চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ০১ অক্টোবর, ২০২০

সর্বশেষ:

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় থাকছে ১০ বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচনের সুযোগ

২৭ জানুয়ারি, ২০২০ | ৮:৪৪ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় থাকছে ১০ বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচনের সুযোগ

দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একযোগে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করতে একটি প্রস্তাবনা প্রণয়ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ থেকে শিক্ষার্থীরা ভর্তির আবেদনে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ১০টি বিশ্ববিদ্যালয় ও একাধিক বিষয় নির্বাচন করতে পারবেন।

সম্প্রতি ইউজিসিতে আয়োজিত এক বৈঠকে প্রণীত এ প্রস্তাবনায় দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা সম্মতি দিয়েছেন। আগামী সপ্তাহে বিষয়টি চূড়ান্ত করতে বড় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের নিয়ে আবারও ইউজিসিতে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

মোট ১০০ নম্বরের এমসিকিউ (মাল্টিপল চয়েস কোশ্চেন) ও সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন থাকবে। মেধার ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন হবে। ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া হবে অনলাইনে।

নতুন ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তাবনায় দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) আয়োজনে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা হবে। এতে মোট ১০০ নম্বরের এমসিকিউ (মাল্টিপল চয়েস কোশ্চেন) এবং সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন থাকবে। ডিপার্টমেন্ট বা বিভাগ অনুসারে সমন্বিত পদ্ধতিতে সারাদেশে একযোগে দুদিন সকালে ও বিকেলে পরীক্ষার আয়োজন করা হবে।

প্রথম দিন সকালে বিজ্ঞান বিভাগের রসায়ন, বায়োলজি, জীববিজ্ঞান ও গণিত এবং বিকেলে চিত্রাঙ্কন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরে মানবিক ও ব্যবসায় বিভাগের বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান পরীক্ষার আয়োজন করা হবে। বিকেলে কেবল ব্যবসায় বিভাগের জন্য এপটিটিউট (স্বাভাবিক জ্ঞান) বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হবে। দুই শনিবার এসব পরীক্ষার আয়োজন হবে। পরীক্ষার জন্য ১০টি প্রশ্নের সেট প্রণয়ন করা হবে। সেখান থেকে লটারির মাধ্যমে একটি সেট নির্বাচন করা হবে। তবে পরীক্ষার সময়সীমা নির্ধারণ হয়নি।

প্রস্তাবনায় আবেদন সংক্রান্ত বিষয়ে বলা হয়েছে, সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা হবে। ভর্তিচ্ছুরা ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে অনলাইনে আবেদন করবেন। ক্যাটাগরি অনুযায়ী আবেদনকারী মোট ১০টি বিশ্ববিদ্যালয় ও একাধিক বিষয় নির্বাচন করতে পারবেন। মেধাতালিকা অনুযায়ী নির্বাচিতদের তালিকা একই ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। ভর্তি পরীক্ষার ফি এক হাজার টাকা নির্ধারণ করা হতে পারে। ঢাকায় বড় কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি সংক্রান্ত একটি বুথ তৈরি করা হবে। সেখানে এ সংক্রান্ত সব তথ্য প্রদান করা হবে।

পরীক্ষা আয়োজন সংক্রান্ত বিষয়ে প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, ভর্তি পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে মনিটরিং কমিটি গঠন করা হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান ইউজিসির সদস্য অথবা বড় কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য থাকবেন, অন্য উপাচার্যরা সদস্য হিসেবে থাকবেন। সদস্য সচিব উপাচার্যদের মধ্য থেকে নির্বাচন করা হবে। কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় কমিটিতে আবার প্রশাসনিক ও কারিগরি কমিটি থাকবে। ভর্তি প্রক্রিয়া শুরুর আগে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসন সংখ্যা কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে পাঠানো হবে। তার ভিত্তিতে মেধা তালিকা তৈরি করা হবে।

কেন্দ্রীয় কমিটি বিভিন্ন বিষয়ের প্রশ্নপত্র তৈরি, ভিন্ন ভিন্ন গুচ্ছের জন্য শিক্ষার্থীদের কাছে আবেদনপত্র আহ্বান ও যাচাই-বাছাইকরণ, শিক্ষার্থীদের নামের পাশে কোড দেয়া, মেরিট লিস্ট তৈরির কাজ করবে। অন্যদিকে স্থানীয় কমিটি পরীক্ষা নেয়া, কোডের খাতা মূল্যায়নের ব্যবস্থা, ফল প্রসেসিংকরণ ও তা যথাস্থানে পাঠানোর কাজ করবে। সেজন্য উপ-কমিটিও গঠন করা হবে। পরীক্ষা নেয়ার আগে এসব কমিটি গঠন করা হবে। পরীক্ষা আয়োজন হবে কড়া নিরাপত্তার মাধ্যমে।

পূর্বকোণ/টিএফ

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 324 People

সম্পর্কিত পোস্ট