চট্টগ্রাম রবিবার, ০৯ আগস্ট, ২০২০

সর্বশেষ:

শিশুদের ত্বকের যতেœ যেসব ভুল হয়

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ৪:১৬ পূর্বাহ্ণ

সু স্থ থা কু ন

শিশুদের ত্বকের যতেœ যেসব ভুল হয়

শিশুদের ত্বক বড়দের ত্বক থেকে একদমই আলাদা। শিশুদের ত্বক খুব বেশি নাজুক আর কোমল হয়। এ জন্য শিশুদের ত্বকের বাড়তি যত্ন নিতে হয়। কিন্তু অনেকেই না জানার কারণে যত্ন নিতে গিয়ে কিছু সাধারণ ভুল করেন। জেনে নিন এসব ভুল আপনিও করছেন কিনা-

গোসল করানো : শিশুদের সাবান কিংবা অন্যান্য শাওয়ার জেল দিয়ে গরম পানিতে নিয়মিত গোসল করালে ত্বকের ক্ষতি হয়। ত্বকের উপরের পাতলা তেলের স্তরকে আস্তে আস্তে ক্ষয় করে দেয়। এতে ত্বক শুষ্ক হয়, গায়ে নানা রকম র্যািশ দেখা দেয়। শিশুরা হামাগুঁড়ি দিয়ে খেলতে শেখার আগে তাদের সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিনের বেশি গোসল না করানোই ভালো। অন্যান্য দিনগুলোতে হালকা গরম পানির মধ্যে কাপড় ভিজিয়ে শিশুর শরীর মুছিয়ে দিলে শিশুর ত্বক ভালো থাকবে।
রোদ লাগানো : শীতকালে আমাদের দেশে বিশেষ করে গ্রামে শিশুদের গায়ে সরিষার তেল মাখিয়ে কড়া রোদে শুইয়ে দেওয়া হয়। এতে শিশুদের ত্বক পুড়ে কালো হয়ে যায়। সকালে সূর্য ওঠার পরেই যে নরম রোদটা থাকে সেই রোদ শিশুদের ত্বকের জন্য সবচেয়ে উপযোগী। নরম রোদে শিশুরা আরাম পায়। সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন সকালের নরম রোদে শিশুদের ১৫ থেকে ২০ মিনিট রাখলে শিশুদের ত্বক ভালো থাকে।

টাইট পোশাক ও ডায়াপার এরিয়া : অনেকেই শিশুদের টাইট পোশাক পরান। এতে ত্বকে দাগ পড়ে যায়, অনেকের গায়ে আবার র্যােশ ওঠে। শিশুদের পোশাকের ক্ষেত্রে সুতি নরম কাপড়ের পোশাক পরাতে হবে। এতে শিশুরা আরাম পায়। এছাড়া ডায়াপার একটা খুলে সঙ্গে সঙ্গে আরেকটা পরানো ঠিক না। ডায়াপার এরিয়া পরিষ্কার করে শুকানোর পর নতুন করে ডায়াপার পরানো ভালো।

বেবি প্রোডাক্ট : বেবি প্রোডাক্ট নির্বাচনের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যাতে শিশুদের ত্বকের কোনো ক্ষতি না হয়। কড়া সুগন্ধ কিংবা রঙিন কোনো প্রডাক্ট ব্যবহার না করাই ভালো। বেবিদের জন্য বাজারে আলাদা প্রোডাক্ট পাওয়া যায়। সেখান থেকে ত্বকের উপযোগী ভালো কোনো প্রোডাক্ট বেছে নিতে হবে। ডিটারজেন্টের ব্যবহার : শিশুদের কাপড়, খেলনা ও ব্যবহৃত অন্যান্য জিনিস সবসময় মাইল্ড ডিটারজেন্ট দিয়ে ধোয়া উচিত। যেগুলোতে অতিরিক্ত রাসায়নিক পদার্থ আছে তেমন ডিটারজেন্ট ব্যবহার না করাই ভালো। শিশুর পোশাক পরিষ্কার করার সময় অবশ্যই স্যাভলন ব্যবহার করা উচিত, যাতে কাপড়ের জীবাণু নষ্ট হয়ে যায়।

The Post Viewed By: 139 People

সম্পর্কিত পোস্ট