চট্টগ্রাম বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০

সর্বশেষ:

ডেঙ্গু নিধনে ডিএনসিসির ১০ দিনব্যাপী চিরুনি অভিযান
ডেঙ্গু নিধনে ডিএনসিসির ১০ দিনব্যাপী চিরুনি অভিযান

৫ জুন, ২০২০ | ৫:২৬ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

ডেঙ্গু নিধনে ডিএনসিসির ১০ দিনব্যাপী চিরুনি অভিযান

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) সকল ওয়ার্ডে ১০ দিনব্যাপী চিরুনি অভিযান শুরু হচ্ছে। আগামীকাল শনিবার (৬ জুন) থেকে এডিস মশা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে নগরবাসীকে ডেঙ্গু থেকে সুরক্ষা দিতে একযোগে শুরু হচ্ছে এ বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান।

১০ দিনব্যাপী এ অভিযান শুধুমাত্র শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরিচালিত হবে। এ অভিযান পরিচালনার উদ্দেশে প্রতিটি ওয়ার্ডকে ১০টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। আবার প্রতিটি সেক্টরকে ১০টি সাবসেক্টরে ভাগ করা হয়। প্রতিদিন প্রতিটি ওয়ার্ডের ১টি সেক্টরে অর্থাৎ ১০টি সাবসেক্টরে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করা হবে। এভাবে আগামী ১০ দিনে সমগ্র ডিএনসিসিতে চিরুনি অভিযান সম্পন্ন করা হবে।

উল্লেখ্য, ১৬ মে থেকে শুরু করে ঈদুল ফিতরের পূর্ব পর্যন্ত, ৫টি ওয়ার্ডে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। ওয়ার্ডগুলো হচ্ছে- ১, ৬, ১২, ১৮ ও ৩২। সে সময় ৯ হাজার ৪৬৩টি বাড়ি/স্থাপনা পরিদর্শন করে ১৮৭টিতে এডিস মশার লার্ভার সন্ধান পাওয়া যায়।

প্রতিটি সাবসেক্টরে ৪ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও ১ জন মশক নিধনকর্মী, অর্থাৎ প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রতিদিন ৪০ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও ১০ জন মশক নিধনকর্মী ডিএনসিসির আওতাধীন বিভিন্ন বাড়ি, স্থাপনা ও প্রতিষ্ঠানে গিয়ে কোথাও এডিস মশার লার্ভা আছে কিনা, কিংবা কোথাও তিন দিনের বেশি পানি জমে আছে কিনা, ময়লা-আবর্জনা আছে কিনা যা এডিস মশার বংশবিস্তারে সহায়ক তা পরীক্ষা করবেন।

অভিযান চলাকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে ৯ জন  কীটতত্ত্ববিদ, ডিএনসিসির ৩ জন কীটতত্ত্ববিদ, স্বাস্থ্য বিভাগ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত থাকবেন।

এসময় যেসব বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা কিংবা এডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যাবে, তার ছবি, ঠিকানা, মোবাইল নম্বরসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য তাৎক্ষণিকভাবে একটি এপে সংরক্ষণ করা হবে। এর ফলে  চিরুনি অভিযান শেষে ডিএনসিসির কোন কোন এলাকায় এডিস মশা বংশবিস্তার করে তার একটি ডাটাবেজ তৈরি  হবে। ডাটাবেজ অনুযায়ী পরবর্তীতেও তাদেরকে মনিটর করা  হবে। এপটি তৈরি করেন ডিএনসিসির প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিরুল ইসলাম।

চিরুনি অভিযানের সাথে সাথে এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্টও পরিচালিত হবে। প্রসঙ্গত, এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ডিএনসিসিতে ১০ মে থেকে মোবাইল কোর্ট শুরু হয়। বিভিন্ন বাড়ি, স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত মোট ৪ লক্ষ ২৬ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

অভিযানটি সফল করতে মেয়র আতিকুল ইসলাম ওয়ার্ড কাউন্সিলর, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর এবং ডিএনসিসির সর্বস্তরের জনগণকে আহবান জানান।

পূর্বকোণ/ এএ 

The Post Viewed By: 95 People

সম্পর্কিত পোস্ট