চট্টগ্রাম বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০

সর্বশেষ:

করোনার ভ্যাক্সিন নিয়ে আশার বাণী নোভাভ্যাক্সের
করোনার ভ্যাক্সিন নিয়ে আশার বাণী নোভাভ্যাক্সের

২৭ মে, ২০২০ | ২:০৪ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে আশার বাণী নোভাভ্যাক্সের

পুরো বিশ্ব যখন করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত তখন নতুন করে আশার বাণী শুনালেন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যারিল্যান্ডভিত্তিক জৈবপ্রযুক্তি কোম্পানি নোভাভ্যাক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্ট্যানলি এরক। করোনার মহামারিতে সামনের সারির কর্মীরা সবার আগে একটি ভ্যাকসিন পাবেন এবং তা এই বছরের শেষের দিকে আসতে পারে বলে তিনি মনে করছেন।

গতকাল মঙ্গলবার(২৬ মে) ভ্যাকসিনের দাম প্রসঙ্গে স্ট্যানলি এই তথ্য তুলে ধরেন।

তিনি বলেন,তাঁর সংস্থার সম্ভাব্য ভ্যাকসিনকে সাশ্রয়ী দিক বিবেচনায় ধরে স্তরভিত্তিক পদ্ধতিতে দাম নির্ধারণ করতে পারে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার থেকে নোভাভ্যাক্স করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম দফার পরীক্ষা শুরু করেছে বলে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি থেকে জানা যায়।মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি প্রতিষ্ঠানটি তাদের ভ্যাকসিন একজনের শরীরে প্রয়োগ করে এই পরীক্ষা শুরু করে। জুলাই মাসে এর ফল পাওয়া যেতে পারে।

স্ট্যানলি বলেন, ‘আমি মনে করি, ভ্যাকসিন তৈরি হলে তা সবার আগে সামনের সারির কর্মী, বিশেষ করে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের দেওয়ার বিষয়ে সবাই একমত হবেন। আমাদের আশানুরূপ নিরাপত্তা ও রোগ প্রতিরোধ শক্তিশালী করার ক্ষমতা যদি ভ্যাকসিনটির দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষার তথ্য দেখাতে পারে, আমরা যদি এটার কার্যকারিতার প্রমাণ দেখতে পাই, তবে চলতি বছরের চতুর্থ প্রান্তিকের কোনো এক সময় ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে।’

এদিকে, বিশ্বজুড়ে ১০০ টির বেশি ভ্যাকসিন তৈরিতে কাজ চলছে। এর মধ্যে যে কয়েকটি ভ্যাকসিন মানবদেহে পরীক্ষার পর্যায়ে পৌঁছেছে, এর মধ্যে নোভাভ্যাক্সের ভ্যাকসিনটি অন্যতম।

উল্লেখ্য, গত মার্চে নোভাভ্যাক্সের সিইও স্ট্যানলি হোয়াইট হাউসে ডোনাল্ড ট্রাম্প, করোনাভাইরাস টাস্ক ফোর্সের সদস্য ও ফার্মাসিউটিক্যাল এক্সিকিউটিভদের সঙ্গে একটি বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন।
এরপর, গত এপ্রিলে নোভাভ্যাক্স তাদের ভ্যাকসিন হিসেবে ‘এনভিএক্স-সিওভি২৩৭৩’ শনাক্ত করার ঘোষণা দেয়। এর সঙ্গে ইমিউন প্রতিক্রিয়া বাড়ানোর জন্য নোভাভ্যাক্স তাদের ‘ম্যাট্রিক্স-এম অ্যাডজুভান্টস’ সহায়ক ব্যবহার করার পরিকল্পনার কথা জানায়।

অ্যাডজভান্ট মূলত ভ্যাকসিনকে শক্তিশালী প্রতিরোধ ক্ষমতা জাগ্রত করতে ব্যবহৃত হয়; যার মধ্যে বেশি পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি, ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে দীর্ঘসময় সুরক্ষার বিষয়টি যুক্ত থাকে।

মানুষের জন্য নোভাভ্যাক্সের ভ্যাকসিন নিারপদ ও কার্যকর কি না, তা দেখতে এখনো বহু পথ পাড়ি দিতে হবে।   প্রথম ধাপে নিরাপত্তা ও দ্বিতীয় ধাপে কার্যকারিতা দেখতে পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী স্ট্যানলি   অনুমোদন পাওয়ার আগেই ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি তার সম্ভাব্য ভ্যাকসিন তৈরির ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তুলতে শুরু করেছে।

নোভাভ্যাক্স এই মাসের শুরুর দিকে ঘোষণা করেছিল, ইউরোপীয় অলাভজনক কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপারেডনেস ইনোভেশনস সংস্থাটি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন তৈরির কাজ দ্রুত শেষ করতে ৩৮ কোটি ৪০ লাখ ডলার বিনিয়োগ করবে।

নোভাভ্যাক্স জানায়,  তারা জুলাইয়ের প্রাথমিক পরীক্ষায় প্রতিরোধ ক্ষমতা ও সুরক্ষা ফলাফল প্রত্যাশা করছে।
সফল ভ্যাকসিন তৈরির জন্য উদ্যোগী প্রতিষ্ঠানগুলেোর তালিকা বড় হচ্ছে। এতে মডার্না, ফাইজার, জনসন ও জনসন, অ্যাস্ট্রাজেনেকা, সানোফি, গ্ল্যাক্সো স্মিথক্লাইন এবং মার্কের মতো বড় ও ছোট ওষুধ প্রস্তুতকারী এবং বায়োটেক সংস্থাগুলো অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

পূর্বকোণ/এএ 

The Post Viewed By: 143 People

সম্পর্কিত পোস্ট