পূর্বকোণ/ এস

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 188 People

সম্পর্কিত পোস্ট