চট্টগ্রাম রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০

সর্বশেষ:

৬৬ দিন পর রবিবার খুলছে সরকারি-বেসরকারি অফিস, মানতে হবে ১৩ দফা নির্দেশনা

৩০ মে, ২০২০ | ১০:৫২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

৬৬ দিন পর রবিবার খুলছে সরকারি-বেসরকারি অফিস, মানতে হবে ১৩ দফা নির্দেশনা

করোনার প্রাদুর্ভাব রোধে গত ২৬ মার্চ সবকিছু বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। তারপরও জরুরিসেবায় কিছু মন্ত্রণালয় ও বিভাগ খোলা রাখা হলেও কার্যত লকডাউনে ছিল গোটা বাংলাদেশ। অবশেষে টানা ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে সীমিত পরিসরে আগামীকাল রবিবার (৩১ মে) খুলে যাচ্ছে সরকারি-বেসরকারি সব অফিস। তবে এ সময়ে গণপরিবহন ও কলকারখানা সীমিত পরিসরে চালু করা হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গত ২৮ মে এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ তথ্য জানায়। এতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধকল্পে এবং পরিস্থিতির উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার আগামী ৩০ মে’র পর শর্তসাপেক্ষে দেশের সার্বিক কার্যাবলী ও জনসাধারণের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ/সীমিত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, আগামী ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে। ৫, ৬, ১২ ও ১৩ জুন সাপ্তাহিক ছুটি এ নিষেধাজ্ঞার অন্তর্ভুক্ত থাকবে। সার্বিক দিক বিবেচনা করে ছুটি আর না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

সরকারি-বেসরকারি অফিস চালুর ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য সুরক্ষার ১৩ নির্দেশনায় বলা হয়েছে—

১. দপ্তরের বাইরে প্রয়োজনীয় সংখ্যক জীবাণুমুক্তকরণ টানেল স্থাপনের ব্যবস্থা নিতে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দেওয়া যেতে পারে।

২. অফিস চালু করার আগে অবশ্যই প্রতিটি অফিস কক্ষ, আঙিনা, রাস্তাঘাট জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

৩. প্রত্যেক মন্ত্রণালয়/বিভাগের প্রবেশ পথে থার্মাল স্ক্যানার, থার্মোমিটার দিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করে অফিসে প্রবেশ করাতে হবে।

৪. অফিস পরিবহনগুলো অবশ্যই জীবাণুনাশক দিয়ে শতভাগ জীবাণুমুক্ত করতে হবে। যানবাহনে বসার সময় ন্যূনতম তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং সবাইকে মাস্ক (সার্জিক্যাল মাস্ক অথবা তিন স্তর বিশিষ্ট কাপড়ের মাস্ক, যা নাক ও মুখ ভালোভাবে ঢেকে রাখবে) ব্যবহার করতে হবে।

৫. সার্জিক্যাল মাস্ক শুধু একবার ব্যবহার করা যাবে। কাপড়ের মাস্ক সাবান দিয়ে পরিষ্কার করে আবার ব্যবহার করা যাবে।

৬. যাত্রার আগে এবং যাত্রাকালে পথে বার বার হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে।

৭. খাওয়ার সময় শারীরিক দূরত্ব (ন্যূনতম তিন ফুট) বজায় রাখতে হবে।

৮. প্রতিবার টয়লেট ব্যবহারের পর সাবান দিয়ে জীবাণুমুক্তকরণ নিশ্চিত করতে হবে।

৯. অফিসে কাজ করার সময় শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

১০. কর্মস্থলে সবাইকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে এবং ঘন ঘন সাবান পানি বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে।

১১. কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করোনাভাইরাস প্রতিরোধের সাধারণ নির্দেশনাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি নিয়মিত মনে করিয়ে দিতে হবে এবং তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছেন কিনা তা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। ভিজিলেন্স টিমের মাধ্যমে মনিটরিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

১২. দৃশ্যমান একাধিক স্থানে ছবিসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষার নির্দেশনা ঝুলিয়ে রাখতে হবে।

১৩. কোনও কর্মচারী অসুস্থ হলে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে আইসোলেশন বা কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করতে হবে।

পূর্বকোণ/আরপি

The Post Viewed By: 140 People

সম্পর্কিত পোস্ট