চট্টগ্রাম শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

গ্রিন টি যখন ক্ষতির কারণ

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৩:২২ পূর্বাহ্ণ

গ্রিন টি যখন ক্ষতির কারণ

স্বাস্থ্যকর পানীয় হিসেবে গ্রিন টিয়ের জনপ্রিয়তা রয়েছে। ওজন কমাতে এই ভেষজ চা পান করেন স্বাস্থ্য সচেতনরা। এছাড়া অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ গ্রিন টি ক্যানসার রোধ করে,হৃদরোগের ঝুঁকি কমায় ও এনে দেয় মানসিক প্রশান্তি। তবে অতিমাত্রায় গ্রিন টি পান কিন্তু উল্টো শরীরের বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে।
প্রতিদিন কতোটুকু গ্রিন টি : বিশেষজ্ঞদের তথ্য মতে, প্রতিদিন ২-৫ কাপ গ্রিন টি পান করাই যথেষ্ট। তবে দিনে ৩ কাপ গ্রিন টি পানকেই আদর্শ মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। কেউ যদি দিনে এর চাইতে বেশি গ্রিন টি পান করেন, তবে তা ক্ষতিকর বলেই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।
গ্রিন টি পানের আদর্শ সময় কোনটি : বিশেষজ্ঞরা বলছেন প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে ১১ টার মধ্যে অথবা সন্ধ্যার পর গ্রিন টি পান করা ভালো। শরীরে আয়রন শোষণের জন্য খাওয়ার ২ ঘন্টা আগে বা পরে গ্রিন টি পান করা উচিৎ।

গ্রিন টি এর ক্ষতিকর দিকগুলো : দীর্ঘদিন ধরে গ্রিন টি পান করার অভ্যাস থাকলে এটি মাথা ব্যথার কারণ হতে পারে। অতিরিক্ত গ্রিন টি পান করলে শরীরের আয়রনসহ পুষ্টিকর উপাদান শোষণ করা ব্যাহত হতে পারে। গ্রিন টিয়ে থাকা ট্যানিন আয়রন শোষণে বাধা দেয়। এর ফলে আয়রনের ঘাটতি হলে শ্বাসকষ্ট,মাথাব্যথা ও ক্লান্তি দেখা দিতে পারে।

সে কারণে খাবার খাওয়ার ২ ঘন্টা আগে বা পরে গ্রিন টি পান করা উচিৎ। অন্যদিকে,আয়রন সমৃদ্ধ খাবার যেমন মাংস,ঘন সবুজ সবজি খাওয়ার পাশাপাশি গ্রিন টি পান করলে পানীয়টির উপকারিতা কমে যায়। গ্রিন টিতে যেহেতু ক্যাফেইন,অ্যান্টি অক্সিডেন্ট পলিফেনল থাকে, তাই অতিরিক্ত গ্রিন টি পান করলে অ্যাসিডিটি ও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এতে থাকা ট্যানিন পাকস্থলীতে অ্যাসিডিটি তৈরি করা, পাকস্থলীর ব্যথা, বমি ভাব ও কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য দায়ী। তাই খালি পেটে গ্রিন টি পান করা থেকে বিরত থাকা উচিত বলেই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

যাদের পেপটিক আলসারের সমস্যা আছে, তাদের গ্রিন টি না পান করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ঘুমাতে যাওয়ার আগে গ্রিন টি পান করা উচিৎ নয়। এতে ক্যাফেইনের প্রভাবে ঘুমের ব্যাঘাত হতে পারে। এছাড়া ক্যাফেইনের কারণে রেগে যাওয়া বা নার্ভাসনেসের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। অতিরিক্ত মাত্রায় গ্রিন টি পান করলে তাতে থাকা পলিফেনল লিভার ও কিডনির ক্ষতি করতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। অতিরিক্ত গ্রিন টি রক্তচাপ অনেক ক্ষেত্রে বাড়িয়ে দিতে পারে ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা কিছু ওষুধের কার্যকারিতাও কমিয়ে দিতে পারে। অতিরিক্ত গ্রিন টি হাড়ের সমস্যায় ভোগা রোগীদের অস্টিওপোরোসিসের মতো রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। গ্রিন টিতে থাকা বেশ কিছু উপাদান শরীরে ক্যালসিয়াম শোষণে বাধা দেয়, এতে করে হাড়জনিত রোগের ঝুঁকি বাড়ে। অনেকটা বিরল হলেও অতিমাত্রায় গ্রিন টি পান করলে শরীরে রক্তপাতের সমস্যা তৈরি করতে পারে। গ্রিন টিতে থাকা কিছু উপাদান রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করা প্রোটিন ফাইব্রিনোজেনের পরিমাণ কমিয়ে দিলে এই সমস্যা তৈরি হয়। [তথ্যসূত্র : বোল্ড স্কাই]

The Post Viewed By: 353 People

সম্পর্কিত পোস্ট