চট্টগ্রাম সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

‘পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী পরিবহন বন্ধ’
নানা অনিয়ম: ৩৯ যানবাহন চালককে ৪২ হাজার টাকা জরিমানা

৫ এপ্রিল, ২০২০ | ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী পরিবহন বন্ধ’

১৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। বন্ধ আছে গণপরিবহনের চলাচলও। আর পোশাক কারখানা খোলা-বন্ধের কারণে ঢাকায় আসা-যাওয়ার মধ্যে রয়েছেন পোশাক শ্রমিকেরা।  আর তাই পণ্যবাহী যানবাহন খেটে খাওয়া মানুষের যাতায়াতের প্রধান বাহন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) কড়া নির্দেশ দিয়েছে পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহন না করার জন্য।

পণ্যবাহী যানবাহন পরিচালনায় যুক্ত মালিক-শ্রমিকেরা বলছেন, পুলিশ, জেলা প্রশাসন ও বিআরটিএ তৎপর হলে সামনে এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হবে না।

দেশে করোনা মহামারি ঠেকাতে সব অফিস-আদালত ছুটি ঘোষণা করা হয় গত ২৬ মার্চ থেকে। বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ অধিকাংশ কারখানা বন্ধের ঘোষণা দিরেও সরকার কোনো স্পষ্ট সিদ্ধান্ত দেয়নি পোশাক কারখানার বিষয়ে। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ডভ্যানে করে বাড়ি ফেরেন অনেক পোশাক শ্রমিক। গত শনি ও রোববার শ্রমিকদের জানানো হয় কিছু কারখানা খোলার সিদ্ধান্তের কথা। আর শ্রমিকেরা এই খবরে শুক্রবার থেকে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঢাকার পথে রওনা করেন । গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বেশির ভাগই শ্রমিকেরাই হেঁটে বা পণ্যবাহী যান যা পেয়েছেন তাতেই চড়ে বসেন। কিন্তু পুনরায় নাটকীয় ভাবে পোশাক কারখানা বন্ধের ঘোষণা আসে গতকাল শনিবার রাতে। ফলে ঢাকায় ফিরে আসা শ্রমিকদের অনেকেই আবার ফিরে যাচ্ছেন। আর পণ্যবাহী যানই এই ক্ষেত্রে তাদের প্রধান ভরসা ।

বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ জানায়, নিয়ম অনুযায়ী পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহন নিষিদ্ধ। কিন্তু পোশাক কারখানা চালু-ছুটি নিয়ে কিছুটা দ্বিধাদ্বন্দ্বের ফলে এবং পোশাক শ্রমিকদের নিদারুণ দুর্ভোগের কারণে কিছুটা যাত্রী পরিবহন হয়েছে।  তবে কেউ পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহন করবে না যদি প্রশাসন তৎপর হয় ।

পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহনের নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আজ বিআরটিএর পক্ষ থেকে  বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, সরকারের নির্দেশনা রয়েছে পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী পরিবহন বন্ধ রাখার । এরপরও দেখা যাচ্ছে, কোনো কোনো পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে। যা দণ্ডনীয় অপরাধ। এ অবস্থায় জেলা প্রশাসন ও পুলিশকে এই বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

বিআরটিএর চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্ব) জানান, পুলিশ সদর দপ্তর এবং প্রত্যেক জেলা প্রশাসকের দপ্তরে পণ্যবাহী যানে যাত্রী পরিবহন বন্ধে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এখন এই কাজ করা আর সম্ভব না।

 

 

 

পূর্বকোণ-আরপি

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 179 People

সম্পর্কিত পোস্ট