চট্টগ্রাম বৃহষ্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

স্লিপ ওয়াকিং : আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | ৭:২৮ পূর্বাহ্ণ

সু স্থ থা কু ন

স্লিপ ওয়াকিং : আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই

অনেকে ঘুমের ঘোরে রুমের বাইরে চলে যান, নিজের মনে কথা বলেন, কাঁদেন আবার ঘুমিয়ে পড়েন আপনাতেই। আবার ঘুম থেকে উঠে তার কিছুই মনে থাকে না, কী করেছেন, কোথায় গেছেন কিছুই তিনি মনে করতে পারেন না। বেশ রহস্যময় ব্যাপার। অনেকে ব্যাপারটির ভৌতিক ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করবেন।
ব্যাপারটি যতই রহস্যময় হোক না কেন, বিজ্ঞান ব্যাপারটিকে সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যার আলোকে বিশ্নেষণ করেছে। মনোবিজ্ঞানের পরিভাষায় এ অবস্থাকে বলা হয় সমনামবুলিজম বা ঘুমন্ত অবস্থায় হাঁটা, ইংলিশে স্লিপ ওয়াকিং। সাধারণত ছোটদের মাঝে দেখা গেলেও বড়রাও আক্রান্ত হতে পারেন স্লিপ ওয়াকিংয়ে। যারা স্লিপ ওয়াকিং করে থাকেন তারা আর সবার মতোই ঘুমাতে যান বিছানায়, ঘুমিয়ে পড়েন ঠিক মতোই। কয়েক ঘণ্টার মাঝেই শুরু হয় আসল খেলা! তারা কথা বলা শুরু করেন আপন মনে, হয়তো কাঁদেন বা চিৎকার করেন, উঠে পড়েন ঘুম থেকে। চোখ খুলে তাকান কিন্তু চেহারা থাকে ভাবলেশহীন, অভিব্যক্তিহীন। তিনি কী করছেন, কী বলছেন, কোথায় যাচ্ছেন- সব করছেন নিজের অজান্তে।

স্লিপ ওয়াকিংয়ের কারণ : খুব ক্লান্ত দেহে বিছানায় গেলে, সারাদিন অধিক খাটাখাটুনি হলে, উত্তেজনা, ভয়, মানসিক অস্থিরতা থাকলে, প্রতিদিনের ঘুম যদি হয় অনিয়মিত ও অপর্যাপ্ত, স্লিপ এপনিয়া বা ঘুমের মাঝে বিশেষ ধরনের শ্বাসবদ্ধতা থাকলে, কিছু ওষুধের কারণেও ঘটতে পারে এমন ব্যাপার, আবার পরিবারে কারও থেকে থাকলে অর্থাৎ মা-বাবার থেকে থাকলে সন্তানদেরও স্লিপ ওয়াকিং করার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

স্লিপ ওয়াকিং থামাতে করণীয় : প্রথমেই হতে হবে সতর্ক, একা থাকতে দেওয়া ঠিক হবে না এদের। অনেকে দরজা খুলে বাইরে চলে যান, রেলিং টপকে পরে যান নিচে অথবা রাস্তায় নেমে দুর্ঘটনায় পতিত হন। এদের জন্য ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করার সঙ্গে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন, যেন বাইরে যেতে না পারেন। হাঁটতে দেখলে তাদের বিছানায় নিয়ে যান, আবার শুইয়ে দিন মমতা মিশিয়ে।

শেয়ার করুন
The Post Viewed By: 130 People

সম্পর্কিত পোস্ট