চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

সর্বশেষ:

যুক্তরাষ্ট্রে লকডাউনের বিরুদ্ধে মিছিল

১৮ এপ্রিল, ২০২০ | ১০:০৯ অপরাহ্ণ

পূর্বকোণ ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রে লকডাউনের বিরুদ্ধে মিছিল

আগামী মে মাসের শেষের দিকে যুক্তরাষ্ট্রের নটি অঙ্গরাজ্যে লকডাউন তুলে নিয়ে সেখানে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পুনরায় চালু করার কথা ঘোষনা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।। এ অবস্থায় দেশের বিভিন্ন স্থনে লকডাউনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে সাধারণ মানুষ।

এদিকে করোনার আক্রমণে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃত্যু ৩৫ হাজার ছাড়িয়েছে। মোট আক্রান্ত হয়েছে সাত লাখের বেশি মানুষ। এ অবস্থার মধ্যে মিশিগান, ওহায়ো, কেন্টাকি, মিনেসোটা থেকে শুরু করে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বত্র শুরু হয়েছে লকডাউন বিরোধী আন্দোলন। তাদের একাংশের দাবি, পেটে টান পড়েছে বলেই তারা রাস্তায় নামতে বাধ্য হয়েছেন।

গত বুধবার মিশিগানের রাস্তায় কয়েক মাইল জুড়ে দেখা গিয়েছিল গাড়ির লাইন। গাড়ি থেকে না-বেরিয়ে এ ভাবেই ‘অপারেশন গ্রিড-লক’-এ নেমেছেন এই প্রদেশের একাংশ। তাদেরই একজন বলেন, ‘যা দেখছি, তাতে এখানে আমরা যারাই মিছিলে এসেছি, সবাই আক্রান্ত হব। কিন্তু লকডাউন না উঠলে তো এমনিতেই মরতে হবে মনে হচ্ছে।’

মিনেসোটায় ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে কেন্টাকি অঙ্গরাজ্যের মানুষ। তারা দাবি করেছে, তাদের ওপর এই লকডাউন চাফিয়ে দেয়া হয়েছে। যদিও এসব বিক্ষোভের ঘটনায় সরাসরি মুখ খোলেননি ট্রাম্প।

সূত্রের খবর, করোনা সঙ্কট মিটলেই যাতে চীনের বিরুদ্ধে স্বচ্ছ তদন্ত শুরু হয়, তা নিয়ে প্রেসিডেন্টকে আর্জি জানিয়েছেন বহু সেনেটর।

করোনায় হিমশিম খাচ্ছে সিঙ্গাপুর ও ব্রিটেনের মতো বহু দেশ। সিঙ্গাপুরে কেবল শুক্রবারেই ৬২৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। সূত্রের খবর, এর একটা বড় অংশ বিভিন্ন ডর্মিটরিতে রাখা বিদেশিরা। গত ১৪ দিনে ডর্মিটরি-সংক্রমণ প্রায় ৭০ গুণ বেড়ে প্রায় তিন হাজার ছুঁয়েছে।

ব্রিটেনে করোনায় আক্রান্ত লক্ষাধিক এবং মারা গেছে ১৪ হাজারের বেশি মানুষ। কিন্তু সরকার শুধুই হাসপাতালে মৃত্যুর পরিসংখ্যান দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন লন্ডনের ইনস্টিটিউট ফর গ্লোবাল হেলথের ডিরেক্টর অ্যান্টনি কস্টেলো। তার দাবি, সব ধরলে, ব্রিটেনে মৃতের সংখ্যা ৪০ হাজার ছোঁবে। যদিও এই ‘সিস্টেম এরর’মানতে নারাজ ব্রিটিশ সরকার।

সময়োচিত পদক্ষেপে অস্ট্রেলিয়ায় করোনা-দাপট ঠেকিয়ে রাখা গিয়েছে বলে দাবি প্রশাসনের। কিন্তু অভিভাবকদের একাংশ শিফ্টিংয়ে স্কুল খোলার আর্জি জানিয়েছেন। তবে তাদের সেই দাবি নাকচ করে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। দেশবাসীকে আরও এক বছর লকডাউনের হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

সূত্র: আনন্দবাজার

The Post Viewed By: 249 People

সম্পর্কিত পোস্ট