চট্টগ্রাম মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

পাঁচ কারণে জ্ঞান হারানোর অনুভূতি

২৬ জানুয়ারি, ২০২০ | ৪:২৩ পূর্বাহ্ণ

সু স্থ থা কু ন

পাঁচ কারণে জ্ঞান হারানোর অনুভূতি

বয়স্ক মানুষদের একটি প্রচলিত অভিযোগ হচ্ছে মস্তিষ্কে দুর্বলতা বা অসুস্থতা অনুভব করা অথবা জ্ঞান হারিয়ে যাচ্ছে বলে মনে হওয়া। যদিও সাধারণত জীবননাশক কারণে এরকম অনুভূতি হয় না, তারপরও এ উপসর্গে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

পানিশূন্যতা : পরিবেশে তাপমাত্রা বেড়ে গেলে অথবা পর‌্যাপ্ত পরিমাণে তরল জাতীয় খাবার না খেলে বা পানি পান না করলে অথবা অসুস্থ হলে আপনি ডিহাইড্রেশন বা পানিশূন্যতায় ভুগতে পারেন। শরীরে পর‌্যাপ্ত তরল না থাকলে রক্তের পরিমাণ ও রক্তচাপ কমে যায় এবং মস্তিষ্কে পর‌্যাপ্ত রক্ত পৌঁছতে পারে না। এর ফলে চেতনা হারানোর অনুভূতি হতে পারে। ডা. গ্রসম্যান বলেন, ‘এসময় এক গ্লাস পানি পান করলে ভালো অনুভব করবেন, কিন্তু আপনি অনেকদিন ধরে খাবার না খেলে বা পানি পান না করলে পুনরায় হাইড্রেটেড হতে বা পানিশূন্যতার উপসর্গ দূর করতে সময় লাগবে।’ কিছুক্ষেত্রে শিরাপথে তরল সরবরাহের প্রয়োজন হতে পারে। আপনার চিকিৎসক পটাশিয়াম বা সল্টের মতো ইলেক্ট্রোলাইটের প্রয়োজন আছে কিনা চেক করে দেখতে পারেন।

ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : কখনো কখনো ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে আপনার মস্তিষ্কে দুর্বলতা অনুভব করতে পারেন অথবা জ্ঞান হারানোর অনুভূতি হতে পারে, বিশেষ করে রক্তচাপ কমায় অথবা অধিক মূত্রত্যাগে বাধিত করে এমন ওষুধ খেলে। ডা. গ্রসম্যান বলেন, ‘এসব ওষুধ খুব ভালোভাবে কাজ করলে রক্তচাপ খুব কমে যাবে- এর ফলে আপনার মনে হতে পারে যে চেতনা হারাতে যাচ্ছেন। এ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার জন্য ডিউরেটিকস বা মূত্রবর্ধক ওষুধের দুর্নাম ছড়িয়ে পড়েছে।’ এর সমাধান আপনার চিকিৎসক দিতে পারবেন: হয়তো ডোজ অ্যাডজাস্ট করবেন, নয়তো ভিন্ন ওষুধ লিখে দেবেন।
হঠাৎ রক্তচাপ কমে যাওয়া : আমরা যখন দাঁড়াই তখন অটোনমিক নার্ভাস সিস্টেম শরীরকে রক্তচাপের পরিবর্তন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। কিন্তু বয়স বেড়ে গেলে এই সিস্টেমও ভেঙ্গে পড়তে থাকে। এর ফলে শোয়া বা বসা থেকে দাঁড়ালে রক্তচাপ সাময়িকভাবে কমে যায়, যা অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন নামে পরিচিত। এ দশা থেকে আপনার জ্ঞান হারানোর অনুভূতি হতে পারে। হাইপোটেনশন হচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা, কিন্তু এর চিকিৎসার জন্য ওষুধ রয়েছে, যেমন- মিডোড্রাইন ও ফ্লুড্রোকরটিসোন। আপনার এ সমস্যা আছে মনে হলে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।

রক্ত শর্করা কমে যাওয়া : ডা. গ্রসম্যান বলেন, ‘আপনার যথেষ্ট রক্ত শর্করা না থাকলে শরীরের প্রত্যেকটি সিস্টেম শক্তি পেতে শক্তির রিজার্ভ ব্যবহার করতে শুরু করবে। আপনার মস্তিষ্কও এর বাইরে নয়, এর ফলে জ্ঞান হারানোর অনুভূতি হতে পারে।’ এক গ্লাস জুস বা ফলের রস এ উপসর্গ থেকে মুক্তি দিতে পারে। আপনি গ্লুকোজ ট্যাবলেটও চুষতে পারেন। ক্ষেত্রবিশেষে শিরাপথে গ্লুকোজ সরবরাহের প্রয়োজন হতে পারে। আপনার রক্ত শর্করা কমে যাওয়ার প্রবণতা থাকলে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থি এড়াতে নিয়মিত রক্ত শর্করার মাত্রা চেক করা ভালো।

হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক : প্রাণনাশ করতে পারে এমন কিছু সমস্যার উপসর্গ হিসেবেও চেতনা হারানোর অনুভূতি হতে পারে, যেমন- হার্ট অ্যাটাক অথবা স্ট্রোক। হার্ট অ্যাটাকের অন্যান্য সম্ভাব্য সহযোগী উপসর্গ হচ্ছে: বুক ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, বমিভাব, বাহু ব্যথা, পিঠ ব্যথা ও চোয়াল ব্যথা। অন্যদিকে স্ট্রোকের অন্যান্য সম্ভাব্য সহযোগী উপসর্গ হচ্ছে: হঠাৎ মাথাব্যথা, অবশতা, দুর্বলতা, দৃষ্টিগত পরিবর্তন, হাঁটতে সমস্যা ও দুর্বোধ্য কথা। কিন্তু বয়স্ক লোকদের ক্ষেত্রে জ্ঞান হারানোর অনুভূতি হতে পারে হার্ট অ্যাটাক অথবা স্ট্রোকের একমাত্র উপসর্গ, বিশেষ করে এ উপসর্গ দীর্ঘক্ষণ থাকলে, বলেন ডা. গ্রসম্যান। হার্ট অ্যাটাক অথবা স্ট্রোক হতে যাচ্ছে মনে হলে জরুরি বিভাগে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন। তথ্যসূত্র : হার্ভার্ড হেলথ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
The Post Viewed By: 159 People

সম্পর্কিত পোস্ট