চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সর্বশেষ:

ট্রাম্পের টিকাযুদ্ধ ঘোষণা

২ জুন, ২০২০ | ২:৫০ পূর্বাহ্ণ

ট্রাম্পের টিকাযুদ্ধ ঘোষণা

অন্য দেশগুলি পেটেন্ট পুলের প্রয়োজনীয়তার সাথে একমত হলেও আমেরিকা বিশ্বজুড়ে তার আধিপত্যকে প্রসারিত করতে চায়, কর্তৃত্ব ধরে রাখত চায় : প্রবীর পূরকায়স্থ

পূর্বকোণ ডেস্ক

ডোনাল্ড ট্রাম্প এই মাসে একটি নতুন ভ্যাকসিন যুদ্ধ শুরু করেছিলেন, তবে সেটা মূলতঃ ভাইরাসের বিরুদ্ধে নয়। এটি ছিল বিশ্বের বিরুদ্ধে।
‘কোভিড -১৯-এর জন্য ভ্যাকসিন এবং ওষুধগুলি পাবলিক পণ্য হিসাবে গ্রাহ্য হওয়া উচিত’, এবং এর কোনওরূপ প্যাটেন্ট হওয়া উচিত নয়।
এই ঘোষণার মধ্য দিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিষদ তাদের ভাল দু’টি প্রতিপক্ষ পেয়েছে- আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য। দু’টি দেশই এক্ষেত্রে প্যাটেন্ট নিজেদের অধিকারে রাথতে চায়।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নভেম্বরের নির্বাচনের জন্য একটি ভ্যাকসিনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার ভাগ্য খালাস করার চেষ্টা করছেন। তার “মেক আমেরিকা গ্রেট অ্যাগেইন” স্লোগানটির ২০২০ সংস্করণটি মূলত এখন “আমাদের জন্য ভ্যাকসিন” তৈরির আকার ধারণ করছে। তবে আশার কথা-বিশ্বব্যাপী বাকিরা এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। তারা চান এটি হবে বৈশি^ক পেটেন্ট।
বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিষদে কোস্টা রিকান এ প্রস্তাবের সাথে একমত হয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতারাও। একমত চীনা রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংও বলেছেন, চীনা ভ্যাকসিনগুলি জনস্বার্থ হিসাবে উপলব্ধ হবে। কিনিকাল ট্রায়ালের প্রথম ধাপের ১ এবং ২-এর ১০ টি ভ্যাকসিনের মধ্যে চীনাদের পাঁচটি, যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি এবং যুক্তরাজ্য এবং জার্মানি একটি করে রয়েছে।
ট্রাম্প ৩০ দিনের মধ্যে যদি এর উপায়গুলি সংশোধন না করে তবে স্থায়ীভাবে তহবিল প্রত্যাহার করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লুএইচও) কে একটি আলটিমেটাম দিয়েছেন। এর বিপরীতে, বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিষদে (ডাব্লুএইচও’র সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সংস্থা), মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্রসহ প্রায় সব দেশই ডাব্লুএইচও’র পিছনে সবেত হয়েছিল।
ডাব্লুএইচও-এর বার্ষিক বাজেটের প্রায় চারগুণ বেশি সহ কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রগুলির ব্যর্থতা বিশ্বের কাছে দৃশ্যমান। সিডিসি ফেব্রুয়ারি এবং মার্চ মাসের সমালোচনামূলক মাসগুলিতে সারস-কোভি -২ এর জন্য সফল পরীক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়েছিল, যেখানে ১২০ টি দেশে বিতরণ করা ডাব্লুএইচও’র সফল পরীক্ষার কিট হয়েছিল উপেক্ষিত। ট্রাম্প এখনও এই প্রশাসন ও সিডিসিকে এই ফৌজদারি মামলার জন্য দায়বদ্ধ করে রেখেছেন। কোভিড -১৯ মহামারীকে কেন্দ্র করে এখন একটি ইস্যু বড় আকার ধারণ করছে। আমরা যদি বৌদ্ধিক-সম্পত্তি অধিকারের বিষয়টি সঠিকভাবে বিবেচনা না করি তবে আমরা হয়তো আরেকটি ‘এইডস ট্র্যাজেডি’র পুনরাবৃত্তি দেখতে পাব।
পেটেন্টেড এইডসের ওষুধ রোগীদের নাগালের বাইরে (এক বছরের সরবরাহের জন্য ১০,০০০ মার্কিন ডলার থেকে ১৫,০০০ ডলার হিসাবে পেটেন্ট এইডসের ওষুধ নির্ধারণ করা হয়) বলে ১০ বছর ধরে মানুষ মারা গিয়েছিল অকাতরে। ভারতে পেটেন্ট আইনগুলি সংসোধন করে মানুষকে দিনে এক ডলারেরও কম দামে সেই ওষুধ পেতে সহায়তা করেু। আজ, বিশ্বের ৮০% এইডস ওষুধ ভারত থেকে আসে।
বেশিরভাগ দেশেই বাধ্যতামূলক লাইসেন্স বিধান রয়েছে যা মহামারী বা স্বাস্থ্য জরুরি পরিস্থিতিতে পেটেন্টগুলি ভেঙে ফেলার অনুমতি দেয়
তাহলে, কেন দেশগুলি তাদের আইনে এবং বৌদ্ধিক সম্পত্তি অধিকার সম্পর্কিত বাণিজ্য-সম্পর্কিত দিকগুলি (টিআরআইপিএস) চুক্তিতে বিধান থাকা সত্ত্বেও পেটেন্ট ভাঙ্গতে অক্ষম? এর অকপট উত্তরটি হল- তাদের সামনে রয়েছে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার ভয়।
প্রতি বছর, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য প্রতিনিধি (ইউএসটিআর) অফিস একটি বিশেষ ৩০১ প্রতিবেদন জারি করে যার মাধ্যমে এটি যে কোনও দেশকে বাধ্যতামূলকভাবে কোনও পেটেন্টযুক্ত পণ্য লাইসেন্স দেওয়ার চেষ্টা করে এমন কোনও দেশের বিরুদ্ধে বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার হুমকি দেয়। নেক্সাভার নামের একটা ক্যান্সার-ড্রাগের জন্য একটি ভারতীয় ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা নাটকোকে তার দেয়া ২০১২ সালে একটি বাধ্যতামূলক লাইসেন্স দেওয়ার সাহসের জন্য অভিযুক্ত করে। তারা ক্যান্সার ড্রাগ বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান বেয়ারকে এ লাইসেন্স দেয়। াবয়ার সে ড্রাগের উন্ন্য়ন ঘটিয়ে পশ্চিমা বাজারে সেটি $ ৬৫,০০০ এরও বেশি দামে বিক্রি করছিল।
কোভিড -১৯ এর টিকা প্রতিবছর পুনরাবৃত্তি করার প্রয়োজন হতে পারে, কারণ আমরা এখনও এর শুরুর সময়কাল জানি না।
বিধি বিত্তবানদের পক্ষে পক্ষপাতদুষ্ট হলেও ট্রাম্প কোনও নিয়ম ভিত্তিক বিশ্বব্যাপী শৃংখলায় বিশ্বাস করেন না। তিনি বিভিন্ন অস্ত্র-নিয়ন্ত্রণ চুক্তির বাইরে চলে যাচ্ছেন এবং ডব্লিউটিওকে পঙ্গু করে দিয়েছেন। তিনি বিশ্বাস করেন যে বৃহত্তম অর্থনীতি এবং সর্বাধিক শক্তিশালী সামরিক শক্তি হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সমস্ত দেশের ওপর কর্তৃত্বের নিরবচ্ছিন্ন অধিকার থাকা উচিত। বোমা হামলা ও আক্রমণের হুমকিগুলি অবৈধ একতরফা নিষেধাজ্ঞার সাথে মিলিত হতে পারে – এবং তাঁর কাল্পনিক অস্ত্রাগারের সর্বশেষতম অস্ত্রটি হল এই ভ্যাকসিন।
ট্রাম্পের সামান্য সমস্যা হল- কয়েক দশক আগে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের একমাত্র বিশ্বব্যাপী আধিপত্যের দিনগুলি কেটে গেছে। আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র নিজেকে একটি ভ্রান্ত ও বিশাল মহামারী-বেষ্টিত দেশ হিসাবে চিহ্নিত করেছে এবং দেশটি যথাসময়ে তার লোকদের ভাইরাস পরীক্ষা প্রদান করতে অক্ষম হয়েছে।
চীন এবং ইইউ ইতিমধ্যে সম্মত হয়েছে যে তাদের দ্বারা বিকাশ করা কোনও ভ্যাকসিনকে জনসাধারণের মঙ্গল হিসাবে বিবেচনা করা হবে। এমনকি এটি ছাড়াও, একবার কোনও ওষুধ বা একটি ভ্যাকসিন সফল হিসাবে পরিচিত হওয়ার পরে, যুক্তিসঙ্গত বৈজ্ঞানিক অবকাঠামোযুক্ত যে কোনও দেশ ভ্যাকসিনের প্রতিলিপি তৈরি করতে এবং স্থানীয়ভাবে এটি উৎপাদন করতে পারে।
এই মুহূর্তের বিশে^ বিশেষত ভারতের বিশ্বের বৃহত্তম জেনেরিক ড্রাগ এবং ভ্যাকসিন উৎপাদন ক্ষমতা রয়েছে। ভারত বা যে কোনও দেশের পক্ষে কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন বা ওষুধ তৈরি হওয়ার পরে তা প্রতিরোধ করা – পেটেন্ট ভাঙ্গার ক্ষেত্রে সেই কর্তৃত্বই কী হয়ে উঠবে হুমকি?
[এই নিবন্ধটি এশিয়া টাইমসকে সরবরাহকারী ইন্ডিপেন্ডেন্ট মিডিয়া ইনস্টিটিউটের একটি প্রকল্প নিউজক্লিক এবং গ্লোবোট্রোটারের অংশীদারিত্বে প্রযোজনা করেছে।
প্রবীর পুরকায়স্থ একটি ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম নিউজক্লিক.ইন এর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। তিনি বিজ্ঞান এবং ফ্রি সফটওয়্যার আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী]
— একটি টিকা যদি আবিষ্কৃত হয়েই যায় সেটি কি সর্বজন সুলভ হবে?

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 140 People

সম্পর্কিত পোস্ট