চট্টগ্রাম বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন যেসব মানা জরুরি

১৫ মার্চ, ২০২০ | ৬:১৮ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন যেসব মানা জরুরি

বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করা প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিন বেড়েই চলছে। এখন পর্যন্ত এর কোন প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় সতর্ক থাকাই একমাত্র ব্যবস্থা। করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে আক্রান্ত দেশ থেকে আসা দেশি-বিদেশি যে কোনো নাগরিকের ১৪ দিনের স্বেচ্ছা বা হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন কিছু নির্দেশনা মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। নিজের ও পরিবারের সুরক্ষার জন্য বিধি-নিষেধগুলো মেনে চলা প্রয়োজন।

নির্দেশনাগুলো হলো, বাড়ির অন্য সদস্যদের থেকে আলাদা থাকা ও আলো-বাতাসের ব্যবস্থাসম্পন্ন আলাদা ঘরে থাকতে হবে। তবে সেটা সম্ভব না হলে অন্যদের থেকে থাকতে হবে অন্তত ৩ ফুট দূরে (ঘুমানোর জন্য আলাদা বিছানা ব্যবহার করতে হবে)। কোনো অতিথির সঙ্গে দেখা যাবে না। সম্ভব হলে আলাদা গোসলখানা ও টয়লেট ব্যবহার করতে হবে। না হলে টয়লেটের জানালা খুলে রেখে পর্যাপ্ত আলো-বাতাসের ব্যবস্থা করতে হবে। ভালোভাবে হাত ধুয়ে শিশুদের বুকের দুধ খাওয়াতে হবে। শিশুদের কাছে যেতে ব্যবহার করতে হবে মাস্ক। সঙ্গে কোনো পশু-পাখি রাখা যাবে না। ব্যক্তিগত ব্যবহারের জিনিসপত্র অন্যদের সঙ্গে ভাগাভাগি করা যাবে না, খাওয়ার থালা, গ্লাস, কাপ ইত্যাদি, তোয়ালে, বিছানা চাদর অন্য কারো সঙ্গে ভাগাভাগি করে ব্যবহার করা যাবে না। এসব জিনিসপত্র ব্যবহারের পর সাবান-পানি দিয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে। কিন্তু দৈনন্দিন রুটিন, যেমন- খাওয়া, হালকা ব্যায়াম ইত্যাদি মেনে চলা যাবে। সম্ভব হলে বাসা থেকে অফিসের কাজ করা যোতে পারে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী কোয়ারেন্টাইন শেষ হবে। তবে এ পর্যন্ত পাওয়া তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এ সময়সীমা ১৪ দিন।

এতকিছুর পরও কোয়ারেন্টাইনে থাকা অবস্থায় পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে ফোন, মোবাইল ও ইন্টারনেটে যোগাযোগ রাখা যাবে শিশুদের ক্ষেত্রে পর্যাপ্ত খেলার সামগ্রী দিতে হবে এবং খেলার পরে তা জীবাণুমুক্ত করতে হবে। সুস্থ ব্যক্তি ও যার দীর্ঘমেয়াদী রোগ (ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ক্যানসার, এজমা) নেই, এমন একজন নির্দিষ্ট ব্যক্তি কোয়ারেন্টাইনে থাকাদের দেখাশোনা করতে পারেন। তবে তিনি ওই ঘরে বা পাশের ঘরে থাকবেন, অবস্থান বদল করবেন না। যিনি দেখাশোনা করবেন তিনি কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে বা তার ঘরে ঢুকলে, খাবার তৈরির আগে ও পরে, খাবার গ্রহণের আগে, টয়লেট ব্যবহারের পরে, গ্লাভস পরার আগে ও খোলার পরে, হাত দেখে নোংরা মনে হলে প্রতিবার দুই হাত পরিষ্কার করতে হবে। এছাড়া খালি হাতে ওই ঘরের কোনোকিছু স্পর্শ করা যাবে না।

কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তির ব্যবহৃত বা তার পরিচর্যায় ব্যবহৃত মাস্ক, গ্লাভস, টিস্যু ইত্যাদি অথবা অন্য আবর্জনা ওই রুমে রাখা ঢাকনাযুক্ত ময়লার পাত্রে রাখতে হবে। এসসব আবর্জনা উন্মুক্ত স্থানে না ফেলে পুড়িয়ে ফেলতে হবে। ঘরের মেঝে, আসবাবপত্রের সব পৃষ্ঠতল, টয়লেট ও বাথরুম প্রতিদিন অন্তত একবার পরিষ্কার করতে হবে।

তথ্যসূত্র: অর্থসূচক

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

পূর্বকোণ/এম

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 264 People

সম্পর্কিত পোস্ট